কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


জন্মস্থানে স্মৃতিকাতর রাষ্ট্রপতি, ফিরে গেলেন শৈশবে

‘এলাকার লোকজন বলতো, হাজী সাহেবের ছেলে একটা পাগল’


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বুধবার, ৭:৫৬ | মিঠামইন 


দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হওয়ায় জন্মস্থান মিঠামইনে বুধবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বিকালে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদকে গণসংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। গণসংবর্ধনায় রাষ্ট্রপতি বক্তৃতা দিতে গিয়ে স্মৃতিকাতর এবং আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন। রাষ্ট্রপতির দেয়া বক্তৃতার প্রায় পুরোটা অংশ জুড়েই ছিল জন্মস্থানকে ঘিরে নানা স্মৃতির কথা।

শৈশবের নানা স্মৃতির কথা বলতে গিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, মিঠামইন আসলে শৈশবের কথা মনে পড়ে। আমি ছোটবেলায় খুব দুষ্টু ছিলাম। বাবার সঙ্গে মিঠামইনে আসতাম। বিভিন্ন হিন্দু বাড়িতে যেতাম। যেখানে পেয়ারা গাছ আছে, সেখানেই হানা দিতাম। এমনকি হিন্দু বাড়িতে গিয়ে রান্নাঘরে পর্যন্ত ঢুকে পড়েছি। এলাকার লোকজন বলতো, হাজী সাহেবের ছেলে একটা পাগল।

শৈশবের কথা খুব বেশি মনে পড়ছে মন্তব্য করে রাষ্ট্রপতি বলেন, আমি বর্ষাকালে সাঁতরিয়ে মিঠামইন বাজার থেকে বাড়িতে গিয়েছি। ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতি শুরু করেছি। ওই সময় প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তাগণ আমাকে নানাভাবে হয়রানি করতো। আমি ছাত্রজীবনে জেলও খেটেছি।

মন-মানসিকতার দিক থেকে তাঁর কোন পরিবর্তন আসেনি উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, সেই ৭০ সাল থেকে বার বার আমাকে আপনারা এমপি নির্বাচিত করছেন। ১৯৭৪ সালের বন্যার সময় দুর্ভিক্ষের মোকাবেলা করেছি। এমপি হয়ে বিরোধী দলের উপনেতা হয়েছি, ডেপুটি স্পিকার হয়েছি, স্পিকার হয়েছি। ২০১৩ সালের মার্চে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি হই। পরবর্তিতে জিল্লুর রহমান সাহেব মারা যাওয়ার পর রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হই। পুনরায় আমাকে দ্বিতীয় বারের মতো রাষ্ট্রপতি করা হয়েছে। আমি দ্বিতীয় বার রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর প্রথমবার এসেছিলাম মা-বাবার কবর জিয়ারত করতে।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, আমি ভুলিনি, আমি যে একজন কৃষক পরিবারের ছেলে। শিকড়কে ভুলে গেলে কেউ মানুষ হতে পারে না। আমার পিতা একজন কৃষক ছিলেন। আমি কোন সময় ক্ষমতার অপব্যবহার করিনি। আমার আত্মীয়স্বজন এখনো অনেক গরিব রয়েছে। রাষ্ট্রপতি হলেই যে চাকরি দিতে হবে, সেটা কোন কথা নয়। আমি সকলকে সমান চোখে দেখি। আপনাদের সন্তান হিসেবে বাংলাদেশকে বিদেশে উর্ধ্বে তোলার চেষ্টা করেছি।

এলাকার দাবি-দাওয়া সম্পর্কে বলতে গিয়ে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, সমস্ত হাওর এলাকায় পাকা রাস্তার করার উদ্যোগ নেব। তিনি বলেন, আগে বিভিন্ন এলাকা থেকে ধান কাটার শ্রমিকেরা আমাদের এলাকায় আসতো। কিন্তু এখন আর নেই। নেই কোন পাল তোলা নৌকা। শ্রমিক আসে না বলে কৃষিকাজ তো আর থেকে নেই। ধান ফলাতে হবে। বর্তমানে দেশে বিভিন্ন প্রকার ধান কাটার মেশিন আবিষ্কার হয়েছে। এমনকি ধান শুকানোর ড্রায়ার মেশিনও বের হয়েছে। হাওরে অটো রাইস মিল করতে কোটি কোটি টাকার প্রয়োজন। হাওরের উন্নয়নে এখন নতুন করে চিন্তা করি। বিভিন্ন এলাকায় ফাইওভার করার চিন্তা রয়েছে। ভবিষ্যত স্বপ্ন দেখতে হবে।

মিঠামইন উপজেলা সদরের মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হক সরকারি কলেজ মাঠে আয়োজিত গণসংবর্ধনায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এসব কথা বলেন। এই গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মিঠামইন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান  মো. আব্দুস শাহিদ ভূঁইয়া।

এতে অন্যদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, কিশোরগঞ্জ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মো. জিল্লুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহজাহান, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ আফজল, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রইছ উদ্দিন আহমেদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সমীর কুমার বৈষ্ণব, সদর ইউপি চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শরীফ কামাল, মৌলানা ইয়াকুব আলী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এছাড়া গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক মো. সারোয়ার মুর্শেদ চৌধুরী, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাসলিমা আহমেদ পলি, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হক সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হক সহ বিভিন্ন সামরিক, বেসামরিক কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

গণসংবর্ধনায় বক্তব্য রাখার আগে রাষ্ট্রপতি ৬টি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন।

গণসংবর্ধনা অনুষ্ঠানে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে নানা সাজে বাদ্য বাজিয়ে এবং বর্ণাঢ্য মিছিল নিয়ে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার হাজার হাজার মানুষ হাজির হন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর





সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ