কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

কিশোরগঞ্জে আট বছরে বজ্রপাতে ১২০জনের প্রাণহানি


 সিম্মী আহাম্মেদ, সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৪ মে ২০১৮, শুক্রবার, ৬:০১ | এক্সক্লুসিভ 


কিশোরগঞ্জে ২০১১ সাল থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত গত সাত বছরে বজ্রপাতে ১০৮ জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া চলতি বছরের ৩রা মে পর্যন্ত বজ্রপাতে আরো ১২ জনের প্রাণহানির ঘটেছে। এই আট বছরে মোট ১২০ জনের প্রাণহানি ছাড়াও অন্তত সহস্রাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ নিউজ-এর নিজস্ব অনুসন্ধান ও গবেষণায় সুনির্দিষ্ট তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে এই পরিসংখ্যান পাওয়া গেছে। তবে হতাহতের এই সংখ্যা আরো বেশি বলে ধারণা করা হচ্ছে। হাওর অধ্যুষিত এই জেলায় বৃষ্টির সঙ্গে নিয়মিত বজ্রপাতে এই হতাহতের ঘটনায় জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

উপজেলাওয়ারি হিসেবে দেখা গেছে, জেলার মধ্যে বজ্রপাতে সবচেয়ে বেশি প্রাণহানির ঘটনা ঘটে ইটনা উপজেলায়। ২০১১ সাল থেকে এই পর্যন্ত ইটনায় উপজেলায় বজ্রপাতে মোট ২৪জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। এরপরে রয়েছে নিকলী উপজেলা। নিকলী উপজেলায় প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে ১৯জনের। এরপরে মিঠামইন উপজেলায় বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন ১৫জন। অষ্টগ্রাম উপজেলায় ১৪জন। করিমগঞ্জ উপজেলায় নিহত হয়েছেন ১০জন, বাজিতপুর উপজেলায় নিহত হয়েছেন ৯জন, তাড়াইল উপজেলায় মারা গেছেন ৭জন। কটিয়াদী উপজেলায় প্রাণহানি হয়েছে ছয় জনের। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় বজ্রপাতে মারা গেছেন পাঁচ জন। পাকুন্দিয়া উপজেলায় মারা গেছেন চারজন। হোসেনপুর উপজেলায় বজ্রপাতে মৃত্যু হয়েছে তিনজনের। কুলিয়ারচর ও ভৈরব উপজেলায় দুইজন করে মোট চারজন বজ্রপাতে মারা গেছেন।

এদিকে ক্রমাগত বজ্রপাতের ঘটনা বাড়তে থাকায় ২০১৬ সালের ১৭ই মে বজ্রপাতকে ‘দুর্যোগ’ হিসেবে ঘোষণা দেয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। বজ্রপাতে নিহতের পরিবার ও আহতদের সরকারিভাবে অনুদান সহায়তাও দেয়া হচ্ছে।

কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) তরফদার মো. আক্তার জামীল জানান, বজ্রপাতে কোন নিহতের খবর পাওয়া গেলে তাৎক্ষণিক সংশ্লিষ্ট উপজেলা প্রশাসন নিহতের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে অনুদান দিচ্ছে। এছাড়া বজ্রপাত থেকে রক্ষায় গণসচেতনতামূলক কর্মসূচি হিসেবে এক মাস আগে থেকে মাইকিং করে প্রচারণা, লিফলেট বিতরণ, মসজিদে আলোচনা ও গ্রামে গ্রামে উঠান বৈঠক করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় বজ্রপাত প্রতিরোধ কর্মসূচির আওতায় এ জেলায় ইতোমধ্যে ১৬ হাজার ১৫০টি তালগাছের চারা লাগানো হয়েছে এবং এ বছর আরো লাগানো হবে বলেও তরফদার মো. আক্তার জামীল জানান।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ