কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বারী সিদ্দিকী চলে যাওয়ার দুই বছর আজ


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ২৪ নভেম্বর ২০১৯, রবিবার, ২:০৬ | রকমারি 


খ্যাতিমান সংগীত শিল্পী, গীতিকার ও বংশী বাদক বারী সিদ্দিকীর দ্বিতীয় মৃত্যুবার্ষিকী আজ রোববার (২৪ নভেম্বর)। ২০১৭ সালের ২৪ নভেম্বর রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। ৬৩ বছরের জীবনে এই গুণী শিল্পী অসংখ্য শ্রোতাপ্রিয় গান উপহার দিয়ে গেছেন। সেইসব গান আজও মানুষের মুখে মুখে ফেরে।

লোক ও মরমী ধারার গায়ক বারী সিদ্দিকী ১৯৫৪ সালের ১৫ নভেম্বর নেত্রকোনায় জন্ম গ্রহণ করেন।  বাবা প্রয়াত মহরম আলী ও মা প্রয়াত জহুর-উন-নিসা। তিন ভাই এক বোনের মধ্যে বারী সিদ্দিকীই ছিলেন সবার ছোট। ছোটবেলায় বয়স যখন তিন কিংবা চার হবে সেই বয়সেই মা’র কাছে তার প্রথম শুনা গান ছিলো ‘শ্বাশুড়িরেও কইয়ো গিয়া’।

সেই গানের সুরই বারী’র মনে গেঁথে যায় ছোটবেলায়। শৈশবে পরিবারের কাছেই গান শেখায় হাতেখড়ি। বারীর বয়স যখন পাঁচ তখন বড় ভাইয়ের বাঁশিতে ফু দেয়া তার মধ্যে অন্যরকম আগ্রহের সৃষ্টি করে বাঁশি শেখার প্রতি। মাত্র ১২ বছর বয়সেই নেত্রকোনার শিল্পী ওস্তাদ গোপাল দত্তের অধীনে আনুষ্ঠানিক প্রশিক্ষণ শুরু হয় তার।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইসলামে ইতিহাসে স্নাতক পাশ করে তিনি জড়িয়ে পড়েন সংগীতের সাথে। তখন প্রথম তিনি নিজেকে বাঁশিবাদক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন। তিনি ওস্তাদ আমিনুর রহমান, দবির খান, পান্নালাল ঘোষসহ অসংখ্য গুণী শিল্পীর সরাসরি সান্নিধ্য লাভ করেন। ক্লাসিক্যাল মিউজিকের ওপরও পড়াশোনা করেন বারী সিদ্দিকী।

দীর্ঘদিন সংগীতের সঙ্গে জড়িত থাকলেও সবার কাছে বারী সিদ্দিকী শিল্পী হিসেবে পরিচিতি পান ১৯৯৯ সালে। ওই বছর হুমায়ূন আহমেদের 'শ্রাবণ মেঘের দিন' ছবিটি মুক্তি পায়। এই ছবিতে তিনি ছয়টি গান গেয়ে ব্যপক সুনাম অর্জন করেন।

তার গাওয়া জনপ্রিয় গানগুলোর মধ্যে রয়েছে 'শুয়াচান পাখি আমি ডাকিতাছি তুমি ঘুমাইছ নাকি', 'পুবালি বাতাসে', 'আমার গায়ে যত দুঃখ সয়', 'ওলো ভাবিজান নাউ বাওয়া', 'মানুষ ধরো মানুষ ভজো'।

এছাড়া চলচ্চিত্রেও প্লেব্যাক করেছেন তিনি। তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনে সংগীত পরিচালক ও মুখ্য বাদ্যযন্ত্রশিল্পী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর