কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


২০১৭-১৮ সালের জন্য কিশোরগঞ্জের যে পাঁচ গুণী সংস্কৃতিজন সম্মাননা পেলেন


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার, ১০:৩৬ | সংস্কৃতি 


কিশোরগঞ্জ জেলার বিগত পাঁচ বছরের গুণী সংস্কৃতিজনদের জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাতে জেলা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এমপি। জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), সিভিল সার্জন ডা. মো. হাবিবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহজাহান ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ আফজল।

অনুষ্ঠানে বিগত পাঁচ বছরের ২৬ গুণী সংস্কৃতিজনকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। সম্মাননাপ্রাপ্ত ২৬ গুণী সংস্কৃতিজনের মধ্যে ২০১৭-২০১৮ সালের জন্য পাঁচটি ক্যাটাগরিতে পাঁচ গুণী সংস্কৃতিজনকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। তারা হলেন, ম. ম. জুয়েল, কাজল দেব, জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ধনেশ পণ্ডিত এবং ফাতেমা আক্তার রত্না।

ম. ম. জুয়েল: ভরাট কণ্ঠমাধুর্যে অসাধারণ বাচনভঙ্গি ও বিশুদ্ধ উচ্চারণে কবিতা আবৃত্তি করে যিনি কবিতাকে শিল্পের সুষমায় বাক্সময় করে তোলেন, তার নাম ম.ম. জুয়েল। পিতৃ প্রদত্ত নাম মোহাঃ মাইন উদ্দিন জুয়েল হলেও তিনি কিশোরগঞ্জের সংস্কৃতি-জগতে ম.ম. জুয়েল নামেই সমধিক পরিচিত। ১৯৭০ সালের ২৭ মে ম.ম. জুয়েলের জন্ম। কিশোরগঞ্জ শহরের গৌরাঙ্গবাজার আবাসিক এলাকায় তার স্থায়ী বসবাস।

বাবা মোঃ আব্দুল গফুর সরকারি চাকরিজীবী হওয়ার কারণে স্কুলজীবন থেকেই ম.ম. জুয়েলকে বিভিন্ন বিদ্যালয়ের গণ্ডি মাড়াতে হয়। পঞ্চম শ্রেণিতে পড়াকালীন স্কুলের বার্ষিক সাংস্কৃতিক আয়োজনে ‘দইওয়ালা’ নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তার সাংস্কৃতিক যাত্রা শুরু। সেই থেকে পড়াশোনার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে নিজের অংশগ্রহণকে তিনি ত্বরান্বিত করেন। মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে তার শিল্প-সংস্কৃতির চর্চা আরও বেগবান হয়। স্কুলের বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানমালায় তিনি উপস্থিত বক্তৃতা, আবৃত্তি আর নাটকে নিয়মিত অংশগ্রহণ করতে থাকেন। অভিভাবকের সকল আশঙ্কাকে মিথ্যে প্রমাণ করে সংস্কৃতি চর্চার পাশাপাশি তিনি লেখাপড়াতেও নিজের দক্ষতা ও কৃতিত্ব প্রমাণ করেন। বিদ্যালয়ের প্রতিটি পরীক্ষায় বরাবরই তিনি অর্জন করেন অভাবনীয় সাফল্য। ফলে তাকে নিয়ে পিতা-মাতার সকল আশঙ্কা সহসাই দূরীভূত হয়। সেই থেকে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে ম.ম. জুয়েল এর অংশগ্রহণ পূর্বের তুলনায় আরও বেগবান হতে থাকে। স্থানীয় সকল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেই তার উজ্জ্বল উপস্থিতি সকলের দৃষ্টি কাড়ে। আবৃত্তি, উপস্থাপনা ও মঞ্চাভিনয়ে নির্বাধে এগিয়ে চলতে থাকে তার অভাবনীয় অগ্রযাত্রা।

বাংলাদেশের বিভিন্ন মেয়াদকালে মহামান্য রাষ্ট্রপতিগণের সম্মানে আয়োজিত বিভিন্ন অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করার বিরল সৌভাগ্য অর্জন করেন ম.ম. জুয়েল। বিভিন্ন বিভাগ, প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের আয়োজনে জাতীয় পর্যায়ের অনেক অনুষ্ঠানে উপস্থাপকের দায়িত্ব পালন করে তিনি প্রতিবারই নন্দিত ও প্রশংসিত হন। একজন নাট্যাভিনেতা ও নাট্য নির্দেশক হিসেবে তিনি জাতীয় নাট্যোৎসবে যেমন অংশ নিয়েছেন, তেমনি দেশের বাইরেও নাট্যাভিনেতা হিসেবে দর্শকদের ভূয়সী প্রশংসা অর্জন করেন। তার রচিত দুটো মঞ্চনাটক যথাক্রমে ‘মশামাছির উপদ্রব’ ও ‘স্বর্গ ভেঙ্গে সাম্য’ একাধিকবার তার নির্দেশনায় মঞ্চায়িত হয়েছে। সংস্কৃতির সকল শাখাতেই তার পদচারণা থাকলেও একজন সফল আবৃত্তিকার হিসেবে তিনি নিজেকে অনন্য উচ্চতায় তুলে ধরেছেন।

ম.ম. জুয়েল আবৃত্তিকে মানুষের মনন ও মানসিকতা পরিবর্তনে ইতিবাচক শিল্পমাধ্যম হিসেবে গড়ে তোলার জন্য নিবিড়ভাবে চর্চা চালিয়ে যাচ্ছেন। যার ফলশ্রুতি হিসেবে তিনি গড়ে তুলেছেন আবৃত্তি সংগঠন ‘চন্দ্রাবতী আবৃত্তি পরিষদ’ ও ‘সুবর্ণকথন’ নামক আবৃত্তি চর্চা প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তিনি নতুন প্রজন্মের আবৃত্তিশিল্পী গড়ে তোলার ক্ষেত্রে নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছেন।

আবৃত্তিশিল্পে অসাধারণ অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৭-২০১৮ সালে আবৃত্তি ক্যাটাগরিতে ম.ম. জুয়েলকে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

কাজল দেব: গত শতকরে ষাটরে দশকে নতিান্ত কশৈাের–উর্ত্তীণ  বয়স থকেে সঙ্গীতরে সাথে আষ্টপেৃষ্ঠে জড়য়িে আছনে কন্ঠশল্পিী কাজল দবে। ১৯৬৭ সালে অষ্টম শ্রেণিতে অধ্যয়নকালে তিনি তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তান সরকার কর্তৃক শিক্ষা সপ্তাহ পালন উপলক্ষে আয়োজিত সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় নজরুল সঙ্গীত ও লোকগীতিতে জাতীয় পর্যায়ে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেন। সেই সাফল্যের পর তাকে আর পেছনে তাকাতে হয়নি। সঙ্গীতের ক্ষেত্রে একের পর এক তিনি অভাবনীয় কৃতিত্ব প্রদর্শন করতে থাকেন। ষাট দশকের মধ্যবর্তী সময়কালের সেই কীর্তিমান সঙ্গীতশিল্পী কাজল দেবের জন্ম ১৯৫৫ সালের ১৬ এপ্রিল। কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মারিয়া উইনিয়নের বগাদিয়া গ্রামে। মায়ের নাম চরুবালা দেব, বাবার নাম পরেশ চন্দ্র দেব।

স্বাধীনতা-পূর্ব উত্তুঙ্গ রাজনৈতিক আবহে পুরো দেশ যখন বাঙালির স্বাধিকার ও স্বায়ত্বশাসন প্রশ্নে উত্তাল, সেই কঠিন বাস্তবতায় দাঁড়িয়েও তরুণ কাজল দেব তার ভরাট কন্ঠে জাগরণীমূলক গান গেয়ে কিশোরগঞ্জের মুক্তিপাগল সাধারণ মানুষের মনে সাহস ও উদ্দীপনার বারুদ ছড়িয়ে দিয়েছিলেন।

শিল্পী কাজল দেব গত নব্বই দশকে উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী, কিশোরগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। তার সঙ্গীত পরিচালনায় ‘চন্দ্রাবতী’ ‘কান্দে সুজন বিরহে’ ‘বীরাঙ্গনা সখিনা’ (কমলা সুন্দরী) ও ‘চেতনায় একাত্তর’ নামক নৃত্যনাট্যের অনেকগুলো প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। নাটকে সঙ্গীত পরিচালক ও শিল্পী হিসেবে কাজল দেবের অগ্রগণ্য ভূমিকা ছিল। শিল্পী কাজল দেব বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করেন। ক্ল্যাসিক্যাল সঙ্গীতের প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।
সঙ্গীত ক্ষেত্রে অসাধারণ অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৭-২০১৮ সালে সঙ্গীত ক্যাটাগরিতে কণ্ঠশিল্পী কাজল দেবকে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

জাহাঙ্গীর আলম জাহান: একজন সফল ছড়াকার হিসেবে সমাদৃত হলেও সাহিত্যের প্রায় প্রতিটি শাখাতেই জাহাঙ্গীর আলম জাহানের অবাধ বিচরণ রয়েছে। গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ ও গবেষণায় ইতোমধ্যেই নিজের যোগ্যতা প্রমাণ করেছেন তিনি। বিভিন্ন বিষয়ে এ পর্যন্ত তার ৪২টি বই প্রকাশ পেয়েছে। তার মধ্যে রয়েছে ৪টি সম্পাদিত গ্রন্থ এবং ১৬টি ছড়াগ্রন্থ। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ে ৩টি ও লোকজ সংস্কৃতির গবেষণাধর্মী বই রয়েছে আরও ৪টি।

পিতার চাকরিসূত্রে ১৯৬০ সালের ১২ এপ্রিল কুমিল্লার ময়নামতিতে জন্ম নেন জাহাঙ্গীর আলম জাহান। পৈতৃক ঠিকানা কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার লতিবাবাদ ইউনিয়নের কাটাবাড়িয়া গ্রাম। তার পিতা মোঃ জমশেদ আলী একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং ‘৭১-এর অকুতোভয় শহিদ। মায়ের নাম লুৎফুন্নেছা বেগম। জাহাঙ্গীর আলম জাহান দীর্ঘ চার দশক যাবৎ কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ এলাকায় স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন।

তিনি স্বাধীনতা-উত্তর ১৯৭৩ সালে নিতান্ত কিশোর বয়সে সাহিত্যে হাতেখড়ি নেন। সত্তর দশকের শেষে দৈনিক সংবাদ পত্রিকার ‘খেলাঘর’ বিভাগে ছড়া প্রকাশের মধ্য দিয়ে জাতীয় পত্রিকায় তার অভিষেক ঘটে। ছড়া রচনায় তার ঈর্ষণীয় সাফল্য এবং ছড়ায় অদ্ভুত মোচর বা ম্যাজিক সৃষ্টির কুশলতা তাকে একজন সফল ছড়াকারের মর্যাদা এনে দিয়েছে। নির্ভুল ছন্দ, ব্যতিক্রমী অন্ত্যমিল ও বিষয়বস্তুর অভিনবত্ব দিয়ে তিনি ছড়াকে পাঠকপ্রিয় সাহিত্য-মাধ্যমে উন্নীত করার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভূমিকা রেখে চলেছেন।

ছড়ার বাইরে একজন শেকড়-সন্ধানী ইতিহাস সংগ্রাহক ও লোকজ-সংস্কৃতির সমঝদার গবেষক হিসেবেও জাহাঙ্গীর আলম জাহান নিজের কর্মকুশলতা প্রমাণ করেছেন। মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় হানাদার পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ও তাদের এদেশিয় দোসরদের হাতে নিহত নিরীহ বাঙালিদের তথ্য সংগ্রহ করে শহিদদের ছবিসহ ২০০১ সালে প্রকাশ পায় তার ৫ শত পৃষ্ঠার প্রামাণ্য বই ‘রক্তে ভেজা কিশোরগঞ্জ’। এরপর ২০১০ সালে ঢাকার গতিধারা প্রকাশনী থেকে প্রকাশ পায় মুক্তিযুদ্ধের আরও একটি ঢাউস আকৃতির প্রামাণ্য বই ‘কিশোরগঞ্জ জেলার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস’। ২০১৩ সালে প্রকাশ পায় মুক্তিযুদ্ধকালীন স্মৃতিচারণমূলক বই ‘স্মৃতিময় একাত্তর: লড়াকু শৈশব’। মুক্তিযুদ্ধ ছাড়াও তিনি লোকজ সংস্কৃতির বিলুপ্তপ্রায় বিভিন্ন অনুসঙ্গ নিয়ে শ্রমসাধ্য প্রচুর কাজ করেছেন। তিনি বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও সাহিত্য সংগঠনের সাথে সক্রিয়ভাবে যুক্ত আছেন।

লোক-সংস্কৃতির গবেষণায় অনন্য অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে লোক-সংস্কৃতি গবেষক জাহাঙ্গীর আলম জাহানকে ২০১৭-২০১৮ সালের জন্য লোক-সংস্কৃতি ক্যাটাগরিতে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

ধনেশ পণ্ডিত: কিশোরগঞ্জের নৃত্যজগতে এক সুপরিচিত নাম ধনেশ পণ্ডিত। লোকজ ও ক্ল্যাসিকেল নৃত্যের ক্ষেত্রে তিনি যথেষ্ঠ সুখ্যাতি অর্জন করেছেন। ১৯৬৫ সালের ১ মার্চ কিশোরগঞ্জ শহরের শোলাকিয়া (স্টেশন রোড) এলাকায় তার জন্ম। ১৯৭৯ সালে তদানীন্তন কিশোরগঞ্জ মহকুমা আর্টস কাউন্সিলের (বর্তমানে জেলা শিল্পকলা একাডেমি) সঙ্গীত বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে ধনেশ পণ্ডিত ওস্তাদ যোগেশ দাস ও ওস্তাদ নারায়ণ দেবের কাছে নৃত্যশিক্ষা শুরু করেন। পরবর্তী সময়ে একজন কুশলী নৃত্যশিল্পী হিসেবে এ জেলার প্রায় প্রতিটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে তাকে নৃত্য পরিবেশন করতে দেখা যায়।

তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশনের ‘ক’ তালিকাভুক্ত একজন নৃত্যশিল্পী। বাংলাদেশ সরকারের সাংস্কৃতিক দলের সাথে তিনি সরকারি পর্যায়ে রাশিয়া সফরের সুযোগ লাভ করেছিলেন। এছাড়া বেসরকারি পর্যায়েও ভারত ও রাশিয়ায় সফর করার সুযোগ পান। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে একক ও ডুয়েট নৃত্য পরিবেশন ছাড়াও শিল্পী ধনেশ পণ্ডিত অনেক নৃত্যনাট্যে কেন্দ্রীয় চরিত্রে রূপারোপ করেন।

নৃত্যশিল্পে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৭-২০১৮ সালে নৃত্যশিল্পী ধনেশ পণ্ডিতকে নৃত্যকলা ক্যাটাগরিতে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।

ফাতেমা আক্তার রত্না: তান্ত শিশু বয়সে যাত্রামঞ্চে বালক চরিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে যাত্রা জগতে আত্মপ্রকাশ করেন গত শতাব্দীর আশি দশকের উজ্জল যাত্রাভিনেত্রী ফাতেমা আক্তার রত্না। কিশোরগঞ্জ শহরতলীর যশোদল ইউনিয়নের মণিপুরঘাট এলাকায় তার বর্তমান আবাস। ১৯৬৮ সানের ১২ মে কিশোরগঞ্জ শহরের রেলস্টেশনের পার্শ্ববর্তী সিদ্ধেশ্বরীঘাট এলাকায় জন্ম নেয়া ফাতেমা আক্তার রত্নার মায়ের নাম ফুলজান বিবি, বাবার নাম মোঃ গোলাম হোসেন। ব্যক্তিগত জীবনে রত্না বিবাহিতা ও এক পুত্রসন্তানের জননী। তার স্বামীর নাম- মোঃ আবদুল বাতেন।

অভিনয়ের শুরুতে যাত্রামঞ্চে বালক চরিত্রে রূপারোপের মধ্য দিয়ে যাত্রাশিল্পে তার অভিষেক ঘটলেও কৈশোর বয়স থেকে তিনি যাত্রার একজন নৃত্যশিল্পী হিসাবে আবির্ভূত হন। ধীরে ধীরে অভিনয়-নৈপুণ্যের কারণে যাত্রাপালার সহ-নায়িকা এবং পরবর্তী সময়ে নায়িকা চরিত্রে রূপারোপ করেন। তিনি একজন পেশাদার যাত্রশিল্পী। দেশের অনেক যাত্রাদলে পেশাদার অভিনেত্রী হিসেবে কাজ করেছেন। যে সকল দলে তিনি সংযুক্ত ছিলেন তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে-সাতক্ষীরা জেলার নউ প্রবাস অপেরা, মানিকগঞ্জ জেলার প্রগতি অপেরা, গণেশ অপেরা, নেত্রকোনা জেলার বন্ধন অপেরা, রকি অপেরা ও নবরঞ্জন অপেরা। ২০০১ সালে তিনি পিয়াস যাত্রা ইউনিট নামে একটি যাত্রদল গঠন করেন (লাইসেন্স নম্বর: কিশ-০১/২০০১)। এ দলের পরিচালক স্বত্ত্বাধিকারী তিনি নিজে।

এ পর্যন্ত তিনি দুই শতাধিক যাত্রাপালায় অভিনয় করেছেন। তার নিজস্ব যাত্রাদলের মাধমে যে সকল যাত্রাপালা মঞ্চায়িত হয়েছে তার মধ্যে উল্লেঅখযোগ্য-জানোয়ার, হারানো সুর, দেবী সুলতানা, অনুসন্ধান, অচল পয়সা, ভিখারী ঈশ্বর, বিষে ডাকাত, তাজমহল, নবাব সিরাজউদ্দৌলা, মা মাটি মানুষ, স্বামীর চিতা জ্বলছে, চরিত্রহীন ইত্যাদি।

ফাতেমা আক্তার রত্না এক সময় যাত্রামঞ্চে সঙ্গীতও পরিবেশন করতেন। তার সুকণ্ঠে গীত শুনে দর্শক শ্রোতারা অপার মুগ্ধতা নিয়ে বাড়ি ফিরতো। রত্নার অভিনয়শৈলী আর মন মাতানো গানের ঝংকার আজো অনেকের চোখের তারায় লেপ্টে আছে। গেঁথে আছে কর্ণকুহরে।

অভিনয় জীবনে তিনি দর্শকদের দ্বারা বহুবার নন্দিত ও প্রশংসিত হয়েছেন। নিরলস অভিনয়, নির্দেশনা ও যাত্রাদল পরিচালনার মাধ্যমে যাত্রাশিল্পে অসাধারণ ভূমিকা রাখার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১৭-২০১৮ সালে প্রথিতযশা যাত্রাশিল্পী ফাতেমা আক্তার রত্নাকে যাত্রাশিল্প ক্যাটাগরিতে ‘জেলা শিল্পকলা একাডেমি সম্মাননা’য় ভূষিত করা হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর