কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে ধান কাটায় জোঁকের উৎপাতে দিশেহারা কৃষক ও শ্রমিক


 মাজহার মান্না | ৭ মে ২০২০, বৃহস্পতিবার, ৬:৪৫ | কৃষি 


কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর ও কটিয়াদী উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের প্রায় ৮ হাজার কৃষক নিচু ধানি জমিতে বোরো ধান কাটার মৌসুমে জোঁকের উৎপাতের শিকার হচ্ছেন। বর্তমানে জোঁকের কামড়ের উপদ্রবে ওইসব এলাকার কৃষকদের ধান কাটা আতঙ্কের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

দিন দিন জোঁকের পরিমাণ ও উৎপাতের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় কৃষক ও কৃষি শ্রমিকের জীবন হুমকির মুখে পড়ছে। এখন পর্যন্ত ওইসব এলাকার মাত্র ২০ ভাগ ধান কাটা  শেষ হয়েছে। বাকী ধান কাটা নিয়ে কৃষকদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

জানা গেছে, প্রতি বছর ধান কাটার মৌসুমে স্থানীয়ভাবে পরিচিত লাদিপুরি বিলের প্রায় ১ হাজার হেক্টর ফসলি জমিতে জোঁকের পরিমাণ ও উৎপাত বেড়ে যায়। শুধু মানুষ নয়, জোঁকের উৎপাত থেকে বাদ যায়নি গরু-বাছুরও।

ফলে বর্তমানে জোঁকের ভয়ে বাজিতপুরের পিরিজপুর ও হালিমপুর ইউনিয়নের এবং কটিয়াদীর চাঁন্দপুর ইউনিয়ন ও পৌর সদরের বোয়ালিয়ার একাংশের বিলের অনেক নিচু জমির কাটা নিয়ে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন কৃষকরা। ইতোমধ্যে এসব এলাকার মাত্র ২০ ভাগ ধান কাটা হয়েছে।

কৃষকদের অভিযোগ, এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের কাছে প্রতিকার চেয়েও কাঙ্ক্ষিত সুফল পাওয়া যায়নি।

তাই বাধ্য হয়ে তারা চলতি মৌসুমে এ থেকে পরিত্রাণে স্থানীয় কৌশল অবলম্বন করেছেন। কৃষকরা ধান কাটার সময় দু’পায়ে লম্বা ধরনের মৌজা পড়ে ধান কাটছেন।

তাতে কিছুটা হলেও নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে পারছেন বলে কৃষিশ্রমিক আবু বক্কর বল্টুসহ অনেকে জানান।

গোথালিয়া গ্রামের মোজাম্মেল হক ভূঁইয়া জানান, গত বছর প্রায় ৭ একর জমিতে ধান করেছিলাম। প্রতি বিঘা (স্থানীয়ভাবে ৩৫ শতাংশে ১ বিঘা ধরে) যেখানে উচু জমিতে ধান কাটাতে শ্রমিকের মজুরি আসে ২ হাজার টাকা, সেখানে বিলের জমিগুলোতে জোঁকের কারণে বিঘা প্রতি ৫ হাজার টাকা শ্রমিককে দিতে হয়েছে।

তাছাড়া টাকা দিয়েও বিলের জমিতে ধান কাটার কথা শুনে ভিন্ন এলাকার কৃষি শ্রমিকরা আসতে চায় না। এ বছর জোঁকের কারণে নিজে ধান করেছি মাত্র ৩ একর জমিতে।

এলাকাবাসী জানান, এ পর্যন্ত অনেক কৃষক জোঁকের কামড়ে আহত হয়েছে। গত বছর গোথালিয়া গ্রামের কৃষক পারভেজ (২৩) ও নিলকি হাপানিয়া গ্রামের সুমন (২০) জমিতে কাজ করতে গিয়ে জোঁকের কামড়ে মারাত্মকভাবে আহত হয়।

তাদের একজনের প্রস্রাবের রাস্তা দিয়ে জোঁক ঢুকে পড়ে। পরে সে দীর্ঘদিন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার পর সুস্থ হয়ে উঠে।

অন্যজন শরীরের উরুতে জোঁকের কামড়ে গুরুতর আহত হয়ে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দীর্ঘদিন চিকিৎসা শেষে বাড়ি ফিরে।

এছাড়া একই গ্রামের কৃষক মানিক মিয়া (৩৫), শ্যামল চন্দ্র সন্ন্যাসী (৪৫), জহরলাল সন্ন্যাসী (৩২), বাবুল মিয়া (৪৬), রাখাল চন্দ্র সন্ন্যাসী (৩৩) জোঁকের কামড়ে অনেকদিন অসুস্থতায় ভুগছিলেন।

বাজিতপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রকিবুল হাসান জানান, জোঁকের উপদ্রবের বিষয়টি অবগতি আছি। এই সমস্যা পরিত্রাণে প্রথমত কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিনে ধান কাটা। এতে করে জোঁকের কোন ভয় না থাকাসহ বিঘা প্রতি খরচও কৃষকের কম হতো। এলাকার কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করলেও মেশিন ক্রয়ে বেশি দাম হওয়ায় হয়তো তারা সেটি ক্রয় করেনি।

দ্বিতীয়ত রাসায়নিকভাবে দমনের জন্য এ্যামুলিয়াম সালফেট অথবা সিরিয়াল নামক একপ্রকার কীটনাশক জোঁকের সংক্রমণ ধান ক্ষেতে দেখা দেয়ার সাথে সাথে অনুমোদিত মাত্রায় ব্যবহার করা।

বিষয়টি নিয়ে উচ্চতর সমাধানে আমাদের গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সাথে কথা বলতে হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর