কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কুলিয়ারচর উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ২০ বিএনপি নেতাকর্মীর জামিন


 মুহাম্মদ শাহ্ আলম, স্টাফ রিপোর্টার, কুলিয়ারচর | ১৫ মার্চ ২০১৯, শুক্রবার, ৫:০৬ | কুলিয়ারচর 


একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন চলাকালে পুলিশের দায়ের করা পৃথক দুই মামলায় কুলিযারচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপি'র সাধারণ সম্পাদক নূরুল মিল্লাতসহ বিএনপি'র ২০ নেতাকর্মী ১৯ দিন কারাভোগের পর বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) রাত সাড়ে আটটার দিকে কিশোরগঞ্জ জেলা কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন।

কারাগার থেকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুল মিল্লাত সহ বিএনপি নেতাকর্মীরা বের হলে কারা ফটকেই বিএনপি নেতাকর্মীদের ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নেয়া হয়।

কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপি'র সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল আলম, জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি মুস্তাক আহমেদ শাহিন, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মারুফ মিয়া, সাধারণ সম্পাদক ফেরদৌস আহমেদ নেভিন, কুলিয়ারচর উপজেলা বিএনপি'র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট মশিউর রহমান, সালুয়া ইউনিয়ন বিএনপি'র সভাপতি একেএম ফরিদউদ্দিন আহমেদ সহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা তাদের বরণ করে নেন।

জামিনে মুক্ত নেতাকর্মীদের মধ্যে কুলিযারচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূরুল মিল্লাত ছাড়াও উছমানপুর ইউনিয়ন বিএনপি'র সভাপতি মো. শহিদুল্লাহ, উপজেলা যুবদলের সভাপতি আজহার উদ্দিন লিটন, বিএনপি নেতা গোলাম রসুল, সাদেক মিয়া, ছানা মিয়া, পৌর বিএনপি'র সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল লতিফ, পৌর শ্রমিক দলের সভাপতি মো. ফুল মিয়া, পৌর যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম মুছা, প্রচার সম্পাদক আরমান, পৌর ছাত্রদলের সভাপতি রাজ আহাম্মেদ রকি প্রমুখ রয়েছেন।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি কিশোরগঞ্জ জিআর আদালত নং-২ এ আত্মসমর্পণ করে জামিনের প্রার্থনা করলে আদালতের বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ আব্দুল নূর তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান। পরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে তাদের জামিন আবেদন করলে জেলা ও দায়রা জজ আদালতও তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন।

পরবর্তিতে দুই মামলার আসামিরা হাইকোর্ট থেকে ৬ মাসের অর্ন্তবর্তীনকালীন জামিন লাভ করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর