কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ফসলি জমির ক্ষতিকর পোকা দমনে পাকুন্দিয়ায় সাড়া ফেলেছে ‘ইয়েলো কালার ট্র্যাপ’


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ৫ জানুয়ারি ২০১৯, শনিবার, ৬:৫৪ | কৃষি 


পাকুন্দিয়ায় ফসলি জমির ক্ষতিকর পোকা দমনে ব্যবহৃত হচ্ছে ইয়েলো কালার ট্র্যাপ। এই প্রযুক্তির মাধ্যমে জমিতে ক্ষতিকর কীটনাশকের ব্যবহার ছাড়াই বিষমুক্ত ফসল উৎপাদন করা সম্ভব হচ্ছে। ফলে স্থানীয় কৃষকদের মাঝে জনপ্রিয়তা পাচ্ছে ‘ইয়েলো কালার ট্যাপ’ প্রযুক্তি।

বেঁচে থাকার জন্য খাদ্য জরুরী হলেও তার চেয়ে জরুরী হলো নিরাপদ খাদ্য। টেকসই জীবন ও সুস্বাস্থ্যের জন্য নিরাপদ খাদ্যের কোন বিকল্প নেই। অনিরাপদ খাদ্য স্বাস্থ্য ঝুঁকিসহ দেহের বিভিন্ন রোগের কারণ। নিরাপদ খাদ্য নিয়ে মানুষ এখন  রীতিমত আতঙ্কে আছে।

খাদ্য মানুষের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয় বিভিন্ন স্তরে; যেমন- উৎপাদন পর্যায়ে, প্রক্রিয়াজাতকরণে এবং সংরক্ষণ পর্যায়ে। তবে সবচেয়ে বেশি হচ্ছে উৎপাদন পর্যায়ে। তাই  ফসল উৎপাদনে কীটনাশকের ব্যবহার কমানো বা কীটনাশক ব্যবহার না করে বিষমুক্ত ফসল উৎপাদন করা এখন সকল মানুষের প্রধান চাহিদা।

মানুষের এই চাহিদার বিষয়টি মাথায় রেখেই ফসল উৎপাদনের ক্ষেত্রে কীটনাশকের ব্যবহার কমানোর জন্য কৃষি বিভাগ প্রতিনিয়ত মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের বিভিন্ন ধরণের প্রযুক্তি ব্যবহারের পরামর্শ দিচ্ছে। এসব প্রযুক্তির মধ্যে কৃষকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ‘ইয়েলো কালার ট্র্যাপ’।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, ‘ইয়েলো কালার ট্র্যাপ’ হচ্ছে বিশেষ এক ধরনের আঠা সমৃদ্ধ হলুদ কালারের পেপার ট্র্যাপ যা সাদা কাগজ দিয়ে ঢাকা থাকে। এসিআই ক্রপ কেয়ার এটি বাজারজাত করছে। এই কালার ট্র্যাপ বিভিন্ন ফসল যেমন- মরিচ, আলু, বেগুন, টমেটো, কুমড়া জাতীয় সবজি, ধানের বীজতলা এবং পান বরজে পোকা দমনে ব্যবহৃত হচ্ছে। ইয়েলো কালার ট্র্যাপ জমিতে টানানোর পর সাদা কাগজটি উঠিয়ে ফেলতে হয়। তারপর বিশেষ ধরনের আঠা সমৃদ্ধ হলুদ কালারের ট্র্যাপটি জমিতে ঝুলতে থাকে। পোকামাকড় সাধারণত হলুদ রংয়ে সবচেয়ে বেশি আকৃষ্ট হয়। হলুদ রংয়ে আকৃষ্ট হয়ে পোকামাকড় সেখানে গিয়ে বসতেই আঠার মধ্যে আটকে মারা যায়।

সরেজমিনে পাকুন্দিয়া উপজেলার আংগিয়াদী গ্রামে গিয়ে বেশ কয়েকজন পান ও সবজি চাষি এ প্রযুক্তি ব্যবহার করে সুফল পেয়েছেন বলে জানা যায়।

পান চাষী নুরুল ইসলাম বলেন, ক্ষুদ্রাকৃতির পোকাগুলো  পানে বসে রস চুষে খেয়ে গাছকে দুর্বল করে ফেলে। যার কারণে আগে পানে বিষ ব্যবহার করা হতো। বর্তমানে উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ ভাইয়ের পরামর্শে আমরা বিষ প্রয়োগ বন্ধ করে এ কালার ট্র্যাপ ব্যবহার করছি। এই প্রযুক্তি ব্যবহারের পর থেকে পান বরজে আর বিষ প্রয়োগের প্রয়োজন হয় না। এই ট্র্যাপ ব্যবহারে পোকামাকড় দমন করা যাচ্ছে খুব সহজেই।

খামা গ্রামের কৃষক জালাল উদ্দিন জানান, গত মৌসুমে ধানের বীজতলায় ইয়েলো কালার ট্র্যাপ ব্যবহার করে তিনি সুফল পেয়েছেন। তাই এই মৌসুমেও ধানের বীজতলায় তিনি ইয়েলো কালার ট্র্যাপ ব্যবহার করেছেন।

যিনি ইয়েলো কালার ট্র্যাপ প্রযুক্তিটি সম্প্রসারণে মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ।

তার কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, নিরাপদ ফসল উৎপাদনের জন্য কৃষকদের ফসল ভেদে বিভিন্ন ধরনের ফাঁদ ব্যবহারের পরামর্শ দেওয়া হয়ে থাকে। তার মধ্যে ইয়েলো কালার ট্র্যাপ অন্যতম। ইয়েলো কালার ট্র্যাপে পোকা সরাসরি আটকে থাকে বিধায় কৃষকদের কাছে প্রযুক্তিটির গ্রহণযোগ্যতা বেশি। এছাড়া কৃষক ইচ্ছে করলে একটি ইয়েলো কালার ট্র্যাপকে ৩টি ভাগে ভাগ করে ব্যবহার করতে পারেন। এতে খরচ খুবই কম হয়।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ সাইফুল হাসান আলামিন জানান, পাকুন্দিয়ায় পরিবেশ বান্ধব পদ্ধতিতে পোকামাকড় দমনে গুরত্ব দেয়া হচ্ছে। তার মধ্যে ইয়েলো কালার ট্র্যাপের ব্যবহার দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে আংগিয়াদী, খামা, আদিত্যপাশা, দাওরাইট গ্রামে। এছাড়া উপজেলার বেশিরভাগ গ্রামের কৃষকেরা এ প্রযুক্তির ব্যবহার শুরু করেছে। উপজেলার সকল কৃষক যাতে এই প্রযুক্তির ব্যবহার করে সে জন্য মাঠ পর্যায়ে কৃষকদেরকে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর