কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মনিমঙ্গল থেকে মানসী: রূপালী পর্দার সোনালী অতীত


 সাজন আহম্মেদ পাপন | ২ জানুয়ারি ২০১৯, বুধবার, ৯:৪৬ | বিনোদন 


সিনেমা হল চেনেন না এমন মানুষ বোধহয় নেই। কিশোরগঞ্জের প্রথম যে কয়েকটি সিনেমা হল প্রতিষ্ঠিত হয় তার মধ্যে একটি হচ্ছে, মানসী সিনেমা হল। সিনেমা হলের এই ঘরটিতে আটকা পড়ে আছে অনেক ইতিহাস।

বর্তমানে যে হলটিকে আমরা মানসী সিনেমা হল নামে চিনি, সেটার আদি নাম ছিল মনিমঙ্গল। সময়টা ছিল পাকিস্তান আমলের মধ্যমভাগ। তখন হিন্দি আর উর্দু ছবির জয়জয়কার ছিল এই হলে। জমিদার বিরাজ মোহন রায়ের হাত ধরেই এই সিনেমা হলটি আবার শুরু হয় নতুন আঙ্গিকে। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর আরো পাল্টে যায় সিনেমা হলটি।

জমিদার বিরাজ মোহন রায়ের স্ত্রী মায়া রানী রায় সিনেমা হলটির মালিকানা নেওয়ার পর যুক্ত করেন উন্নতমানের সাউন্ড সিস্টেম, যা দর্শকদের মাঝে সিনেমা হলের প্রতি আগ্রহ আরো বাড়িয়েছিল।

জমিদার বিরাজ মোহন রায়ের নাতি সুমন রায় সূর্য রাহুল জানান, পাকিস্তান আমলে সুনীল ঘোষ নামে এক ব্যক্তি বিরাজ মোহন রায়ের কাছ থেকে নেয়া ভাড়াকৃত জায়গায় মনিমঙ্গল নাম দিয়ে সিনেমা হল স্থাপন করেন। আনুমানিক ১৯৬৫-৬৬ সালে জমিদার বিরাজ মোহন রায়ের স্ত্রী মায়া রানী রায়কে সুনীল ঘোষ উপহারসস্বরুপ সিনেমা হলটি দিয়ে যান। তখন ‘মনিমঙ্গল’ নাম পরিবর্তন করে হলটির নামকরণ করা হয় ‘মানসী’।

জমিদার বিরাজ মোহন রায়ের ছোট ছেলে প্রয়াত সন্দীপ রায়ের স্ত্রী নেভী রায় বলেন, আমার শ্বশুর ছিলেন সংস্কৃতিমনা এবং সাংস্কৃতিক সংগঠক। আমার শ্বশুর এবং শাশুড়ি খুব যতেœ আর ভালোবাসায় গড়েছেন মানসী সিনেমা হল। আমার স্বামী সন্দীপ রায় হলটির পরিসর বাড়ানোর চিন্তা করেছিলেন। তিনি মারা যাওয়ায় তা আর এখনি হয়ে উঠছে না। সিনেমা হলটি যেমন ছিল ঠিক তেমনই আছে। আর আমাদের সিনেমা হলটি ইতিহাসবহনকারী সিনেমা হল।

‘শুরু থেকেই হলটির জনপ্রিয়তা ছিল দেখার মতো। একটি টিকেটের জন্য ভোরবেলা থেকেই কাউন্টারের লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতেন সিনেমাপ্রেমীরা। পাকিস্তান আমলের শেষের দিকে এবং বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরেও কিশোরগঞ্জসহ আশেপাশের জেলা-উপজেলার অনেক বিখ্যাত লোকজনদেরও দেখা মিলতো মানসী সিনেমা হলে।’

কথাগুলো মানসী হলের কর্মচারী মৃণাল কান্তি করের। বয়স ৬৫  ছুঁই ছুঁই। তিনি খানিকটা দেখেছেন এই হলের জনপ্রিয়তা।

সিনেমা হলটির বর্তমান ব্যবস্থাপক আব্দুল কাইয়ুম বাবলু জানান, দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে এখন পর্যন্ত হলটিতে প্রায় ১ হাজার ৬০০ ছবি প্রদর্শিত হয়েছে। হলটির ওপর নির্ভর করে প্রায় ১০ জন মানুষের পরিবারের জীবন ও জীবিকার চিত্র। প্রায় ৬০০ আসন রয়েছে এই সিনেমা হলে। তবে আগের মতো এখন আর নিত্যদিনের ব্যবসা হয় না।

এমনটা কেন হচ্ছে? প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, মানহীন সিনেমা, অনুন্নত পরিবেশ, হাতের মুঠোয় সিনেমা দেখার অপার সুযোগ প্রভৃতি কারণে প্রেক্ষাগৃহ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন দর্শক।

আব্দুল কাইয়ুম বাবলু আরো জানান, নব্বই দশকের শেষদিক থেকে মূলত সিনেমা হলের মন্দা ভাব শুরু হয়। স্যাটেলাইট টিভি, ইন্টারনেট আর পাইরেসি গ্রাস করেছে চলচ্চিত্রকে। হুবহু নকল আর মানহীন গল্প নির্মাণ দর্শকদের ক্রমাগত হলবিমুখ করতে থাকে। আর দর্শক না গেলে ছবি ব্যবসা সফল হয় না। হল চালানোর খরচও ওঠে না।

তিনি বলেন, তবে বর্তমানে শাকিব খানের সিনেমা ব্যবসা করে। জাজ মাল্টিমিডিয়া এবং যৌথ প্রযোজনার কিছু সিনেমা দর্শক টানে। সিয়ামের দহন, পোড়ামন-২ ভালো ব্যবসা করেছে। এছাড়া অন্য নায়ক-নায়িকাদের সিনেমা দর্শক টানতে পারে না। তবে আমরা আশাবাদী সিনেমা ব্যবসার সুদিন ফিরে আসবে। আবারও জমে উঠবে মানসী সিনেমা হল।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর