কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে এইডস্ বিষয়ক সচেতনতামূলক সভা


 সোহেল সাশ্রু, ভৈরব | ১৮ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার, ১:৩২ | ভৈরব 


ভৈরবে এইচআইভি/এইডস্ প্রতিরোধে এক সচেতনতামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার (১৭ নভেম্বর) দুপুরে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হলরুমে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি নামের একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা সভাটির আয়োজন করে।

সভায় মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন সংস্থার ভৈরব সাব ডিআইসির ইনচার্জ মো. শরীফুল ইসলাম। প্রবন্ধের উপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধান অতিথি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বুলবুল আহমেদ বলেন, এইডস্ একটি ভাইরাস জনিত রোগ। যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ধ্বংস করে দেয়। তাই এইডস্ আক্রান্ত হওয়ার আগে এইডস্ প্রতিরোধে আমাদের সচেতন হতে হবে।

তিনি তাঁর বক্তব্যে আরও বলেন, অধিকাংশ এইচআইভি আক্রান্ত ব্যক্তি অনেকদিন পর্যন্ত লক্ষণহীন অবস্থায় থাকেন। এমন কি তারা জানতেও পারেন না যে তারা এইচআইভি-তে আক্রান্ত। লক্ষণহীন এইসব ব্যক্তিরা এইচআইভি ছড়াতে পারেন। একমাত্র রক্ত পরীক্ষা ছাড়া কোন ব্যক্তির দেহে এই ভাইরাস আছে কিনা তা জানার উপায় নাই।

এইডস্ যেহেতু আক্রান্তের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ধ্বংস করে দেয়, তাই অন্যান্য রোগের জীবানু সহজেই শরীরে প্রবেশ করে নানা রোগের সৃষ্টি করে। তিনি এইডস্ প্রতিরোধে নিরাপদ যৌন সঙ্গম, রক্ত আদান-প্রদানে নিয়মনীতি মেনে চলার পরামর্শ দেন তাঁর বক্তব্যে।

সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. কেএনএম জাহাঙ্গীর বলেন, বাংলাদেশে প্রথম এইচআইভি পজিটিভ সনাক্ত হয় ১৯৮৯ সালে। সাধারণ জনগণের মধ্যে এইচআইভি এর সংক্রমণ খুবই নগন্য। ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর মাঝে এইচআইভি সংক্রমণের হার ১% এর নীচে।

ইনজেকশনের মাধ্যমে নেশা গ্রহণকারী, যৌনকর্মী ও তাদের খদ্দের এবং হিজড়াদের মাঝে এইচআইভি আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাদের এইচআইভি বিষয়ে তাদের অধিক সচেতন করে তুলতে হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. রাইনা মাসলুন বলেন, এইচআইভি অনিরাপদ যৌন মিলন, রক্তের সংস্পর্শে এবং আক্রান্ত মা থেকে শিশুতে সংক্রমণ হতে পারে। তবে হাঁচি বা কাশির মাধ্যমে, স্পর্শ বা করমর্দনে, একই থালা-বাসনে একসাথে খাবার খেলে, একই পুকুরে গোসল করলে, একই পায়খানা ব্যবহার করলে, কীট পতঙ্গে যেমন মশা, মাছি ইতাদির কামড়ের মাধ্যমে এইডস ছড়ায় না।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ভৈরব থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. বাহালুল খান বাহার স্থানীয়ভাবে হিজড়াদের উৎপাত, মাদকের সাথে সংশ্লিষ্টতার কথা উল্লেখ করে বলেন, তারা যদি চায় পুলিশ প্রশাসন সমাজ সেবা অফিসের সহায়তায় তাদের পূনর্বাসনের ব্যবস্থা করবে।

সভায় জনপ্রতিনিধি, আইনজীবি, সাংবাদিক, স্বাস্থ্যকর্মী, মানবাধিকারকর্মী, হিজড়া, ইমাম শ্রেণির ৫০ জন প্রতিনিধি অংশ নেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর