কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ার চাঞ্চল্যকর সোহেল হত্যা রহস্য উদঘাটন, গ্রেপ্তার তিন


 সাখাওয়াত হোসেন হৃদয় | ৩০ নভেম্বর ২০১৮, শুক্রবার, ৮:০৯ | পাকুন্দিয়া  


প্রায় দুই মাস তদন্ত করে অবশেষে চাঞ্চল্যকর সোহেল হত্যা রহস্য উদঘাটন করতে সফল হয়েছে পাকুন্দিয়া থানা পুলিশ। ঘটনায় জড়িত তিনজনকে গ্রেপ্তার করে শুক্রবার (৩০শে নভেম্বর) আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে, পাকুন্দিয়া উপজেলার জাঙ্গালিয়া ইউনিয়ন কাজীহাটি গ্রামের কামাল উদ্দিন মবিনের মেয়ে মোছা. মর্জিনা আক্তার, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার হয়বতনগর এলাকার আবদুল হাই এর ছেলে তরিকুল ইসলাম সাইম ও পূর্ব কাতিয়ারচর গ্রামের মোসলেহ উদ্দিনের ছেলে উজ্জল মিয়া।

পুলিশ জানায়, প্রেমঘটিত কারণে জাঙ্গালিয়া ইউনিয়নের কাজিহাটী গ্রামের মর্জিনা আক্তার তার পূর্ব পরিচিত তরিকুল ইসলাম সাইমকে দিয়ে একই গ্রামের মানিক নামে এক যুবককে শায়েস্তা করতে চায়।

তরিকুল ইসলাম সাইমের বাড়ি কিশোরগঞ্জ সদরের হয়বতনগর এলাকায়। সে মর্জিনার মোবাইল দিয়ে নুসরাত নামে এক মেয়ের সাথে প্রেম করতো। এ সুবাধে মর্জিনার সাথে সাইমের সম্পর্ক।

ঘটনার দিন গত ৩রা অক্টোবর সন্ধ্যায় মর্জিনা আক্তার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মানিক মিয়ার অবস্থান নিশ্চিত করে সাইমকে জানায়। সাইম তার কয়েক বন্ধুদের নিয়ে মানিককে শায়েস্তা করতে গিয়ে মানিকের সাথে থাকা সোহেলকে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই মারা যায় সোহেল।

তবে কে বা কারা কি কারণে সোহেলকে খুন করেছে তা রহস্যজনক থাকায় আসামি অজ্ঞাত রেখে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন সোহেলের পিতা। ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে পুলিশ মানিককে গ্রেপ্তার করে। সে বর্তমানে কারাগারে রয়েছে।

ওই মামলায় তদন্ত করতে গিয়ে প্রযুক্তির মাধ্যমে রহস্য উদঘাটন করতে সফল হয় থানা পুলিশ। পাকুন্দিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ ইলিয়াস ও পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মালেক খসরু খান এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ বৃহস্পতিবার (২৯শে নভেম্বর) রাতভর অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন এলাকা থেকে তিনজনকে আটক করে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পাকুন্দিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ ইলিয়াস জানান, চাঞ্চল্যকর সোহেল হত্যা রহস্য উদঘাটিত হয়েছে। আটক তিনজন প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। হত্যা মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখিয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড ও অধিকতর তদন্তের জন্য রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর