কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের তরুণ মাসুমের বর্ণনায় ক্রাইস্টচার্চ মসজিদ হামলা


 মো. আল আমিন, কন্ট্রিবিউটিং এডিটর, কিশোরগঞ্জ নিউজ | ১৬ মার্চ ২০১৯, শনিবার, ৮:৪৩ | এক্সক্লুসিভ 


নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ এর আল নুর মসজিদে যখন হামলা হয়, তখন বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জের ছেলে ওমর জাহিদ মাসুম (৩৩) ওই মসজিদের ভেতরে ছিলেন। একটি গুলি তার বাম কাঁধের উপরের দিকে এসে লাগে। এর পর মারা যাওয়ার ভঙ্গিতে রক্তাক্ত মানুষের স্তুপে পড়ে থাকেন তিনি। এভাবে দীর্ঘক্ষণ পড়ে থাকার পর কোনরকমে মসজিদ থেকে বেরিয়ে দেয়াল ডিঙিয়ে একটি বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নিয়ে প্রাণে বাঁচেন তিনি।

নিউজিল্যান্ড প্রবাসী ওমর জাহিদ মাসুমের বাড়ি কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার মুমুরদিয়া ইউনিয়নের ধনকীপাড়া গ্রামে। তিনি কটিয়াদীর সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মরহুম আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান দয়াল এর ছেলে।  চার ভাই এবং তিন বোনের মধ্যে সবার ছোট মাসুম।

ওমর জাহিদ মাসুম বাংলাদেশে থাকার সময়ে অরেঞ্জ বিডি আইটি ফার্মে কাজ করতেন। মিরপুর বাংলা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক শেষে তথ্য প্রযুক্তিতে (আইটি) তিন বছরের একটি কোর্স করার জন্য ২০১৫ সালের ২৯শে অক্টোবর তিনি নিউজিল্যান্ডে যান। পড়াশোনা শেষ করে সেখানেই একটি সুপার শপ এবং একটি পেট্রল পাম্পে ব্যবস্থাপক হয়ে কাজ করছেন তিনি। ক্রাইস্টচার্চ মসজিদ আল নূর থেকে প্রায় ৩ কিলোমিটার দূরে সস্ত্রীক বসবাস করেন মাসুম।

ক্রাইস্টচার্চ হামলা থেকে ভাগ্যক্রমে বেচে যাওয়া মাসুম শনিবার (১৬ মার্চ) সন্ধ্যায় টেলিফোনে কিশোরগঞ্জ নিউজকে সেই ভয়াবহ হামলার বিবরণ দিয়েছেন।

মাসুম বলেন, ‘জুমার দিন হওয়ায় ওই দিন কাজ শেষ করেছি সাড়ে ১২টায়। আল নূর মসজিদ আমার বাসা থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূর হলেও সেন্ট্রাল মসজিদ হওয়ায় জুমার নামাজ ওই মসজিদেই পড়ি। মসজিদে দেড়টায় খুতবা শুরু হয়। খুতবা শোনার জন্য প্রতি শুক্রবার একটু আগেই আমি মসজিদে যাই। ঘটনার দিন ১টার মধ্যে মসজিদে পৌঁছাই।

দ্ইুটায় আমাদের জামাত। এর মধ্যে ইমাম সাহেব আসলেন। আমি দ্বিতীয় লাইনে ইমাম সাহেবের ঠিক সোজাসুজি ছিলাম। পাশে বাংলাদেশি বন্ধু মোজাম্মেল। আমি বাংলাদেশে যাবো, ও-ও যাবে, এ নিয়ে দুজনে কথা বলছিলাম। ও যাবে সেপ্টেম্বরে, আমি যাবো আগস্টের দিকে। এ নিয়ে কথা বলছিলাম। নিজেদের জবের বিষয়েও কথা হচ্ছিল। নিজেদের ব্যাক্তিগত বিষয় নিয়েও কথা বলছিলাম।

এর মধ্যেই ইমাম সাহেব আরবিতে খুতবা শুরু করলেন। কথা বন্ধ রেখে আমরা খুতবায় মনোনিবেশ হলাম। হঠাৎ পেছন দিক থেকে  আতশবাজির মতো একের পর এক আওয়াজ কানে আসতে লাগলো। প্রথমে কিছু বুঝে উঠতে পারি নাই। মানুষ চিল্লাচ্ছে, এদিক-ওদিক ছুটাছুটি করছে। বুঝতে পারলাম খারাপ কিছু হচ্ছে। আমরা মসজিদের বড় কক্ষের সামনের দিকে ছিলাম। এক পর্যায়ে এদিকেও গুলি শুরু হলো।

প্রাণ ভয়ে আমি মসজিদের কক্ষের ডান দিকের কোণায় গিয়ে আশ্রয় নিলাম। অস্ত্রধারীরা একের পর এক গুলি করছে। একটা গুলি আমার বাম কাঁধের দিকে এসে লাগলো। গুলিটা চামড়া ভেদ করে বাইরে চলে যায়। ভেতরে ঢুকেনি। কাঁধে গুলি লাগার পর দম বন্ধ করে আমি মেঝেতে শুয়ে পড়ি। আমি মরার মতো মসজিদের মেঝের সাথে বুক মিশিয়ে একেবারে শুয়ে পড়েছিলাম। কাঁধ থেকে রক্ত ঝরছিল। আমি বেঁচে গেলেও আমার ডান পাশে আমার পরিচিত একজন বয়স্ক লোকের পিঠে এসে একটি গুলি লাগে। সঙ্গে সঙ্গেই তিনি মারা যান। আমার পিছনে পায়ের দিকে ছিল একটি বাচ্চা সে-ও মারা যায়।  বাম পাশে ছিলেন একজন তিনিও মারা গেছেন।

আমি শ্বাস বন্ধ করে মরার মতো শুয়ে আছি। কোনোরকম নড়াচড়া করিনি। গুলির শব্দ থামার ৪-৫ মিনিট পর্যন্ত আমি ওভাবেই শুয়েছিলাম। পরে চোখ মেলে দেখি আমার চারপাশে লাশ আর লাশ। এর মধ্যে বেঁচে যাওয়া দুই ভারতীয় বন্ধু আমাকে টেনে উঠালেন। বললাম, আমার খুব ব্যাথা করছে দেখো ভেতরে গুলিটুলি আছে কি না। ওরা বললো, চামড়া ছিঁড়ে গেছে, ভিতরে গুলি ঢুকেনি। তখনও আতঙ্ক আমাদের কাটেনি। এরপর মসজিদ থেকে বেরিয়ে দেয়াল ডিঙিয়ে একটি বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নিই আমি। আমার ভারতীয় বন্ধুরাও অন্য কোনোখানে আশ্রয় নেয়।’

হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে বাসায় ফিরলেও হামলার ভয়াবহতা ও নৃশংসতায় বার বার আঁতকে ওঠছেন মাসুম। এখনও রীতিমত আতংকে আছেন তিনি।

মাসুম শনিবার (১৬ মার্চ) সন্ধ্যায় বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের মতো একটি দেশে এ রকম হামলা হবে জীবনেও ভাবিনি। হামলার পর চিকিৎসা নিয়ে এখন আমি বাসায়। তবে ভুলতে পারিছি না এই ভয়াবহ দৃশ্য। মূলত লাশের স্তুপ থেকে আমি বেঁচে এসেছি। আল্লাহ আমাকে বাঁচিয়েছেন।’

মাসুম নিউজিল্যান্ডে বসবাসকারী বাংলাদেশিদের জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর