www.kishoreganjnews.com

করিমগঞ্জে ১৩৮ বস্তা সরকারি চাল আটক



[ স্টাফ রিপোর্টার | ১৫ নভেম্বর ২০১৭, বুধবার, ১২:৪৮ | কিশোরগঞ্জ ]


করিমগঞ্জে ১৩৮ বস্তা ‘সরকারি চাল’ পাচারকালে জব্দ করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে উপজেলার গুণধর ইউনিয়ন পরিষদের সামনে থেকে টমটমযোগে চালগুলো পাচারকালে এসব জব্দ করা হয়। বুধবার সকালে জব্দ করা এসব চাল করিমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মাহমুদা’র উপস্থিতিতে গণনা করে থানা হেফাজতে রাখা হয়। পরে এ ঘটনায় করিমগঞ্জ থানার এসআই মাসুদ আনোয়ার আকন্দ বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন। বিপুল পরিমাণ এই সরকারি চাল জব্দ হওয়ার ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় চলছে।

পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার রাতে উপজেলার গুণধর ইউনিয়ন পরিষদ এলাকা থেকে বিপুল পরিমাণ সরকারি চাল পাচার করা হচ্ছে, এই খবর পেয়ে করিমগঞ্জ থানার এসআই মাসুদ আনোয়ার আকন্দ সেখানে ছুটে যান। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে টমটমবোঝাই চাল ফেলে টমটম চালক ও পাচারকারীরা পালিয়ে যায়। পুলিশ টমটমবোঝাই চাল আটক করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মাহমুদা’কে বিষয়টি অবহিত করলে ইউএনও মাহমুদা ও ভারপ্রাপ্ত উপজেলা চেয়ারম্যান আমজাদ হোসেন খান দিদার রাতেই ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এ সময় বিপুল সংখ্যক এলাকাবাসী ইউনিয়ন কমপ্লেক্স এলাকায় ভীড় জমান।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর গুণধর ইউপি কমপ্লেক্স সংলগ্ন চেয়ারম্যান মো. নাজমুল সাকির নূরু শিকদারের দূরসম্পর্কের চাচা সালেক মিয়ার বাড়িতে মজুত করা চালের বস্তা পাচারের জন্য টমটমে তোলা হয়। কিন্তু টমটমভর্তি করে পাচারের সময় পুলিশ সেখানে উপস্থিত হওয়ায় তা ভেস্তে যায়। বিগত সময়ে নয়ছয় করে এসব চাল ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাজমুল সাকির নূরু শিকদার মজুত করেছেন বলেও সংশ্লিষ্টরা বলছেন। তবে ইউপি চেয়ারম্যান এ বিষয়ে কিছু জানেন না বলে জানিয়েছেন।

একাধিক সূত্র জানিয়েছে, মঙ্গলবার গুণধর ইউনিয়ন পরিষদের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে বিশেষ ভিজিএফের চাল ও নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়। ইউনিয়নের ৬০০ উপকারভোগীর প্রত্যেকের মাঝে সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর এই দুই মাসের বিশেষ ভিজিএফ বরাদ্দের ৩০ কেজি করে ৬০ কেজি চাল এবং পাঁচশ’ টাকা করে এক হাজার টাকা বিতরণ করার কথা ছিল। কিন্তু অনেক উপরকারভোগীর মাঝে ত্রাণের চাল ও নগদ অর্থ বিতরণ না করেই সেগুলো বিতরণ দেখানো হয়। রাতে চাল আটকের খবর পেয়ে ইউএনও মাহমুদা সেখানে গিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের স্টক রেজিস্ট্রার ও মাস্টাররোল খতিয়ে দেখেও মজুত চালের পরিমাণ বেশি পান বলে জানা গেছে। তবে ইউএনও মাহমুদা এসব ব্যাপারে কোন তথ্য দিতে বা কথা বলতে রাজি হননি।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম

সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ

সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার

কিশোরগঞ্জ-২৩০০

মোবাইল: +৮৮০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮

ইমেইল: kishoreganjnews247@gmail.com

©All rights reserve www.kishoreganjnews.com