কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

রক্ত নিয়ে মুমূর্ষু রোগিদের পাশে কটিয়াদী রক্তদান সমিতি


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, স্টাফ রিপোর্টার, কটিয়াদী | ৫ জুলাই ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ১:০৫ | স্বাস্থ্য 


কটিয়াদীতে স্বেচ্ছায় রক্ত দিয়ে মূমূর্ষু রোগিদের পাশে দাঁড়াচ্ছেন কটিয়াদী রক্তদান সমিতির সদস্যরা। এলাকায় গর্ভবতী নারীসহ নানা জটিল রোগে আক্রান্ত এবং দুর্ঘটনায় কবলিত রোগীর নিরাপদ রক্তের অভাবে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়া ছিল একটি স্বাভাবিক ঘটনা। এমন অসংখ্য নজির রয়েছে।

দিন দিন এর সংখ্যা যখন বেড়েই চলেছে তখন নিরাপদ রক্তের অভাব মিটাতে উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের ফেকামারা গ্রামের সদ্য স্নাতক (সম্মান) ডিগ্রি লাভ করা তরুণ সংগঠক বদরুল আলম নাঈমের নেতৃত্বে ২০১২ সালে গড়ে উঠেছে কটিয়াদী রক্তদান সমিতি। শুরু করেন একজন সুস্থ ব্যক্তির রক্তদানের বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি, মানবতার কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করার বিষয়ে যুবক-যুবতীদের উদ্বুদ্ধ করণ। তার ডাকে সাড়া দিয়ে জরুরী প্রয়োজনে রক্তের অভাব মিটাতে স্বেচ্ছায় রক্তদানে আগ্রহী এমন সাত শতাধিক যুবক যুবতী ইতিমধ্যে সমিতির সদস্য হয়েছেন। প্রায় প্রতিদিনই কোন না কোন সদস্য মূমূর্ষু রোগিকে স্বেচ্ছায় রক্ত দিতে ছুটে যাচ্ছেন উপজেলা বা জেলা সদরের কোন না কোন হাসপাতালে।

এলাকার অসহায়, হতদরিদ্র মূমুর্ষু রোগির জরুরী রক্তের প্রয়োজনে একমাত্র ভরসাস্থল কটিয়াদী রক্তদান সমিতি। সমিতির জন্মলগ্ন থেকে এ পর্যন্ত ৫শতাধিক রোগীকে স্বেচ্ছায় রক্তদান করেছেন সমিতির সদস্যরা। সমিতির সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধির জন্য প্রায় সময়ই তারা উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ক্যাম্পেইন, বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ পরীক্ষা, গণসচেতনতা মূলক গ্রুপ মিটিং করে রক্তদানে যুব সমাজকে উদ্বুদ্ধ করণ প্রক্রিয়া অব্যাহত রেখেছেন।

এছাড়া সরকারের উন্নয়ন মেলা, বইমেলাসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শতাধিক ব্লাড গ্রুপ ক্যাম্পেইন, গনসচেতনতা মূলক গ্রুপ মিটিং করে এ কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন। ফলে দিন দিন তাদের সদস্য সংখ্যাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তারগণ প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।

কটিয়াদী রক্তদান সমিতির রক্ত মজুদের কোন ব্লাড ব্যাংক নেই। নেই কোন অফিস বা পরীক্ষা নিরীক্ষার যন্ত্রপাতি। সদস্যদের শিরায় শিরায় প্রবাহমান রক্তই তাদের ব্লাড ব্যাংক।

এ ব্যাপারে সমিতির সমন্বয়ক বদরুল আলম নাঈম বলেন, মাদক, সন্ত্রাস, মারামারি, হিংসা বিদ্বেষ পরিহার করে মানুষের কল্যাণে কাজ করতে আগ্রহী এমন সুস্থ এবং সুন্দর মনের যুবক-যুবতীদেরকেই এ সমিতির সদস্য করা হয়। জরুরী রক্তের প্রয়োজনে ফেসবুক আইডি ‘কটিয়াদী রক্তদান সমিতি’তে রক্তের গ্রুপ লিখে বা মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলেই রক্ত দিতে সক্ষম এমন সদস্যদের সন্ধান করে ঠিকানা জানিয়ে দিচ্ছেন আর রক্তদাতা স্বশরীরে গিয়ে হাজির হন রোগির পাশে। রক্ত দিয়ে চলে আসেন নিরবে নিভৃতে। যার কোন বিনিময় নেই। শুধুই মানবতা। তিনি আরও বলেন, আমাদের প্রত্যাশা এলাকার আর কোন আর্তপীড়িতকে রক্তের অভাবে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে হবে না।

সমিতির সদস্য চরপুক্ষিয়া গ্রামের এবি সিদ্দিক বলেন, রক্তদানে যে কি আনন্দ তা ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী একজন সুস্থ মানুষ ৩-৪ মাস পর পর রক্ত দিতে পারে। আমি এ পর্যন্ত ৩/৪ বার রক্ত দিয়েছি।

স্বাস্থ্য বিভাগের সাবেক উপপরিচালক ও সমিতির উপদেষ্টা ডাক্তার আব্দুল মুক্তাদির ভূঞা বলেন, জরুরী প্রয়োজনে অনেক মূমূর্ষু রোগিকে স্বেচ্ছায় রক্ত দিয়ে উপকার করে যাচ্ছে । বিশেষ করে অসহায় হতদরিদ্র গর্ভবতী মায়ের সন্তান প্রসবের সময় প্রয়োজনীয় রক্তের অভাব মিটাতে তারা বিশেষ সহযোগিতা করে আসছে। এতে বহু আর্ত পীড়িত নতুন জীবন লাভ করছে। এ সমিতির কার্যক্রম অব্যাহত থাকলে প্রয়োজনীয় রক্তের অভাব অকাংশে লাঘব হবে।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সমিতির উপদেষ্টা এড. এম.এ আফজল বলেন, এটি একটি মহৎ উদ্যোগ। এ ধরণের রক্তদাতা সমিতি সারা দেশে গড়ে উঠলে জরুরী রক্তের অভাব আর থাকবে না। সারা দেশের যুব সমাজকে এগিয়ে আসার আহবান জানাই।

উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহাব আইন উদ্দিন বলেন, কটিয়াদী রক্তদান সমিতি স্বেচ্ছায় রক্তদান করে আর্তমানবতায় সেবা করে যাচ্ছে। এমন মহতি কাজে যুব সমাজের আরও বেশী বেশী অংশগ্রহণ দেশ ও জাতির মঙ্গল বয়ে আনবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ