কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে জেএসসি পরীক্ষায় পাসের হার ৭২.৭২ শতাংশ, ৫৯৮ জিপিএ-৫


 স্টাফ রিপোর্টার | ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, ৪:১৮ | শিক্ষা  


২০১৯ সালের জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এবার জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় কিশোরগঞ্জ জেলায় পাসের হার ৭২.৭২ শতাংশ। এর মধ্যে জেলায় মোট ৭৯টি প্রতিষ্ঠান থেকে মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫৯৮ জন।

কিশোরগঞ্জ জেলায় জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষায় এবার মোট পরীক্ষার্থী ছিল ৪৩ হাজার ৮৩৩ জন। এর মধ্যে পাস করেছে ৩১ হাজার ৮৭৭ জন। পাসের হার শতকরা ৭২.৭২ ভাগ।

প্রতিষ্ঠান ওয়ারী হিসাবে শতভাগ পাস এবং জিপিএ-৫ প্রাপ্তিতে শীর্ষস্থান দখল করেছে কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠানটি থেকে ২৩৭ জন জেএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে শতভাগ পাস করেছে। এছাড়া জেলার সর্বোচ্চ এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৫৯ জন ছাত্রী জিপিএ-৫ পেয়েছে।

শতভাগ পাস এবং জিপিএ-৫ প্রাপ্তির দিক থেকে জেলায় দ্বিতীয় হয়েছে কিশোরগঞ্জ সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টির মোট ২৩৩ জন পরীক্ষার্থীর সবাই উত্তীর্ণ হয়েছে। এর মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯৫ জন ছাত্র।

মোট ৫৪ টি জিপিএ-৫ পেয়ে জেলায় জিপিএ-৫ প্রাপ্তির দিক থেকে তৃতীয় হয়েছে কটিয়াদী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠানটি থেকে মোট ৪৩৬ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ৩৮৮ জন পাস করেছে। পাসের হার শতকরা ৮৮.৯৯ ভাগ।

কিশোরগঞ্জ শহরের কিশোরগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৩১ জন ছাত্রী জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৪৩০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৪২২ জন পাস করেছে। পাসের হার ৯৮.১৪ শতাংশ।

পাকুন্দিয়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মোট ১৭ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ২৯৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৮৩ জন পাস করেছে। পাসের হার ৯৬.৫৯ শতাংশ।

কিশোরগঞ্জ শহরের কিশোরগঞ্জ জেলা আইডিয়াল স্কুল থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৫ জন। বিদ্যালয়টির ১২২ জন পরীক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সবাই পাস করেছে।

কিশোরগঞ্জ শহরের জেলা স্মরণী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৪ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ১৮৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৭৫ জন পাস করেছে। পাসের হার ৯৩.৫৮ শতাংশ।

বাজিতপুরের আফতাব উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার মোট ১৩ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৩৫৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩৫৪ জন পাস করেছে। পাসের হার ৯৮.৮৮ শতাংশ।

ভৈরব সরকারি কেবি পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৩ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৫৩২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৪৫৪ জন পাস করেছে। পাসের হার ৮৫.৩৪ শতাংশ।

ইটনার সরকারি মহেশ চন্দ্র মডেল শিক্ষা নিকেতন থেকে ১১ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ২৫৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৫০ জন পাস করেছে। পাসের হার ৯৭.২৮ শতাংশ।

কটিয়াদী পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১১ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ২১৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৬২ জন পাস করেছে। পাসের হার ৭৬.০৬ শতাংশ।

কুলিয়ারচর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৯ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ৩৮১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৯০ জন পাস করেছে। পাসের হার ৭৬.১২ শতাংশ।

কিশোরগঞ্জ সদরের মহিনন্দ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮ জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। বিদ্যালয়টির ২০১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৯০ জন পাস করেছে। পাসের হার ৯৪.৫৩ শতাংশ।

কটিয়াদী পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি হোসেনপুর মডেল পাইলট স্কুল এন্ড কলেজ, ভৈরবের কমলপুর হাজী জহির উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়, তাড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় এবং পাকুন্দিয়ার এমডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৭ জন করে পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে।

বাজিতপুরের নাজিরুল ইসলাম কলেজিয়েট স্কুল এবং পাকুন্দিয়ার আছিয়া বারী আদর্শ বিদ্যালয় থেকে ৬ জন করে পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে।

পাকুন্দিয়ার চরটেকী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, ভৈরব এমপি পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, কুলিয়ারচরের লক্ষ্মীপুর দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় এবং হোসেনপুরের মেছেড়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৫ জন করে পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর