কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মা করেন ‘ঝি' এর কাজ, শারীরিক প্রতিবন্ধী ছেলে পড়ে কলেজে, হতে চায় শিক্ষক


 আমিনুল ইসলাম বাবুল | ২৯ আগস্ট ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১২:২৪ | সম্পাদকের বাছাই  


জন্ম থেকে শারীরিক প্রতিবন্ধী ‘আনিস’। কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলার ধলা ইউনিয়নের সেকান্দরনগর (চরপাড়া) গ্রামের বাসিন্দা। বাবা গোলাপ আলী ছিলেন একজন দিনমজুর। আর মা ঝর্ণা আক্তার। তিনি অন্যের বাড়ি ‘ঝি’ এর কাজ করেন। বাবা গোলাপ আলী দশ বছর আগে মারা গেছেন। জমি বলতে গোলাপ আলীর নিজের কিছুই ছিল না। আনিস তাঁর মাকে নিয়ে চাচার বাড়িতে ছোট্ট একটি ঘরে বসবাস করে। মা ঝর্ণা আক্তার অন্যের বাড়ি-বাড়ি গিয়ে ‘ঝি’ এর কাজ করে মা-ছেলে দু’জনের খাবার জোগান।

তিন ভাই-বোনের মধ্যে আনিস মেঝো। বড় বোন চায়না আক্তার পিতা গোলাপ আলীর জীবদ্দশাতেই বিয়ে দিয়ে ছিলেন। বাবা’র মৃত্যুর পর ছোট বোন তানিয়াকে মা ঝর্ণা আক্তার স্থানীয় বাসিন্দাদের সাহায্য-সহযোগিতায় বিয়ে দেন। অভাব অনটনের মধ্যদিয়ে স্বামী সংসার নিয়ে দু’বোনের দিন কাটছে।

দু'হাতে দু'টি বাঁশের লাঠিতে ভর দিয়ে হেঁটে চলে আনিস। তাঁর ‘পা’ দুটো এদিক-ওদিক বাঁকানো। চলার পথে সহপাঠিরা এগিয়ে যায় সামনে। তাঁদের পিছনে-পিছনে বাঁশের লাঠিতে ভর করে নিজের গতিতে হেঁটে চলে আনিস। গন্তব্য তাড়াইল মুক্তিযোদ্ধা সরকারি কলেজ। এই কলেজে উচ্চ মাধ্যমিক প্রথম বর্ষে পড়ছে আনিস। এই এতো দূর আসা মোটেই সহজ ছিলো না আনিসের।

কথা বলে জানা গেলো, বাড়ির পাশের সমবয়সী শিশুরা যখন বই-খাতা হাতে নিয়ে স্কুলে যায় আনিস তখন মা ঝর্ণা আক্তারের কাছে স্কুলে যাওয়ার আবদার করে। ছেলের আগ্রহ দেখে মা ঝর্ণা আক্তার আনিসকে ভর্তি করালেন বাড়ির পাশেই সেকান্দরনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। স্কুলের শিক্ষক ও এলাকাবাসির সহযোগিতায় আনিস পঞ্চম শ্রেণি পাশ করে। বাবা নাই, অভাবের সংসার। মা ঝর্ণা আক্তার অন্যের বাড়ি ঘুরে-ঘুরে ‘ঝি' এর কাজ করেন। টাকা-পয়সার অভাবে আনিসের লেখাপড়া বন্ধ করে দিতে চেয়েছিলেন মা ঝর্ণা আক্তার।

কিন্তু মেধাবী আনিসের লেখাপড়ার প্রতি প্রচণ্ড আগ্রহ। ছেলের আগ্রহ দেখে মা তাঁকে ভর্তি করালেন তাড়াইল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে (বর্তমান তাড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়)। বাড়ি থেকে স্কুলের দুরত্ব তিন কিলোমিটার। রিকশা বা অটোরিকশায় প্রতিদিন স্কুলে যাওয়া-আসার ভাড়া দেওয়ার মতো সামর্থ ছিল না মা ঝর্ণা আক্তারের। জন্ম থেকে প্রতিবন্ধী আনিস স্কুলে আসা-যাওয়ার জন্য তাঁর দু'হাতে তুলে নেয় বাঁশের দু’টি লাঠি।

প্রতিদিন সকাল ৯টায় বাড়ি থেকে বেরিয়ে দু'হাতে দু'টি বাঁশের লাঠিতে ভর দিয়ে হেঁটে-হেঁটে আনিস স্কুলে আসতো। আবার ছুটির পর একইভাবে বাড়ি ফিরতো। টিফিনের সময় মাঝে মধ্যে পাঁচ টাকার ঝালমুড়ি খেতো। আর যেদিন তার কাছে টাকা না থাকতো সহপাঠিদের অগোচরে স্কুলের টিউবওয়েলের পানি খেয়ে পেটের ক্ষিধে নিবারণ করতো আনিস।

স্কুল থেকে সরকারি বই পেলেও খাতা-কলম কেনার পয়সা জুটতো না প্রায় সময়ই। সহপাঠিদের দেয়া খাতা কলমেই ভরসা করতে হতো আনিসকে। স্কুলের শিক্ষকগণ লেখাপড়ার প্রতি আগ্রহ দেখে আনিসকে তাঁরা ‘ফ্রি’ কোচিং করান। জন্ম থেকে প্রতিবন্ধী ‘আনিস’ তাড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় হতে ২০১৯ সালে এসএসসি পরীক্ষায় ‘বাণিজ্য শাখা’ থেকে জিপিএ- ৩.১৭ পেয়ে পাশ করে করে। পরে তাড়াইল মুক্তিযোদ্ধা সরকারি কলেজে উচ্চ মাধ্যমিকে বাণিজ্য শাখায় ভর্তি হয় আনিস।

আনিসের বাড়ি থেকে কলেজের দূরত্ব চার কিলোমিটার। প্রতিদিনের মতো বুধবার (২৮ আগস্ট) কলেজে কাস করে হেঁটে-হেঁটে বাড়ি যাচ্ছিলেন আনিস। তাঁর সাথে মা ঝর্ণা আক্তার। তাড়াইল সরকারি কলেজের নির্ধারিত পোষাক পরিহিত অবস্থায় আনিসের সাথে কথা হয়। আনিস জানায়, ‘আমি (আনিস) তাড়াইল মুক্তিযোদ্ধা সরকারি কলেজের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী।’ এমন উত্তর পেয়ে আনিসের সাথে কথা বলার আগ্রহ বেড়ে যায়। অতি সাধারণ পোষাকে আনিসের সাথে একজনকে দেখতে পেয়ে আবারও আগ্রহ জাগে ‘তিনি’ কে? উত্তরে আনিস বলে, আমার ‘মা’ ঝর্ণা আক্তার।

ঝর্ণা আক্তার জানান, ছেলে আনিসের সাথে প্রায়ই কলেজে আসেন তিনি। আনিসকে একা-একা ছাড়তে ভয় করে।  ছেলে যতক্ষণ ক্লাস করে, তিনি কলেজ গেইটে অপেক্ষায় থাকেন। তিনি আরো বলেন, কলেজের খরচ, বইখাতা কিনে দিতে পারবো না বলে লেখাপড়া বাদ দিতে বলে ছিলাম। কিন্তু, ছেলে কিছুতে-ই রাজি হয় না। অভাবের সংসারে আনিসের বইগুলি কি-ভা-বে কিনে দেবেন তা ভেবে দুশ্চিন্তায় ভেঙ্গে পড়েন মা ঝর্ণা আক্তার।

জন্ম থেকে শারীরিক প্রতিবন্ধী ‘আনিস’ জানায়, “ভবিষ্যতে একজন আদর্শ ও নীতিবান শিক্ষক হওয়ার স্বপ্ন দেখছি আমি। আমার সকল শিক্ষকগণ আমাকে খু-ব-ই আদর করেন। শিক্ষকতার মতো মহান পেশায় আমি নিজেকে আত্মনিয়োগ করতে চাই।” আনিস আরো জানায়, টাকার অভাবে বই কিনতে না পারলেও এরই মধ্যে আমার শিক্ষক কাবেরি পাল চৌধুরী ও মো. মোতাহার হোসেন স্যার আমাকে অর্থনীতি এবং মার্কেটিং দু’টি বই দিয়েছেন।

এই মুহুর্তে আপনার জরুরি কি প্রয়োজন এমন প্রশ্নে আনিস জানান, “এক জোড়া ক্র্যাচ হলে চলাফেরায় স্বাচ্ছন্দবোধ করতাম। আর, বাকী বই খাতা হলে আমার আর কিছু চাই না।” এভাবে হেঁটে-হেঁটে কলেজে আসা-যাওয়ায় কষ্ট হয় না? জানতে চাইলে আনিস দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে বলে- ‘কষ্ট হয় ঠিক-ই  হ-য়। কিন্তু, পড়ালেখা তো করতে পারছি।’ অবসর সময় সম্পর্কে জানতে চাইলে আনিস জানায়, বিকালে খেলার মাঠে সহপাঠিদের খেলা দেখি আর বই পড়ি। আমি তো তাদের মতো খেলতে পারি না। মাঝে-মধ্যে তাতে আমার খুব-ই কষ্ট হয়।

তাড়াইল মুক্তিযোদ্ধা সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত) ফারুখ উদ্দিন আহমেদ কিশোরগঞ্জ নিউজকে বলেন, শারীরিক প্রতিবন্ধী ‘আনিস’ কলেজের নিয়মিত শিক্ষার্থী। সে লেখাপড়ার প্রতি খুবই আগ্রহী এবং নিয়মিত প্রতিটি ক্লাসে যোগদান করে। বিধিমোতাবেক কলেজ থেকে আনিসকে সহযোগিতা করা হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর