কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ইবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে কিশোরগঞ্জে পালিত হল পবিত্র লাইলাতুল বরাত


 স্টাফ রিপোর্টার | ২২ এপ্রিল ২০১৯, সোমবার, ৫:২৫ | ইসলাম 


ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য ও ইবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে কিশোরগঞ্জ সদরসহ জেলার ১৩টি উপজেলায় পালিত হয়েছে সৌভাগ্যের রজনী পবিত্র লাইলাতুল বরাত বা শবে বরাত। রোববার (২১ এপ্রিল) মাগরিব নামাজের পর থেকেই প্রস্তুতি শুরু হয় সৌভাগ্যের এই রজনীতে ইবাদত-বন্দেগির। মসজিদে মসজিদে নামে মুসল্লিদের ঢল।

এশার আজানের আগে থেকে শুরু হওয়া মুসল্লিদের এই স্রোতে কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায় জেলার প্রায় সব মসজিদ। সৃষ্টিকর্তার রহমত পাওয়ার আশায় নফল নামাজ, কোরআন তেলাওয়াত, জিকির, দোয়া ও বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা।

শহরের কেন্দ্রীয় ঐতিহাসিক শহীদী মসজিদ ও ঐতিহাসিক পাগলা মসজিদসহ জেলার সব মসজিদগুলোতে রাতভর ইবাদতে মশগুল থাকেন মুসল্লিরা। বাসা-বাড়িতে নারীরা নফল নামাজ, পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও অন্যান্য ইবাদত-বন্দেগির মধ্য দিয়ে মহিমান্বিত এই রজনী পার করেন।

মহিমান্বিত এই রজনীতে মসজিদে মসজিদে দেখা গেছে মুসল্লিদের ভিড়। বিগত জীবনের সব ভুল-ভ্রান্তি, পাপ-তাপের জন্য গভীর অনুশোচনা করে মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারে কায়মনোবাক্যে ক্ষমা প্রার্থনা করেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা।

সেই সাথে কবরস্থানে গিয়ে স্বজনদের কবরের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়ায়ও অংশ নেন তারা।

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) বলেন, লাইলাতুল বরাতের পবিত্রতা রক্ষার্থে এবং সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে উদযাপন করার লক্ষ্যে কিশোরগঞ্জে বিস্ফোরক দ্রব্য, আতশবাজি, পটকাবাজি ও অন্যান্য ক্ষতিকারক দ্রব্য বহন এবং ফোটানো নিষিদ্ধ এবং শহরের সকল মসজিদে যাতে ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা শান্তিপূর্ণ ভাবে ইবাদত-বন্দেগি করতে পারেন, সেজন্য ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছিল।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর