kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

চৌদ্দমাদল উৎসবের টানে বাঙ্গালপাড়ায় এমপি তৌফিক


 স্টাফ রিপোর্টার | ২২ জানুয়ারি ২০১৮, সোমবার, ১:১৯ | অষ্টগ্রাম 


হাওরের ঐতিহ্যবাহী উৎসব হিসেবে পরিচিত অষ্টগ্রাম উপজেলার বাঙ্গালপাড়ার চৌদ্দমাদল উৎসব। ৮৮ বছর ধরে বাঙ্গালপাড়া চৌদ্দমাদল উৎসব উদযাপিত হয়ে আসছে।

ঐতিহ্যবাহী এই উৎসবের আনন্দ হাওরবাসীর সাথে ভাগাভাগি করে নিতে চৌদ্দমাদল উৎসব পরিদর্শন করেছেন কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক। রোববার দুপুরে তিনি বাঙ্গালপাড়ায় ছুটে যান। সেখানে মেলার বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন ছাড়াও উৎসব উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় যোগ দেন তিনি।

শ্রী শ্রী চৌদ্দমাদল সেবাশ্রম কমিটি আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক উৎসব আয়োজকদের এমন একটি ঐতিহ্যবাহী উৎসব সুন্দর ভাবে আয়োজন করায় ধন্যবাদ জানান। এই উৎসবকে ঘিরে সকল ধর্ম-বর্ণের মিলনমেলাকে হাওর এলাকার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য দৃষ্টান্ত হিসেবে উল্লেখ করে আগামী দিনেও মেলা আয়োজনে সব ধরনের সহায়তা দেয়ার আশ্বাস দেন।

চৌদ্দমাদল উৎসব পরিদর্শনকালে অষ্টগ্রাম উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম জেমস, ভাইসচেয়ারম্যান মানিক কুমার দেব, বাঙ্গালপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান এনামুল হক ভূঁইয়াসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক এমপি’র সঙ্গে ছিলেন।

অষ্টগ্রামের বাঙ্গালপাড়ায় প্রতি বছর মাঘ মাসে উদযাপিত হয় চৌদ্দমাদল উৎসব। মেঘনার তীরে অবস্থিত বাঙ্গালপাড়া গ্রামে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের বড় এই উৎসব ৮৮ বছর ধরে উদযাপিত হয়ে আসছে।

এবারও এই উৎসবকে কেন্দ্র করে সেখানে বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে। এই উৎসবকে কেন্দ্র করে বসে মেলাও। গত বৃহস্পতিবার (১৮ জানুয়ারি) থেকে মহাধুমধামে এই মেলা শুরু হয়।

চৌদ্দমাদল হচ্ছে ১৪টি মৃদুল বা খোল নামক বাদ্যযন্ত্রের সম্মিলন। উৎসবে আসা কীর্তনীয়া দলসমূহ ১৪টি খোল ও ১৪ জোড়া কর্তাল বাজিয়ে এক সঙ্গে কীর্তন পরিবেশন করে।

কথিত আছে, বাঙ্গালপাড়ার চারজন ধর্মপ্রাণ ব্যক্তি এক সময় তীর্থ ভ্রমণে গিয়ে পশ্চিমবঙ্গের নবদ্বীপে চৌদ্দমাদল উৎসবে অংশ নেন। সেখান থেকে ফিরে এসে তারা ১৩৩৭ সালের ৪ মাঘ বাঙ্গালপাড়ায় এ উৎসব শুরু করেন।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মাঘের প্রথম দিন উদ্বোধনের পর টানা তিনদিন চলে পাঠ ও অধিবাস কীর্তন। দু’দিন শ্রীমদ্ভগবদ গীতা পাঠের পর অনুষ্ঠিত হয় অধিবাস কীর্তন। ৪ মাঘ উদযাপিত হয় উৎসবের মূল অনুষ্ঠান। এদিন সকাল থেকে রাত অবধি পূজা, ভোগ, নগর কীর্তন, হরিলুট ও আরতি অনুষ্ঠিত হয় এবং উপস্থিত হাজার হাজার লোকের মধ্যে প্রসাদ বিতরণ করা হয়। বাঙ্গালপাড়ার চারটি স্থায়ী সম্প্রদায় প্রায় প্রতি বছর নগর কীর্তনে অংশ নেয়। এগুলো হচ্ছে নাথহাটির গৌরাঙ্গ সম্প্রদায়, ওসমানপুরের অদ্বৈত সম্প্রদায়, মনোহরপুরের শ্রীনিবাস সম্প্রদায় এবং হরিদাস সম্প্রদায়।

১৪টি খোল ও ১৪ জোড়া কর্তালসমেত চারটি কীর্তনীয়া দলের লীলা কীর্তন পরিবেশনের সময় ভক্তদের আকুল করা কান্নায় চৌদ্দমাদল উৎসব ভিন্ন রূপ ধারণ করে। ৫ মাঘ দিন রাত একনাম কীর্তনে হাজার হাজার ভক্ত অংশ নেন। ৬ মাঘ মহাপ্রসাদ বিতরণ করা হয়। ৭ মাঘ চৌদ্দমাদল উৎসবের সমাপ্তি ঘটে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ