কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


তাড়াইলের কৃতি সন্তান সৈয়দ নূর আলমের উদ্যোগে বাংলাদেশে ডিজিটাল স্কুলের যাত্রা শুরু


 সিম্মী আহাম্মেদ, সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, মঙ্গলবার, ৩:১৪ | শিক্ষা  


তাড়াইলের কৃতি সন্তান সৈয়দ নূর আলম এর উদ্যোগে বাংলাদেশে প্রথম ডিজিটাল স্কুলের যাত্রা শুরু হয়েছে। সৈয়দ নূর আলম প্রতিষ্ঠিত শিক্ষাবিষয়ক ডিজিটাল কন্টেন্ট প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ‘টিউটরসইনক’ এর মাধ্যমে নিজ উপজেলা তাড়াইলের কাজলা উচ্চ বিদ্যালয় এবং চট্টগ্রামের স্বনামধন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বাঁশখালীর নাটমুড়া পুকুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় হতে যাচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম ডিজিটাল স্কুল।

সৈয়দ নূর আলম তাড়াইলের সেকান্দরনগর সাহেব বাড়ির সন্তান। তিনি শিক্ষাবিষয়ক ডিজিটাল কন্টেন্ট প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান ‘টিউটরসইনক’ এর চেয়ারম্যান। ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে তিনি দেশের আইটি সেক্টরের উন্নয়নে অবদান রেখে চলেছেন।

‘টিউটরসইনক’ এর মার্কেটিং এডভাইজার সৈয়দ শাকিল আহাদ জানান, বাংলাদেশের প্রথম ‘ডিজিটাল স্কুল’ হিসেবে তাড়াইল উপজেলার কাজলা উচ্চ বিদ্যালয় যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে। ডিজিটাল স্কুল হিসেবে বিদ্যালয়র অষ্টম ও নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা মাল্টিমিডিয়া ট্যাবের মাধ্যমে পাঠগ্রহণের সুবিধা পাবে।

এতে সিলেবাস উপযোগী কাস্টমাইজ ডিজিটাল কন্টেন্ট, ভার্চুয়াল ক্লাস, অডিও এবং টেক্সট ভার্সনসহ বহুবিধ শিক্ষাসহায়ক কন্টেন্ট যুক্ত থাকবে। ফলে শিক্ষার্থীরা খুব সহজেই সিলেবাসের পড়া আত্মস্থ এবং পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এ লক্ষ্যে গত ১৬ই সেপ্টেম্বর ‘টিউটরসইনক’ এর সাথে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের আনুষ্ঠানিক আলোচনা হয়েছে জানিয়ে সৈয়দ শাকিল আহাদ জানান, এ সময় কাজলা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. কামরুজ্জামান, সহকারী শিক্ষক নাজমুল হক ও অন্যান্য শিক্ষকগণ ছাড়াও ‘টিউটরসইনক’ এর চেয়ার‍ম্যান সৈয়দ নূর আলম এবং মরিয়ম আলমসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

সৈয়দ শাকিল আহাদ আরো জানান, অক্টোবর মাস থেকে এই প্রযুক্তি দিয়ে বিদ্যালয়টিতে পাঠদান শুরু হবে। শুরুর দিকে গণিত এবং ইংরেজি এই দুই বিষয়ের উপর এই সুবিধা চালু হবে। একটি প্রজেক্টরের মাধ্যমে পুরো ক্লাস অথবা একটি ট্যাবের সাথে হেডফোনের মাধ্যমে ৩ জন করে পাঠগ্রহণ করতে পারবে। এ প্রযুক্তির উপর প্রশিক্ষণ নিতে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকগণ শিগগির ঢাকা আসবেন বলেও জানান তিনি।

সৈয়দ শাকিল আহাদ জানান, বাংলাদেশের প্রথম ডিজিটাল স্কুল হিসেবে যাত্রা শুরু করা তাড়াইলের কাজলা উচ্চ বিদ্যালয় এবং চট্টগ্রামের বাঁশখালীর নাটমুড়া পুকুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় দু’টির মধ্যে বাঁশখালীর নাটমুড়া পুকুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ইতোমধ্যে এই প্রযুক্তি দিয়ে বিদ্যালয়টিতে পাঠদান শুরু হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, প্রত্যন্ত এলাকার শিক্ষার্থীদের আর্থিক ও সুযোগ সুবিধার অভাবসহ নানা প্রতিকূল পরিস্থিতির কারণে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে পরীক্ষায় ভাল ফলাফল অর্জন করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। ‘ডিজিটাল স্কুল’ এর মাধ্যমে প্রত্যন্ত এলাকার শিক্ষার্থীরা এসব প্রতিকূলতা অনায়াসেই অতিক্রম করে পরীক্ষায় ভাল ফলাফলের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করতে পারবে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর