কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকুন্দিয়ায় দেশীয় হাইব্রিড ধানের বাম্পার ফলনে লাভবান কৃষক


 রাজন সরকার, পাকুন্দিয়া | ১৭ মে ২০২০, রবিবার, ১:৩৭ | পাকুন্দিয়া  


কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় অনুকুল আবহাওয়া আর কৃষি কর্মকর্তাদের সঠিক পরামর্শে ব্রি হাইব্রিড ধান-৫ ও ব্রি হাইব্রিড-৩ ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। প্রাকৃতিক কোন দুর্যোগ না থাকায় বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইন্সটিটিউটের উদ্ভাবিত দেশীয় প্রজাতির হাইব্রিড ধানের বাম্পার ফলনে লাভবান হওয়ায় কৃষকর মুখে হাসি ফুটেছে।

রোববার (১৭ মে) দুপুরে উপজেলার আঙ্গিয়াদী বাগানবাড়িতে আনুষ্ঠানিক ভাবে এ ধান কর্তন করেন উপজেলা কৃষি অফিসার সাইফুল হাসান আলামিন।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে কিশোরগঞ্জ জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার আঙ্গিয়াদী ব্লকে দেশীয় প্রজাতির ব্রি হাইব্রিড ধান-৫ এক বিঘা জমিতে ও ব্রি হাইব্রিড ধান-৩ এক বিঘা জমিতে পরীক্ষামূলক চাষ করা হয়েছে।

ব্রি হাইব্রিড ধান-৫ বোরো মৌসুমের জাত। এর কৌলিক সারি নং বিআর ১৫৮৫ এইচ। জাতটি জাতীয় বীজ বোর্ড কর্তৃক ২০১৬ সালে কৃষকের মাঠে চাষাবাদের জন্য অনুমোদন লাভ করে।

পিতৃ-মাতৃ সারি দেশীয়ভাবে উদ্ভাবিত বিধায় জাতটির রোগ প্রতিরোধ ও বৈরী পরিবেশে খাপ খাওয়ানোর ক্ষমতা বেশী। এই জাতের ধানের অনেক বৈশিষ্ট রয়েছে।

তার মধ্যে গাছের উচ্চতা ১০৫-১১০ সেমি, কান্ড শক্ত বিধায় ঢলে পড়ার সম্ভাবনা নেই, গাছের গোড়া খয়েরী রং এর এবং দানায় কাঁচা অবস্থায় লাল বর্ণের টিপ (Apiculus) বিদ্যমান, স্বাভাবিক অবস্থায় গাছ প্রতি গুচ্ছির সংখ্যা ১২-১৫টি, চালের শর্করার পরিমাণ ২৩.৪%, দানার আকৃতি সরুও লম্বা, চালের প্রোটিনের ৯%, ভাত ঝরঝরে, উভয় মৌসুমে এই জাতটির বীজ উৎপাদন সম্ভব এবং বাণিজ্যিকভাবে লাভজনক।

সরেজমিনে উপজেলার আঙ্গিয়াদী ব্লকের কৃষক মিজানুর রহমান ও শরীফ উদ্দিনের ক্ষেতে গিয়ে তাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, প্রাকৃতিক কোনো দুর্যোগ না থাকায় পরীক্ষামূলক ভাবে এক বিঘা জমিতে ব্রি হাইব্রিড ধান-৫ ও এক বিঘা জমিতে ব্রি হাইব্রিড-৩ ধানের ফলন ভালো হয়েছে।

এই জাতের ধান অন্যান্য জাতের ধানের চেয়ে বিঘা প্রতি ৫/৬মণ বেশি ফলন হয়েছে। ধানের ফলন ভালো হওয়ায় এলাকার অনেক কৃষকও পরবর্তী মৌসুমে এই ধান চাষ করবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

এছাড়াও ধান চাষের শুরু থেকে ফলন ঘরে তোলা পর্যন্ত উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ ভাই তাদের সার্বিক পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করেছেন বলে তারা জানান।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ জানান, আঙ্গিয়াদী ব্লকের কৃষক মিজানুর রহমান ও শরীফ উদ্দিন পরীক্ষামূলক ভাবে দেশীয় প্রজাতির এই ধান চাষ করেছেন। অন্যান্য জাতের ধানের চেয়ে ব্রি হাইব্রিড ধান-৫ এর সর্বোচ্চ ফলন রেকর্ড করা হয়েছে। বিঘা প্রতি এই ধান ৫/৬মণ বেশি ফলন হয়।

এছাড়াও ব্রি হাইব্রিড ধান-৩ এর ফলনও ভালো হয়েছে। বিঘা প্রতি ৪/৫মণ বেশি ফলন হয়। এই কারণেই জাত দুটি সর্বাধিক গ্রহণযোগ্য হবে এবং ফলনের দিকে সকল জাতকে ছাড়িয়ে রেকর্ড গড়বে বলে তিনি মনে করেন।

উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ সাইফুল হাসান আলামিন জানান, বর্তমান কৃষিবান্ধব সরকার কৃষি বিভাগের জন্য ব্যাপক কাজ করে যাচ্ছেন। নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভোবনের জন্য কৃষি বিভাগ নিরলস কাজ করে সফলতা অর্জন করছেন। তারই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ ধান গবেষনা ইন্সটিটিউট দেশীয় প্রজাতির ব্রি হাইব্রিড ধান-৫ ও ব্রি হাইব্রিড ধান-৩ এর বীজ উদ্ভোবন করেছেন।

দেশীয় প্রজাতির এই হাইব্রিড ধান আমার উপজেলার দুইজন কৃষক চাষ করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছেন। তাদের সফলতায় এলাকার আরও অনেক কৃষক এই দেশীয় হাইব্রিড ধানের চাষ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

দেশীয় প্রজাতির এই হাইব্রিড ধানের বীজ সরবরাহ সহজলভ্য করলে কৃষকদের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয়তা আসবে বলে তিনি জানান।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর