কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

কিশোরগঞ্জের ছেলে ‘বাংলার মাসচেরানো’ জামাল ভূঁইয়ার গোলে কাতারকে হারিয়ে ইতিহাস বাংলাদেশের


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২০ আগস্ট ২০১৮, সোমবার, ৩:৩৬ | এক্সক্লুসিভ 


বাংলাদেশের সমর্থকেরা ভালোবেসে তাঁর নাম দিয়েছেন ‘বাংলার মাসচেরানো’। তার পায়ের সুনিপুণ কারুকাজে ফুটবলে এবার নতুন ইতিহাস রচনা করলো বাংলাদেশ। মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম ফুটবল শক্তিধর দেশ ২০২২ বিশ্বকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজক কাতারকে হারিয়ে এশিয়ান গেমসের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো শেষ ষোলোতে জায়গা করে নিয়েছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ ফুটবল দল।

রোববার (১৯ আগস্ট) অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে লাল-সবুজের দল জিতেছে ১-০ গোলে। আর একমাত্র গোলটিই এসেছে ‘বাংলার মাসচেরানো’ জামাল ভূঁইয়ার পা থেকে। প্রায় একক প্রচেষ্টায় কাতারের রক্ষণভাগের খেলোয়াড়দের বোকা বানিয়ে তিনি বল জালে ঠেলে দেন।

বাংলাদেশের ঐতিহাসিক এই জয়ের নায়ক কিশোরগঞ্জের ছেলে জামাল ভূঁইয়ার জন্ম বাবার কাজের সূত্রে ডেনমার্কের রাজধানী কোপেনহেগেনে। তার বাবার নাম ইনসান ভূঁইয়া ও মায়ের নাম রাজিয়া আক্তার। কিশোরগঞ্জ শহরের আলোরমেলা এলাকার বাসিন্দা ইনসান ভূঁইয়ার পূর্বসূরীদের বাস ময়মনসিংহ জেলার নান্দাইল উপজেলার মুশুলী চংভাদেরা গ্রামে। ইনসান ভূঁইয়া সপরিবারে ডেনমার্কে থাকেন। সেখানেই শৈশব, কৈশোর কেটেছে জামাল ভূঁইয়ার।

১৯৯০ সালে জন্ম নেওয়া জামাল ভূঁইয়ার বাবা-মার স্বপ্ন ছিল ছেলে আইনজীবী কিংবা ডাক্তার হবে। কিন্তু শৈশব মনেই স্থির করে নিয়েছিলেন ফুটবলার হবেন। হয়ে গিয়েছেন ফুটবলার। তবে বাংলাদেশের জাতীয় দলের হয়ে খেলবেন, এটা হয়তো ভাবেননি। ডেনমার্ক জাতীয় দলে খেলতে না পারলেও খেলতে পারতেন ইউরোপের বড় কোনো টিমে। কোপেনহেগেনের মতো দলে অনূর্ধ্ব ১৯ লেভেলে খেলেছিলেন। হতে পারত আরো বড় কোনো জায়ান্ট ক্লাবে খেলার সৌভাগ্য হয়তো।

কিন্তু তার শরীরে যে ছিল বাঙালির রক্ত। লাল-সবুজের জার্সি গয়ে খেলার স্বপ্ন  নিয়ে ২০১২ সালে ঢাকায় আসেন জামাল ভূইয়া। ২০১৩ সালের সাফ ফুটবলে নেপালের বিপক্ষে অভিষেক হয় তার। সেই থেকে জাতীয় দলে খেলছেন নিয়মিত। খেলে চলেছেন ক্লাব ফুটবলে। টানা দুই মৌসুম শেখ জামালের হয়ে খেলার পর খেলেছেন শেখ রাসেলে। এবার জামাল ভূইয়া আর্মব্যান্ড তুলে নিয়েছেন নবাগত সাইফ স্পোটিংয়ের। তার নেতৃত্বেই এবারের এশিয়ান গেমসে লাল-সবুজের দল তিন ম্যাচে এক জয়, এক ড্র  এবং এক হারে ৪ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ রানার্সআপ হয়ে এশিয়ান গেমসের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো নকআউট পর্বে নিশ্চিত করেছে।

লোডভিক ডি ক্রুইফের হাত ধরে ২০১৩ সালে জাতীয় দলে স্থান পাওয়া বাংলাদেশে তার ফুটবল যাত্রার কথা জানাতে গিয়ে বলেন, “স্থানীয় কোচ সাইফুল বারী টিটুর সঙ্গে আমার প্রথম যোগাযোগ হয়। তিনি আমার ভিডিও দেখে ঢাকায় আসতে বলেন। ঢাকায় প্রথম প্রথম আমার খুব কষ্ট হয়েছে। প্রথম ট্রেনিং সেশনে বারবার হাঁপিয়ে যাচ্ছিলাম। বারবার পানি খেয়ে তৃষ্ণা মেটাতে পারছিলাম না। কোচিং স্টাফরা শুরুতে আমাকে দেখে অবাক হয়েছে। তাদের আমি বলতে শুনেছি, এ ছেলে কিভাবে ফুটবল খেলবে! অন্যরাও আমাকে নিয়ে হাসাহাসি করেছে। আস্তে আস্তে আমি সেটা কাটিয়ে উঠেছি। এদেশের খাবার দাবার থেকে শুরু করে সব কিছুর সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছি।”

এমন কঠিন পরিস্থিতির উত্তরণ ঘটিয়ে অবশেষে জাতীয় দলের জার্সি গায়ে ফুটবল খেলার স্বপ্নপূরণ হয় জামাল ভূঁইয়া। ২০১৩ সালের ১ সেপ্টেম্বর নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের উদ্বোধনী ম্যাচে নেপালের বিপক্ষে অভিষেক হয় জামালের। এরপর থেকেই জামাল ভূঁইয়া জাতীয় ফুটবল দলের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হয়ে উঠেন। এর মধ্যে ২০১৪ সালে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে বাংলাদেশ রানার্সআপ হলেও টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার লাভ করে সবার নজর কাড়েন জামাল। ২৮ বছর বয়সী ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার জামাল ভূঁইয়া অনেকের চোখেই জাতীয় দলে সবচেয়ে ধারাবাহিক ফুটবলার।

এশিয়ান গেমসের ফুটবলে এর আগেও বেশ কয়েকটি ম্যাচ জিতেছে বাংলাদেশ। ১৯৮২ সালে মালয়েশিয়া, ১৯৮৬ সালে নেপাল, ২০১৪-তে আফগানিস্তানের বিপক্ষে জয় পায় লাল সুবজের প্রতিনিধিরা। কিন্তু জাকার্তায় রোববার (১৯ আগস্ট) বাংলাদেশ যে জয়টা পেলো সেটির সঙ্গে তুলনা হয় না আগেরগুলোর। গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে শক্তিশালী কাতারের বিপক্ষে ১-০ গোলে জয় কুড়ায় বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দল। এতে প্রথমবারের মতো এশিয়াড ফুটবলের নকআউট পর্বে পৌঁছলো বাংলাদেশ। খেলার একেবারে যোগ করা সময়ে অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়ার গোলে রচিত হয় বাংলাদেশের ফুটবলের নতুন ইতিহাস। নক আউট পর্বে আগামী ২৪ আগস্ট উত্তর কোরিয়ার মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ