কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কটিয়াদীতে বসতঘরে প্রবাসীর স্ত্রীকে গলা কেটে হত্যা


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, কটিয়াদী | ৬ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ১:০০ | কটিয়াদী 


কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে বসতঘরের বারান্দার ছোট কক্ষ থেকে সাবিনা আক্তার (২১) নামে এক গৃহবধূর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার (৬ জানুয়ারি) সকালে কটিয়াদী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের কমরভোগ গ্রামের বসতঘর থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) দিবাগত রাতের কোন এক সময় তার শয়ন কক্ষে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলাকেটে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। বুধবার (৬ জানুয়ারি) সকালে লাশ উদ্ধারের পর সুরতহাল শেষে ময়না তদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এছাড়া শয়ন কক্ষ থেকে রক্তমাখা কম্বল ও বিছানার চাদর জব্দ করেছে পুলিশ।

নিহত সাবিনা আক্তার কটিয়াদী পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের কমরভোগ গ্রামের সৌদি প্রবাসী দ্বীন ইসলামের স্ত্রী এবং একই গ্রামের ফুল মিয়ার মেয়ে।

জানা যায়, মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) রাত অনুমান সাড়ে ১১টার দিকে মা-বাবার বসতঘরের সংযুক্ত বারান্দার ছোট্ট কক্ষে সবিনা আক্তার ঘুমিয়ে ঘুমাতে যান।

বুধবার (৬ জানুয়ারি) ভোরে সাবিনার পিতা ফুল মিয়া নামাজ পড়তে ঘর থেকে বের হয়ে দেখেন, মেয়ের কক্ষের দরজা খোলা। এতে তিনি কিছুটা অবাক হন। কেননা, তার মেয়ে সাধারণত সকাল ৮-৯টা পর্যন্ত ঘুমায়।

কিন্তু ভোরে ঘরের দরজা খোলা দেখে তার বাবা ফুল মিয়া সাবিনা সাবিনা বলে ডাকতে ডাকতে তার কক্ষে প্রবেশ করেন।

মেয়ে উপুড় হয়ে শুয়ে আছে ভেবে তার পায়ে ধরে টান দিতেই রক্তাক্ত বিছানায় মেয়ের নিথর দেহ পড়ে থাকতে দেখে তিনি চিৎকার শুরু করেন। পিতার চিৎকারে আশেপাশের লোকজন ছুটে আসেন।

সংবাদ পেয়ে কটিয়াদী মডেল থানার ওসি এম,এ জলিল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

নিহতের পিতা ফুল মিয়া জানান, তার চার মেয়ের মধ্যে সাবিনা সবার ছোট। অন্য মেয়েদের একটু দূরে দূরে বিয়ে দিয়েছেন।

ছোট মেয়ে সাবিনাকে তার বড় ভাইয়ের ছেলে সৌদি প্রবাসী দ্বীন ইসলামের সাথে ৩ বছর পূর্বে বিয়ে দেন। বড় ভাই ও তার ঘর একই আঙিনায়।

মঙ্গলবার (৫ জানুয়ারি) সাবিনা তার বসতঘরের বারান্দার ছোট কক্ষে ঘুমিয়ে ছিল। তার মেয়েকে কে বা কারা হত্যা করেছে তা খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

নিহতের মা মদিনা বেগম বলেন, বিয়ের পর সাবিনার স্বামী বিদেশ চলে যায়। মেয়েকে স্বাবলম্বী করার জন্য তিনি সেলাই কাজের প্রশিক্ষণ নিতে বলেন। মেয়েও আগ্রহ নিয়ে সেলাই কাজ শিখে।

ইদানিং সে বাড়ির আশেপাশের ছোট বাচ্চা ছেলে মেয়েদের জামা কাপড় সেলাইয়ের কাজ শুরু করে। গত রাতেও সে কিছু সেলাই কাজ করে রাত ১১টার দিকে তাকে সাথে নিয়ে টয়লেট সেরে তার কক্ষে গিয়ে দরজা বন্ধ করে ঘুমিয়ে থাকে।

তবে কে বা কারা কিভাবে দরজা খোলেছে তা বুঝে উঠতে পারছেন না। তিনি ধারণা করছেন, টয়লেটে যাওয়ার পর কেউ ধারালো অস্ত্র নিয়ে চুপিসারে তার কক্ষে লুকিয়েছিল।

সবাই ঘুমিয়ে পড়লে গভীর রাতে মেয়েকে হত্যা করে তার ব্যবহৃত দেড় ভরি ওজনের গলা, নাক, কানের স্বর্ণালংকার ও মোবাইল ফোন নিয়ে যায়।

কটিয়াদী মডেল থানার ওসি এম,এ জলিল বলেন, নিহতের মোবাইল ফোনের সর্বশেষ কল লিস্টের তথ্য উদঘাটন করলে হয়তো প্রকৃত রহস্য বের হয়ে আসবে। নিহত সাবিনা নিজেই দরজা খুলেছিল না কি কোন দুর্বৃত্ত পূর্বে থেকে পরিকল্পিতভাবে এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তা খতিয়ে দেখে প্রকৃত অপরাধীকে সনাক্ত ও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। এছাড়া মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর