কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


আমাদের মেলবন্ধন


 মোস্তাফিজ মারুফ | ১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, ৩:১৮ | রকমারি 


কলেজ জীবন পার করলাম দু'বছর হলো। আমার কলেজের নাম 'আফতাব উদ্দিন স্কুল এন্ড কলেজ'। এটি কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর উপজেলার ভাগলপুরে অবস্থিত। সাধারণত দূর-দূরান্তের শিক্ষার্থীদের জন্য হোস্টেলের ব্যবস্থা। সে হিসেবে আমার বাড়ি দূরে হওয়ায় হোস্টেলে উঠি।

এবার আসি প্রসঙ্গে, হোস্টেলে কাটানো দু'বছরে রয়েছে হাজারো স্মৃতি। রুম নাম্বারগুলো এখনো চোখের সামনে ঝলঝল করে ভেসে উঠে ৪০২, ৪০৪, ৪০৪। আমাদের হোস্টেলে আরোও রুমের বন্ধুরা ছিলো, কিন্তু আমরা এ তিনটি রুমের ৭/৮ জন বন্ধুরা প্রতি বছর দুটো ঈদে রিইউনিয়ন করার চেষ্টা করি।

এরই ধারাবাহিকতায় এ বছর রমজানে আমরা ইফতারের আয়োজন করি এবং এই কোরবানি ঈদেও আমরা একত্রে হই। ১২ আগস্ট কোরবানি ঈদ পালিত হলো। এর দুদিন পর বুধবার (১৪ আগস্ট) নিকলী বেড়িবাঁধে আমরা ৭ জন একত্রিত হওয়ার পরিকল্পনা করি। আমি ছাড়া অন্যরা হলো, সীমান্ত, মেহেদী, প্রিতুল, ফারুক, তানজিল ও ফাহিম।

ওইদিন (১৪ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৭টায় আমার ঘুম ভাঙলো। ফ্রেশ হয়ে সীমান্তকে ফোন দিলাম। আমি বললাম, ‘তুই কিশোরগঞ্জ থেকে মরিচখালী আয়,তারপর এখান থেকে দু'জনে একসঙ্গে নিকলী যাবো।’ ঘন্টাখানেক পর সে চলে আসলো। তারপর দু'জন করিমগঞ্জ-নিকলী নির্মাণধীন আব্দুল হামিদ সড়ক পথে নিকলীর উদ্দেশ্য রওনা হই।

আমরা ভাড়ায় চালিত বাইকে করে যাই। হাওরের উপর ভাসমান রাস্তা, দুপাশে পানি, মনের মধ্যে এনে দেয় এক চমকপ্রদ অনূভুতি। বাইক চলছে তার নিজস্ব গতিতে,বাতাসে দু'জনের চুল উড়ছে। ৪০ মিনিট পর আমরা নিকলী বেড়িবাঁধ পৌঁছলাম, তখন বোধহয় ১০টা বাজে। একে একে সবাই আসা শুরু করলো। ১৫/২০ মিনিটের মধ্যে সবাই চলে আসে গন্তব্যে। একজন আরেকজনের সাথে কোলাকুলি করি। তারপর শুরু হয়ে যায় দুষ্টুমি।

আমরা একসঙ্গে যতক্ষণ থাকি তখন সবাই সবার অবস্থান ভুলে গিয়ে আনন্দে মাতোয়ারা হই। সীমান্ত, প্রিতুল, ফারুক ও মেহেদী ৪০২ নাম্বার রুমের সদস্য ছিলো। আমি আর ফাহিম ৪০৩ নাম্বার রুমের সদস্য ছিলাম। তানজিল ৪০৪ নাম্বার রুমের সদস্য।

রুম নাম্বারগুলো উল্লেখ করার সুনির্দিষ্ট কারণ আছে। কেননা আমরা যখনই একসঙ্গে হই তখনই হোস্টেলে কাটানো সময়গুলোর স্মৃতিচারণ করি। কে কি করতো এগুলো একজন আরেকজনকে খোঁচা দেই। যখন আমাদের স্মৃতিচারণ শুরু হয়, তখন একেকজনের হাসতে হাসতে পেট ব্যথা হয়ে যায়।

সেদিন নিকলী বেড়িবাঁধে পর্যটকদের প্রচুর ভীড় ছিলো। সবাই নৌকায় চড়বে বলে মনস্থির করলাম। কিন্তু নৌকা ভাড়া স্বাভাবিকের চেয়ে দু-তিন গুণ বেশি ছিলো। যেখানে অন্য সময় ঘন্টা-খানেকের জন্য নৌকা ভাড়া ৫০০/৭০০ টাকা, এখন ঈদ সিজনে তা বেড়ে ২০০০/৩০০০ টাকা।

অনেকগুলো নৌকার মাঝির সাথে কথা বললাম, তারপরও তাদের সাথে বনিবনা হলো না আমাদের। সীমান্ত একজন মাঝিকে ১৫০০ টাকা ভাড়া দিবে বললো, তবুও রাজি হলো না। তখন আমার অনেকটা রাগ উঠে। সবাইকে বললাম চলে আয় নৌকায় উঠবো না। সবাই চলে এলাম। তারপর হেঁটে হেঁটে বেড়িবাঁধের শেষ মাথা থেকে শুরুর দিকে আসি।

তখন সম্ভবত দুপুর ২ টা বাজে। মধ্যাহ্নভোজনের জন্য স্থানীয় হোটেলে প্রবেশ করি। তারপর খাওয়া-দাওয়া শেষ করে অটোরিকশায় করে আমার বাড়ি তথা মরিচখালীর উদ্দেশ্য রওনা হই। মরিচখালী যেতে যেতে অনেকগুলো দৃষ্টিনন্দন ব্রিজ আমাদের চোখে পড়ে।

আমরা ভাসমান রাস্তার একটি ব্রিজে নামলাম। এখানে কিছুক্ষণ সময় কাটায়, সবাই ছবি তুলি। আমাদের গ্রুপ ছবি তুলবো, তাই একজন পথচারীকে বললাম আমাদের ছবি তোলার জন্য। আবার অটোরিকশায় উঠলাম নলি বিলের মাঝামাঝি নামিয়ে দিলো। কারণ একটা ব্রিজ এখনো সম্পূর্ণ হয়নি, সেকারণে নৌকা দিয়ে পার হতে হয়। এই ভাঙা ব্রিজ থেকে মরিচখালীতে যেতে ১০ মিনিট সময় লাগে।

আল্লাহর কি রহমত, সে সময় একটা নৌকা আমাদের চোখে পড়ে। মাঝিকে জিজ্ঞাসা করলাম, ‘মরিচখালী বাজার ঘাটে যাবো, কত টাকা দিবো বলেন?’ মাঝি ১০০ টাকা চাইলো, আমরা নৌকায় উঠলাম। নিকলীতে ১৫০০ টাকায়ও নৌকা ভাড়া করতে পারিনি। কিন্তু এই ১০০ টাকা ভাড়ায় নৌকায় ভ্রমণ আমাদের অতৃপ্ত মনকে তৃপ্ত করেছে। নৌকা থেকে নেমে আমার বাড়ির দিকে চললাম। বাজার থেকে ২ মিনিটের পথ।

আমরা যখন বাড়ি পৌঁছলাম, তখন সম্ভবত বিকাল ৫টা বাজে। বাড়িতে যাওয়ার পর সবাই ফ্রেশ হলো। আব্বা আসলো আমার বন্ধুদের সাথে দেখা করতে, সবাই আব্বাকে সালাম দিলো। আব্বা বেশিরভাগকে চিনেন, কিছুক্ষণ কথা বলে পাশের রুমে চলে গেছেন।

আর এদিকে সবার দুষ্টুমিতো চলছেই। তারপর নাস্তা দেওয়া হলো। নাস্তা খাওয়ার পর আব্বার কাছ থেকে বিদায় নিলো। আব্বা ও আমি থাকার জন্য তাদের জোরাজুরি করি। কিন্তু তারা বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে চলে যায়। আমি বাজার পর্যন্ত সবাইকে এগিয়ে দিলাম।

বিদায় বেলা। সীমান্ত ও প্রিতুল ছুটলো কিশোরগঞ্জের পথে, অন্যদিকে মেহেদী, ফারুক, তানজিল ও ফাহিম ছুটলো নিকলীর পথে। আমাদের কাটানো ৬/৭ ঘন্টা সময় ৬ মাস আনন্দের খোরাক দেয়। বেঁচে থাকুক বন্ধুত্ব, বেঁচে থাকুক ভালোবাসা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর