কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মিন্নির পক্ষে বিনা পয়সায় হাইকোর্টে লড়ছেন নিকলীর ফয়সাল


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার, ৬:১২ | রকমারি 


বরগুনার আলোচিত রিফাত হত্যা মামলার প্রধান সাক্ষী থেকে আসামি হয়ে কারাগারে আছেন আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি। মিন্নিকে কারাগার থেকে বের করতে উচ্চ আদালতে বিনা পয়সায় আইনি লড়াই করছেন একদল আইনজীবী।

মিন্নির পক্ষে আইনজীবী প্যানেলের নেতৃত্বে রয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী অ্যাডভোকেট জেড আই খান পান্না। আইনজীবী প্যানেলের অন্যরা হলেন, অ্যাডভোকেট আইনুন্নাহার লিপি, অ্যাডভোকেট মাক্কিয়া ফাতেমা ইসলাম, অ্যাডভোকেট মাহরিন মাসুদ ভূইয়া, অ্যাডভোকেট আয়েশা আক্তার, অ্যাডভোকেট রোনা নাহরিন, অ্যাডভোকেট রোহানী ফারুক খান, অ্যাডভোকেট জামিউল হক ফয়সাল, অ্যাডভোকেট দেবাজিৎ দেবনাথ, অ্যাডভোকেট নাজমুস সাকিব।

তরুণ এই আইনজীবীদের মধ্যে অ্যাডভোকেট জামিউল হক ফয়সাল নিকলী সদর ইউনিয়নের পূর্বগ্রামের সন্তান। সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবী জামিউল হক ফয়সাল নিকলী সদর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট এ এম ছলিমুল হক এর ছেলে।

সোমবার (১৯ আগস্ট) বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে মিন্নির জামিন আবেদনের শুনানি শুরু হয়। মঙ্গলবার (২০ আগস্ট) পর্যন্ত এই মামলার শুনানি মুলতবি রাখা হয়।

জামিন শুনানিতে জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জেডআই খান পান্নার নেতৃত্বে অ্যাডভোকেট জামিউল হক ফয়সাল সহ আইনজীবী প্যানেলের অন্য আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।

এ বিষয়ে অ্যাডভোকেট জেড আই খান পান্না বলেন, ‘যে মুহূর্তে শুনেছি বরগুনার আদালতে মিন্নির পক্ষে কোনো আইনজীবী দাঁড়াননি, তখন থেকেই আমরা তাকে আইনি সহযোগিতা দেয়ার সিদ্ধান্ত নেই। একটি অসহায় মেয়ের পক্ষে আমরা আইনি লড়াই করছি, এটাই আত্মতৃপ্তি। এ কাজে আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে আইন ও সালিশ কেন্দ্র এবং ব্লাস্ট।’

গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে রিফাত শরীফকে। তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি হামলাকারীদের সঙ্গে লড়াই করেও তাদের দমাতে পারেননি।

গুরুতর আহত রিফাতকে ওইদিন বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখ ও পাঁচ-ছয় জনকে অজ্ঞাত আসামি করে বরগুনা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় প্রথমে মিন্নিকে সাক্ষী হিসেবে দেখানো হয়।

পরে ১৬ জুলাই সকাল পৌনে ১০টার দিকে মিন্নিকে তার বাবার বাড়ি বরগুনা পৌর শহরের নয়াকাটা-মাইঠা এলাকা থেকে পুলিশ লাইনে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে আসা হয়। এরপর দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদ শেষে রাত ৯টায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

পরদিন (১৭ জুলাই) মিন্নিকে বরগুনার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করা হলে বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ড শেষ হওয়ার আগেই মিন্নি ১৬৪ ধারায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

বরগুনার আদালতে মিন্নির জামিন আবেদন জানালেও তার জামিন মেলেনি। নিম্ন আদালতে ব্যর্থ হয়ে হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন মিন্নির আইনজীবীরা।

গত ৮ই আগস্ট বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেন ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ মিন্নির জামিন আবেদন ফেরত দেন। হাইকোর্ট জামিন না দিয়ে রুল জারির ইচ্ছা প্রকাশ করলে মিন্নির আইনজীবীরা জামিন আবেদন ফেরত নেন।

পরে রোববার (১৮ আগস্ট) মিন্নির জামিন চেয়ে অন্য একটি বেঞ্চে আবেদন দাখিল করেন তার আইনজীবী।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর