কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হাওরের হিজল বনে একদিন


 মোস্তাফিজ মারুফ | ১৩ আগস্ট ২০১৯, মঙ্গলবার, ৪:৪৩ | রকমারি 


হাওরের প্রতি আমার এক ধরণের দুর্বলতা কাজ করে। সেজন্য কেউ যদি বলে, চল হাওরে ঘুরতে যাই তাহলে সেই লোভ সামলাতে পারি না। তবে, এবারের ভ্রমণটা ব্যতিক্রম ছিলো। কেননা একজন গুণী মানুষ আমাদের সঙ্গী হিসেবে ছিলেন।

সেই গুণী মানুষটি হলেন মুহাম্মদ জাভেদ হাকিম। তিনি বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক পত্রিকাগুলোতে নিয়মিত ভ্রমণ গল্প ও ফিচার লিখেন। ভ্রমণই যার নেশা, সুযোগ পেলেই ভ্রমণে বের হয়ে যান। ইতোমধ্যে গত একুশে বইমেলায় ‘ছুটে যায় প্রকৃতির রাজ্যে’ নামে উনার একটি বই প্রকাশিত হয়েছে।

১০ই আগস্ট রাতে তরিকুল মামা আমাকে কল দেন। বলেন, ‘মামা জাভেদ হাকিম ভাই আসছেন আমার বাড়িতে। উনাকে নিয়ে আমরা পরদিন (১১ ই আগস্ট) ভোর সাড়ে ৫টায় ইটনা-মিঠামইনের হাওরের উদ্দেশ্য রওনা দিবো।’

আমার উতলা মন। উনার কথা শুনেই রাজি হয়ে গেলাম। জাভেদ ভাই ও আসিফ ভাই বাইকে করে ঢাকা থেকে কিশোরগঞ্জ এসেছেন। রাতে তরিকুল মামার বাসায় রাত্রিযাপন করেন।

ভোর সাড়ে ৫টায় দুটো বাইকে করে আমরা ৫ জন চললাম বালিখলার পথে। বালিখলার যাত্রা পথে মৃদু বৃষ্টি, এর মধ্যেই বাইক চলছে। টিপটিপ বৃষ্টি যেন সৃষ্টি করছে মনের মধ্যে অন্যরকম অনূভুতি।

বালিখলা পৌঁছার পর নৌকা ভাড়া করলাম। উদ্দেশ্য ইটনা-মিঠাইনের হাওর দর্শন। মিঠামইনের পথে যেতে যেতে চোখে পড়লো দৃষ্টিনন্দন হাসানপুর ব্রিজ। ব্রিজটির দু’পাশে হালকা সদৃশ রাস্তা, কিন্তু বাকি রাস্তা পানির নিচে। অর্থাৎ এটাকে বলা হয় সাব-মার্সিবেল রাস্তা- বর্ষায় পানির নিচে থাকে আর শুকনো মৌসুমে চলাচল করা যায়।

তারপর, আমরা সবাই এখানে নামলাম। সেখানে রাস্তায় পা ভিজালাম সবাই, সবাই ছবি তুললাম। কিছুক্ষণ ব্রিজে অবস্থান করার পর আবারো ছুটলাম হাওরের পথে।

তখন প্রচুর রোদ, কিন্তু হাওর শান্ত। প্রায় এক ঘন্টা পর মিঠামইন বেড়িবাঁধে পৌঁছলাম। সেখানে প্রথমেই আমরা মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সাহেবের বাড়িতে যাই। সেখানে ঘুরা শেষ করে কিছুক্ষণ মিঠামইন বেড়িবাঁধে অবস্থান করি।

আবারও নৌকায় ছুটে চলি। চলতে চলতে চোখে পড়ে ভাসমান রাস্তা ও দৃষ্টিনন্দন ব্রিজসহ হাওরের নানা উন্নয়নযজ্ঞ। নৌকা থেকে জাভেদ ভাইয়ের নজরে আসে হাওরের গুচ্ছ গ্রাম গুলো। ভাই বললেন, ‘চলআমরা সেখানে যাই।’

তারপর নৌকা ঘাটে লাগিয়ে আমরা নামলাম। মানুষ জন একত্র হয়েছে, তারা আমদের দেখে অনেকটা অবাক। জাভেদ ভাই খুব সহজেই মানুষের সাথে মিশতে পারেন। তাছাড়া গ্রামের মানুষগুলো খুব সরল, হাসিখুশি, কোনো অহংকার নেই।

কিছুক্ষণ থেকে গুচ্ছ গ্রাম থেকে আমরা বিদায় নিলাম। এবার ছুটছি আমরা ইটনার শিমুলবাগে। শিমুলবাগে ২০০/৩০০ হিজল গাছ আছে, যাকে স্থানীয় ভাবে হিজল বন বলা হয়। হাওরে শির উচু করে দাঁড়িয়ে আছে শতশত হিজল গাছ।

বর্ষায় হিজল গাছের অর্ধেক অংশ পানিতে ডুবন্ত থাকে। নৌকায় করে আমরা প্রবেশ করলাম হিজল বনের ভিতর। শতশত হিজল গাছের সারি, নীল আকাশ আমাদের মুগ্ধ করে। প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্য এই হিজল বনে না আসলে অনুভব করা যেতো না।

তারপর আমাদের যাত্রা শেষের দিকে। ফেরার জন্য বালিখলার পথে চললাম। বালিখলায় নেমে ধনু নদীর পানিতে সবাই গোসল করলাম।

জাভেদ ভাই হাওরে ঘুরে অনেক খুশি। আমি ও তরিকুল মামা তার সান্নিধ্যে পেয়ে অনেক খুশি। এবার বিদায় বেলা। জাভেদ ভাই ছুটে চললেন ঢাকার পথে আর আমরা চললাম বাড়ির পথে।

সবমিলিয়ে অসাধারণ একটা দিন কাটিয়েছি। সুযোগ পেলেই মন হয়তো আবারো ছুটে চলবে প্রকৃতির রাজ্যে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর