কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ফুটফুটে শিশুটিকে ফেলে রাখা হয়েছিল হাসপাতালের সিঁড়িতে


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৬:০৮ | এক্সক্লুসিভ 


কিশোরগঞ্জ নিউজ, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯: মায়ের উষ্ণতায় বেড়ে ওঠার কথা ছিলো ফুলের মতোই ফুটফুটে নবজাতকটির। তবে মায়াবি চেহারার সদ্যোজাত এই শিশুটিকে জন্মের পরই দেখতে হয়েছে নিষ্ঠুরতা আর নির্মমতা। আনুমানিক ১৫ দিন বয়সী এ নবজাতক ছেলে শিশুটিকে স্বজনেরা ফেলে রেখে যায় কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের সিঁড়িতে। নবজাতকের কান্নার শব্দে হাসপাতালে রোগির সাথে আসা আনোয়ারা নামে এক নারী মাতৃস্নেহে কোলে তুলে নেন শিশুটিকে। তিনি হাসপাতালের নার্স-চিকিৎসকদের কাছে শিশুটিকে কেউ সিঁড়িতে ফেলে রেখে গেছে বলে জানান। ফলে পৃথিবীতে আসা নতুন এই অতিথির ঠাঁই হয় কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের নবজাতক ওয়ার্ডে।

এরপর থেকে গত ১০ দিন ধরে হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স ও আয়াদের সার্বক্ষণিক তত্ত্বাবধান আর পরম মমতায় বেড়ে ওঠছে শিশুটি। হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সুলতানা রাজিয়া সার্বক্ষণিক খোঁজখবর নিচ্ছেন শিশুটির। সেবা-শ্রুশুষার খবর নিতে গিয়ে কোলে তুলে নিচ্ছেন পরম মমতায়। মায়ের কোল হারানো শিশুটি এখন স্নেহ কুড়াচ্ছে সবার। মায়ের দুধের তৃষ্ণাও মেটাচ্ছেন হাসপাতালে সেবা নিতে আসা প্রসূতি মায়েরা। অবশেষে শিশুটির ঠিকানা হতে যাচ্ছে আজিমপুরের ‘ছোটমণি নিবাস’। সেখানে মানবিক হাতের ছোঁয়ায় বেড়ে ওঠবে ছোট্ট এ শিশুটি।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সুলতানা রাজিয়া জানান, গত ২৫শে আগস্ট বিকাল ৪টার দিকে হাসপাতালের পোস্ট অপারেটিভ কক্ষের সামনের সিঁড়িতে কাপড়ে মোড়ানো অবস্থায় শিশুটিকে দেখতে পেয়ে আনোয়ারা নামে এক নারী তাকে কোলে তুলে নেন। পরে সিঁড়িতে শিশুটিকে পাওয়ার বিষয়টি কর্তব্যরত নার্সকে জানানোর পর তারা বিষয়টি জানতে পারেন। শিশুটি অসুস্থ থাকায় তাকে হাসপাতালের নবজাতক ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। শিশুটির কোন স্বজন না থাকায় হাসপাতালে তাকে দেখাশোনার জন্য নার্স ও আয়াদের শিশুটির প্রতি সার্বক্ষণিক খেয়াল রাখতে হচ্ছে। চিকিৎসার পাশাপাশি চিকিৎসক, নার্স ও স্টাফদের পরম মমতা ও ভালোবাসায় শিশুটি এখন সুস্থ। হাসি ফুটেছে তার কচি মুখে।

ডা. সুলতানা রাজিয়া আরো জানান, তারা আদর করে শিশুটির নাম রেখেছেন- স্নিগ্ধ। ফুটফুটে শিশুটি যেন হাসপাতালে শরতের স্নিগ্ধতা ছড়িয়ে দিয়েছে। এজন্যে তিনি নিজে শিশুটির এই নাম রেখেছেন।

হাসপাতালের কর্তব্যরত নার্স হাবিবা আক্তার রিভা ও স্বপ্না রানী বর্মন জানান, শিশুটিকে সেবা-যত্ন করতে গিয়ে অন্যরকম একটা মায়া তৈরি হয়েছে। শিশুটিকে একা রেখে কোথাও তারা যেতে পারেন না। কান্নাকাটি শুরু করে দেয়। এমনও হয়েছে শিশুটিকে কোলে নিয়েই তাদের হাসপাতালে দায়িত্ব পালন করতে হয়েছে।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, হাসপাতালের সিঁড়িতে ফেলে রেখে যাওয়া নবজাতকটিকে দত্তক নেয়ার জন্য ইতোমধ্যে অনেকে আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। তাদেরকে সমাজসেবা অফিসে যোগাযোগ করতে তারা বলেছেন।

জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক কামরুজ্জামান খান জানান, এ ব্যাপারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের চিঠি পেয়ে শিশুটির ব্যাপারে তারা আদালতের নির্দেশনা চেয়েছিলেন। মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) বিকালে আদালত থেকে শিশুটিকে আজিমপুরের ‘ছোটমণি নিবাস’ এ পাঠানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বুধবার (৪ সেপ্টেম্বর) শিশুটিকে সেখানে পাঠানো হবে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর