কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


স্বাধীনতার পর এই প্রথম মন্ত্রীত্বের অপেক্ষায় কিশোরগঞ্জ


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৮ জানুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার, ১:৩১ | এক্সক্লুসিভ 


বৃহত্তর ফরিদপুরের গোপালগঞ্জের পর আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় দুর্গ নামে পরিচিত বৃহত্তর ময়মনসিংহের কিশোরগঞ্জ। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে গত ১৮ই ডিসেম্বর সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সমর্থনে ভিডিও কনফারেন্সে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা তাঁর বক্তৃতায়ও কিশোরগঞ্জকে নৌকার ঘাঁটি হিসেবে উল্লেখ করেন।

বক্তৃতায় আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেছিলেন, “কিশোরগঞ্জ সব সময় নৌকার জায়গা। কাজেই এখানে নৌকার ‘বাইয়া যাও’, এটা বেয়ে যেতে হবে। এখানে আমাদের পাঁচজন আর জাতীয় পার্টির একজন। জাতীয় পার্টি যেহেতু মহাজোটে আছে, তাকে আমরা নমিনেশন দিয়েছি। কাজেই সবগুলো সিট যেন আমরা পাই।”

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরো বলেছিলেন, “এটা আওয়ামী লীগের ঘাঁটি। নৌকার ঘাঁটি হিসেবেই থাকবে, এটা আমি চাই।” আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার এই প্রত্যাশাকে সম্মান জানিয়ে ছয়টি আসনই তাঁকে উপহার দিয়েছেন কিশোরগঞ্জবাসী।

এরই মাঝে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেয়ার আগেই সবাইকে শোকের সাগরে ভাসিয়ে চিরবিদায় নিয়েছেন কিশোরগঞ্জ-১ (কিশোরগঞ্জ সদর-হোসেনপুর) আসনের টানা পাঁচবারের সংসদ সদস্য কিশোরগঞ্জবাসীর অহংকার সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

রোববার (৬ জানুয়ারি) প্রিয় নেতাকে শেষ বিদায় জানাতে শোক মিছিলের শহরে পরিণত হয়েছিল কিশোরগঞ্জ। লাখো মানুষের অকৃত্রিম শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে দুপুরে অন্তিম যাত্রায় কিশোরগঞ্জ ছাড়েন শুদ্ধ রাজনীতির এই মানুষটি। অনভূতির এমন চিরপ্রস্থানে কিশোরগঞ্জবাসী যখন শোকে মুহ্যমান, তখনই আসে খবরটি। স্বাধীনতার ৪৭ বছর পর এই প্রথম মন্ত্রিপরিষদে নেই কিশোরগঞ্জ জেলার কেউ। এ যেন শোকের উপর আরেকটি শোক।

রোববার (৬ জানুয়ারি) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মন্ত্রিসভায় স্থান পাওয়াদের তালিকা প্রকাশ করা হয়। কিন্তু, এই তালিকায় জায়গা হয়নি কিশোরগঞ্জের কারো। তবে এখনও অনেক মন্ত্রণালয় খালি রাখায় কিশোরগঞ্জবাসীর আশা উবে যায়নি। তারা আশায় বুক বেঁধে রয়েছেন, হয়তো ভবিষ্যতে সেগুলো থেকে কিশোরগঞ্জকে মন্ত্রীত্ব দিতে পারেন প্রধানমন্ত্রী। নিশ্চয়ই বঙ্গবন্ধু কন্যা কিশোরগঞ্জবাসীকে হতাশ করবেন না।

রাজনীতি সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এবারের মন্ত্রিসভায় কিশোরগঞ্জের কাউকে না রাখা হতাশার বিষয়। স্বাধীনতার পর এই প্রথম কোন মন্ত্রিসভায় কিশোরগঞ্জের প্রতিনিধিত্ব নেই। এটা মানতে জেলাবাসীর কষ্ট হচ্ছে। তবে কারো কারো আশা, বঙ্গবন্ধু কন্যা এই বিষয়টি বিবেচনায় রাখবেন।

আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি যেই সরকারই হোক, মন্ত্রিসভায় কখনো উপেক্ষিত হয়নি কিশোরগঞ্জ। কিশোরগঞ্জে মন্ত্রিত্বের স্বর্ণযুগ শুরু শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের হাত ধরে। বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দেয়া সৈয়দ নজরুল ইসলাম ১৯৭২ সালের ১২ই জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নতুন মন্ত্রিসভা গঠিত হলে শিল্প মন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেন। সেই শুরুর পর মন্ত্রীত্বের দরজা আর কখনো বন্ধ হয়নি কিশোরগঞ্জের জন্য।

১৯৭৩ সালের প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বঙ্গবন্ধু সরকারের মন্ত্রিসভায় কিশোরগঞ্জ জেলা দু’টি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় পায়। হোসেনপুর ও পাকুন্দিয়া নিয়ে গঠিত ময়মনসিংহ-২৬ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামান খান পাট মন্ত্রী এবং কটিয়াদী থানা নিয়ে গঠিত ময়মনসিংহ-২৭ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মনোরঞ্জন ধর আইন, সংসদ ও বিচার বিষয়ক মন্ত্রীর দায়িত্ব লাভ করেন।

১৯৭৫ সালে খন্দকার মোস্তাক আহমদ এর মন্ত্রিসভায় আসাদুজ্জামান খান বন্দর, নৌবাহিনী এবং অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন মন্ত্রী ছিলেন।

১৯৭৯ সালের দ্বিতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর জিয়াউর রহমানের মন্ত্রিসভায়ও কিশোরগঞ্জ মন্ত্রীত্বের স্বাদ পায়। কিশোরগঞ্জ সদর আসনের সংসদ সদস্য ডা. আবু আহম্মদ ফজলুল করিম পান স্বাস্থ্য, ক্রীড়া, সংস্কৃতি এবং গৃণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব।

১৯৮৬ সালের তৃতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর এরশাদের মন্ত্রিসভায়ও কিশোরগঞ্জের প্রতিনিধিত্ব অটুট থাকে। এরশাদ সরকারের অর্থ উপদেষ্টা এম সাইদুজ্জামান পান অর্থ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব। এছাড়া করিমগঞ্জ-তাড়াইল নিয়ে গঠিত তৎকালীন কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য মো. মুজিবুল হক চুন্নু ভূমি মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী হিসেবে মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পান।

১৯৮৮ সালের চতুর্থ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর এরশাদের মন্ত্রিসভায় কিশোরগঞ্জ থেকে ঠাঁই পান বিচারপতি হাবিবুল ইসলাম ভূঞা। তিনি আইন, সংসদ ও বিচার বিষয়ক মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৯১ সালের পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বেগম খালেদা জিয়ার মন্ত্রিসভায়ও প্রতিনিধিত্ব করে কিশোরগঞ্জ। হোসেনপুর ও পাকুন্দিয়া নিয়ে গঠিত তৎকালীন কিশোরগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য এ,বি,এম জাহিদুল হক নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী হিসেবে মন্ত্রিসভায় ঠাঁই পান।

১৯৯৬ সালের ১২ই জুন অনুষ্ঠিত সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার মন্ত্রিসভায় কিশোরগঞ্জ থেকে দুইজন প্রতিনিধিত্ব করেন। তাঁদের মধ্যে প্রয়াত প্রেসিডেন্ট মো. জিল্লুর রহমান এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী এবং প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বেসরকারি বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

২০০১ সালের অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বেগম খালেদা জিয়ার মন্ত্রিসভায় কিশোরগঞ্জ থেকে ঠাঁই পান ড. এম ওসমান ফারুক। করিমগঞ্জ-তাড়াইল নিয়ে গঠিত তৎকালীন কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য ড. এম ওসমান ফারুক শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জেলার ৬টি আসনের সবকটিতেই বিজয়ী হয় আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট। এর মধ্যে ৫টি আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা এবং ১টি আসনে মহাজোটের অংশীদার জাতীয় পার্টির প্রার্থী নির্বাচিত হন। নির্বাচিত আওয়ামী লীগের পাঁচ সংসদ সদস্যের মধ্যে মো. জিল্লুর রহমান প্রেসিডেন্ট, মো. আবদুল হামিদ অ্যাডভোকেট স্পিকার এবং সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এলজিআরডি মন্ত্রীর দায়িত্ব লাভ করেন। পরবর্তীতে প্রেসিডেন্ট মো. জিল্লুর রহমানের মৃত্যুর পর স্পিকার মো. আবদুল হামিদ প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন।

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্যের বাইরে এ জেলার একমাত্র জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মো. মুজিবুল হক চুন্নু নির্বাচনকালীন মন্ত্রিসভায় যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোটের মন্ত্রিসভায় কিশোরগঞ্জ থেকে দুইজন প্রতিনিধিত্ব করেন। তাঁদের মধ্যে প্রয়াত সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ২০১৫ সালের ৯ই জুলাই পর্যন্ত এলজিআরডি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও এক সপ্তাহ দপ্তরবিহীন মন্ত্রী থাকার পর ১৬ই জুলাই থেকে জনপ্রশাসন মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করে গত ৩রা জানুয়ারি চিরবিদায় নেন। এছাড়া মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মো. মুজিবুল হক চুন্নু শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর