কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আবারও জাতীয় দলে কিশোরগঞ্জের ছেলে কৃতি গোলরক্ষক হিমেল


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, সোমবার, ৯:২৩ | এক্সক্লুসিভ 


ইনজুরির কারণে দীর্ঘদিন তিনি ছিলেন জাতীয় ফুটবল দলের বাইরে। এর আগেও ইনজুরিতে পড়েছেন। কিন্তু ফিরেছেন সগৌরবে। এবারও ইনজুরি কাটিয়ে জাতীয় ফুটবল দলে জায়গা করে নিয়েছেন দেশসেরা গোলরক্ষক মাজহারুল ইসলাম হিমেল।

আগামী ৯ই মার্চ কম্বোডিয়ায় অনুষ্ঠেয় বাংলাদেশ-কম্বোডিয়া প্রীতি ম্যাচের জন্য ঘোষিত বাংলাদেশ জাতীয় দলে গোলরক্ষক মাজহারুল ইসলাম হিমেল রয়েছেন ব্রিটিশ কোচ জেমি ডে’র পছন্দের তালিকার এক নম্বরে।

২০১৬ সালের মে মাসে ইনজুরির কারণে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের বাইরে চলে যান মাজহারুল ইসলাম হিমেল। ইনজুরির সারিয়ে জাতীয় দলে ফিরতে উন্মুখ ছিলেন দেশসেরা এই গোলরক্ষক। এই সময়ে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘের গোলপোস্ট দক্ষতা আর নৈপূণ্যের সঙ্গে আগলে রেখে প্রমাণ করেছেন জাতীয় দলে তার অপরিহার্যতার বিষয়টি। ফলে কম্বোডিয়ার সাথে প্রীতি ম্যাচের জন্য সোমবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) ঘোষিত জাতীয় ফুটবল দলে অনায়াসেই প্রত্যাবর্তন হয় হিমেলের।

পাঁচ ফুট ১০ ইঞ্চি উচ্চতার মাজহারুল ইসলাম হিমেল ১৯৮৮ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর কিশোরগঞ্জ শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর বাবা প্রয়াত রাজনীতিক অ্যাডভোকেট জিন্নাতুল ইসলাম ছিলেন একজন প্রখ্যাত ক্রীড়া সংগঠক। তিন ভাই ও তিন বোনের মধ্যে হিমেল চতুর্থ।

বাবার অনুপ্রেরণায় ছোটবেলাতে ফুটবলের প্রেমে পড়েন হিমেল। শৈশবের সেই ফুটবল প্রেমই আজ তাকে পরিণত করেছে দেশসেরা গোলরক্ষক হিসেবে। অনূর্ধ-১৪, অনূর্ধ-১৭, অনূর্ধ-১৯ ও অনূর্ধ-২৩ জাতীয় ফুটবল দলে তার ধারাবাহিক নৈপূণ্য নজর কাড়ে ফুটবলবোদ্ধাদের। ফলশ্রুতিতে ২০০৬ সালে ডাক পান বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলে।

বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দল ছাড়াও গোলরক্ষক মাজহারুল ইসলাম হিমেল আলো ছড়িয়েছেন ক্লাব ফুটবলেও। ঐতিহ্যবাহী আবাহনী, মোহামেডান, শেখ জামাল ধানমণ্ডির জার্সি গায়ে হিমেল মাতিয়েছেন ক্লাব ফুটবল। তাঁর হাতের জাদুতে একের পর শিরোপা ওঠেছে দলগুলোর হাতে। বর্তমানে অত্যন্ত দক্ষতার সাথে আরামবাগ ক্রীড়া সংঘের গোলবার সামলাচ্ছেন দেশসেরা এই গোলরক্ষক।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর