কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


পাকিস্তানের কারাগারে বন্দী কিশোরগঞ্জের দেওয়ান, স্বজনেরা ভেবেছিলেন, ‘মারা গেছেন’


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৫ মে ২০১৯, রবিবার, ৯:০৭ | এক্সক্লুসিভ 


পরিবারের সাথে রাজধানীর আজিমপুরে থাকতেন দেওয়ান আলী। মানবপাচার চক্রের ফাঁদে পড়ে মাত্র ১১ বছর বয়সে ১৯৮৪ সালে তিনি সড়কপথে ভারত হয়ে পাকিস্তানে যান। সেখানে যাওয়ার পর পরিবারের কাছে দু’টি চিঠি পাঠিয়েছিলেন। পরিবারের পক্ষ থেকে সেই চিঠির উত্তরও দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এরপর আর কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি দেওয়ান আলীর। দীর্ঘদিন দেওয়ান আলীর কোন খোঁজ না পেয়ে স্বজনেরা ধরে নিয়েছিলেন, ‘দেওয়ান আলী মারা গেছেন।’

এ রকম পরিস্থিতিতে গত ২ মে রাতে কিশোরগঞ্জ নিউজ-এ ‘ পাকিস্তানের কারাগারে সাজা ভোগ শেষেও মুক্তি মিলছে না কিশোরগঞ্জের দেওয়ান শাহ’র’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদে বলা হয়, সঠিক ঠিকানা না পাওয়ায় পাকিস্তানের কারাগারে বন্দী দেওয়ানকে দেশে পাঠানো যাচ্ছে না।

এই সংবাদের সূত্র ধরেই খোঁজ মিলে দেওয়ান আলীর স্বজনদের। পাওয়া যায়, সঠিক ঠিকানা। দেওয়ান আলীর জীবিত থাকার খবরে স্বস্তি ফিরে আসে স্বজনদের মাঝে। তারা দেওয়ান আলীকে দেশে ফিরিয়ে আনতে সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

স্বজনেরা জানান, দেওয়ান আলীর বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচর উপজেলার রামদী ইউনিয়নের পশ্চিম জগতচর গ্রামে। তার বাবা কাঞ্চন মিয়া বেঁচে নেই। মা আগেই মারা গেছেন। বড় চার সৎ ভাই রয়েছেন। তারা হলেন, মো. আনোয়ার খন্দকার, জামাল উদ্দিন, আব্দুল আউয়াল ও জালাল উদ্দিন। রয়েছে নাসিমা নামে এক ছোট বোন। একই ইউনিয়নের মনোহরপুর গ্রামে দেওয়ান আলীর মামার বাড়ি।

দেওয়ান আলীর সৎ ভাই জামাল উদ্দিন জানান, তখন তারা সপরিবারে ঢাকার আজিমপুরে থাকতেন। দেওয়ান আলী ছিল ভাইদের মধ্যে সবার ছোট। এর মধ্যেই একদিন পাকিস্তানে চলে যায় দেওয়ান আলী। সেখানে যাওয়ার পর সে দু’টি চিঠি পাঠিয়েছিলো। তারাও উত্তর দিয়েছিলেন। সে চিঠি সে পেয়েছিলো কিনা তাও তারা জানেন না। এরপর থেকে আর কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি দেওয়ান আলীর। তারা ধরে নিয়েছিলেন, দেওয়ান আলী আর হয়তো বেঁচে নেই।

জামাল উদ্দিন জানান, কুলিয়ারচর উপজেলার রামদী ইউনিয়নের জগতচর পশ্চিমপাড়া বড়বাড়ি তাদের বাড়ি। বাড়িতে বর্তমানে তিনি এবং বড় ভাই মো. আনোয়ার খন্দকার বসবাস করেন।

দেওয়ান আলীর মামা সৈয়দ মুকসেদুজ্জামান জানান, দেওয়ান আলীর বেঁচে থাকার খবর পেয়ে তারা খুবই আনন্দিত হয়েছেন। দেওয়ান আলীকে দেশে ফিরিয়ে আনতে তিনি সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

ইসলামাবাদের বাংলাদেশ হাইকমিশনের পার্সোনাল অফিসার রুবেল মিয়া জানান, গত বছরের ১২ই এপ্রিল পাকিস্তানের লাহোর থেকে ওই ব্যক্তি গ্রেপ্তার হন। কাগজপত্রে তার নাম জাভেদ শাহ উল্লেখ করা হয়েছে। পাকিস্তানে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে তাকে তিন মাস কারাদণ্ড এবং ২০ হাজার রুপী জরিমানা অনাদায়ে আরো ১০ দিনের কারাদ- দেয়া হয়। সাজা ভোগ শেষে গত বছরের ২১শে জুলাই তার মুক্তি পাওয়ার কথা ছিলো। কিন্তু তিনি এখনো লাহোর সেন্ট্রাল জেলে বন্দী রয়েছেন।

বিষয়টি বাংলাদেশ হাইকমিশনের নজরে এলে হাইকমিশনের পক্ষ থেকে তার ব্যাপারে খোঁজখবর নেয়া হয়। তখন ওই ব্যক্তি জানান, পাকিস্তানে কাগজপত্রে তার নাম জাভেদ শাহ উল্লেখ করা হলেও তার নাম দেওয়ান শাহ নূরী। তার জন্ম বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচর উপজেলায়।

রাজধানীর আজিমপুরে থাকা অবস্থায় মানবপাচার চক্রের ফাঁদে পড়ে মাত্র ১১ বছর বয়সে ১৯৮৪ সালে তিনি সড়কপথে ভারত হয়ে পাকিস্তানে যান। এরপর থেকে তিনি পাকিস্তানেই অবস্থান করছিলেন। এরকম অবস্থায় ২০১৮ সালের ১২ই এপ্রিল লাহোর থেকে তাকে গ্রেপ্তারের পর লাহোর সেন্ট্রাল জেলে পাঠানো হয়। অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে পাকিস্তানের কারাগারে সাজা ভোগ শেষেও বাংলাদেশে ওই ব্যক্তির সঠিক ঠিকানা না পাওয়ায় তাকে দেশে পাঠানো যাচ্ছে না।

দেওয়ান শাহ নূরীর নিকট থেকে পাওয়া তথ্যাবলীর সত্যতা এবং নাগরিকত্ব যাচাই করে ট্রাভেল পারমিট (টিপি) প্রদানের ছাড়পত্রের জন্য ইসলামাবাদের বাংলাদেশ হাইকমিশনের কাউন্সিলর (কনস্যুলার) গত ৩০শে এপ্রিল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পরিচালক (কনস্যুলার ও কল্যাণ) এর কাছে একটি ই-মেইল বার্তা পাঠিয়েছেন।

এ সংক্রান্ত পূর্ববর্তী সংবাদ: পাকিস্তানের কারাগারে সাজা ভোগ শেষেও মুক্তি মিলছে না কিশোরগঞ্জের দেওয়ান শাহ’র




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর