কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নিয়াজ মোহাম্মদ খান স্যার— একজন শিক্ষকের যেমন হওয়া চাই


 মোশারফ হোসেন | ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার, ১:২৩ | রকমারি 


নিয়াজ মোহাম্মদ খান স্যার- আমার প্রাইমারি স্কুল শিক্ষক। তবে ছাত্র-শিক্ষক মহলে স্যার 'নিয়াজ স্যার' নামেই পরিচিত ছিলেন। চতুর্থ শ্রেণি থেকে পঞ্চম শ্রেণিতে উঠলাম, আর স্যারও প্রধান শিক্ষক হিসেবে আমাদের গ্রামের 'খারকোট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়' এ যোগদান করলেন।

স্যারের প্রথম ক্লাস, কিন্তু ক্লাসের ফার্স্ট বয় আমি ঐ দিন স্কুলে অনুপস্থিত! পরদিন ক্লাসে এসে জানতে পারলাম, স্যার তার ক্লাসে আমার খোঁজ নিয়েছেন। যাই হোক, পরদিন স্যারের সাথে আমার প্রথম ক্লাসের স্মৃতি খুব একটা মনে নেই। কিন্তু স্যারের এমন কিছু কর্মময় স্মৃতি আছে, যা আমার জীবনকে করেছে সমৃদ্ধ, আমাকে যুগিয়েছে মানুষ হওয়ার পাথেয়।

স্যার শুরুতেই সিলেকশন করলেন- কোন কোন ছাত্র-ছাত্রী প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে। ফার্স্ট বয় হিসেবে স্বাভাবিকভাবেই তালিকায় প্রথম নাম আসল আমার। পাঁচ জনের মত ছাত্র-ছাত্রী নিয়ে গঠিত হল বৃত্তি পরীক্ষার্থীদের ব্যাচ। যথারীতি শুরু হল স্যারের নেতৃত্বে বৃত্তি পরীক্ষার স্পেশাল কোচিং।

এখানে বলে রাখা ভাল, স্যার আলাদা করে কোচিং করানোর জন্য আমাদের কাছ থেকে একটি টাকাও নিতেন না! কিন্তু স্যারকে প্রচণ্ড ভয় পেতাম, কারণ স্যার আমাদেরকে অসম্ভব পেটাতেন, বিশেষ করে আমাকে।

স্যার ডান হাতে একাধিক আঙুলে আংটি পরতেন। আংটি পরা হাতে স্যারের মারের একটা স্টাইল ছিল- কানে ধরে হেঁচকা টান দিয়ে ঠাস করে গালে কড়া চড় বসিয়ে দিতেন। স্যারের এই মারের আতিশয্যে বৃত্তি কোচিংয়ে শেষ পর্যন্ত সর্বাধিক সংখ্যক ছাত্র-ছাত্রী ঝরে পড়ল। টিকে থাকলাম- ফার্স্ট বয় আমি আর সেকেন্ড বয় আমার মামাতো ভাই আতাউর!

কিন্তু স্যারের মার এবং রুদ্রমূর্তি চাহনির ভয়ে প্রায়ই ক্লাস এবং কোচিং ফাঁকি দেওয়ার চেষ্টা করতাম। একদিন নিজের হাতঘড়ির কাঁটা দেড় ঘন্টা পিছিয়ে দিয়ে স্কুলের সময়ে বাড়িতে ঘুমাচ্ছিলাম।

স্কুল শুরু হওয়ার আধা ঘন্টার মধ্যেই স্যার আমাদের বাড়িতে আমার এক সহপাঠীকে পাঠিয়ে দিলেন- আমি কেন স্কুলে যাইনি তা জানতে ও তাড়াতাড়ি স্কুলে যেতে আমাকে তাড়া দিতে। আমি ভয়ে ভয়ে স্কুলে গেলাম এবং স্যারকে কোনোরকম বুঝাতে সক্ষম হলাম যে, আমার ঘড়ির টাইম ঠিক ছিল না!

এভাবে কিছুদিন গেল। স্যার জ্ঞানী মানুষ, বুঝতে পারলেন- আমরা ফাঁকি দিচ্ছি। তাই উনি আমাদেরকে নির্দেশ দিলেন- এখন থেকে প্রতিদিন স্কুলের নিয়মিত ক্লাস ও কোচিংয়ের পাশাপাশি ভোরে ফজরের নামাজের পরে পাশের গ্রাম তুলাই শিমুলে স্যারের বাড়িতে (স্যারের বাড়ি ও আমাদের বাড়ির দুরত্ব প্রায় দেড় কিলোমিটার) গিয়ে পড়তে হবে।

আদেশ শিরোধার্য! প্রতিদিন ফজরের নামাজের পরে আমার দাদা (মরহুম) আমাকে ডেকে দিতেন স্যারের বাড়িতে গিয়ে কোচিং করতে। সে যে কীরকম অসহ্য যন্ত্রণা মনে হত! মনে মনে বলতাম- ‘কবে ক্লাস সিক্সয়ে উঠবো, আর এই যন্ত্রণা থেকে রেহাই পাবো!’

একদিন ভোরে কোচিংয়ে যাওয়ার সময় আমি আর আমার সেই মামাতো ভাই মাঝপথে গিয়ে কুট বুদ্ধি বের করলাম- ‘চল বাড়ী ফিরে যাই! আজকে আর পড়তে না যাই! বাড়িতে গিয়ে বলব, পথিমধ্যে স্যারের গ্রামের এক ছেলে বলেছে যে, স্যার বাড়িতে নেই, বিশেষ কাজে হঠাৎ আখাউড়া চলে গেছেন; তাই আজকে পড়াবেন না।’ মামাতো ভাই সায় দিলেন। তাইরে নাইরে করতে করতে দুই ভাই ফিরে আসলাম বাড়িতে।

প্ল্যান যা করেছিলাম আব্বা-আম্মাকে তা-ই বললাম এবং সহজেই পার পেয়ে গেলাম। কিন্তু উত্তর ভিটার ঘর থেকে দক্ষিণ ভিটার ঘরে (আমার পড়ার ঘর) আসতে না আসতেই স্যার আমাদের বাড়িতে হাজির!

আব্বা আমাকে স্যারের সামনে ডেকে আনলেন। নিজের অপরাধের আশু শাস্তির দৃশ্যপট কল্পনা করে অবনত মস্তকে ভয়ার্ত চেহারায় স্যারের সামনে গিয়ে দাড়ালাম! স্যার জানতে চাইলেন, কেন আজ কোচিংয়ে যাইনি।

আমরা দুই ভাই পরিকল্পিত উত্তরই দিলাম। জবাবে স্যার বললেন, ‘সোজা এক দৌড়ে এখনি কোচিংয়ে যাও!' যে আদেশ সেই কাজ! দুই ভাই আবার দেড় কিলোমিটার হেটে স্যারের বাড়ি গেলাম এবং যথারীতি কোচিং শেষ করেই আসতে হল ঐ দিন।

বার্ষিক পরীক্ষা শেষ করলাম। শেষে চলে আসল বৃত্তি পরীক্ষার প্রথম দিন। আমি পরীক্ষা দিচ্ছি, আর পরীক্ষা কেন্দ্রের বাহিরে আমার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন আমার মা আর স্যার।

যথারীতি প্রথম পরীক্ষা শেষ হল, আর আমরা ক্ষুদে পরীক্ষার্থীরা একে একে বের হয়ে আসছি পরীক্ষা কেন্দ্র থেকে। আমার মায়ের মুখ থেকে শুনা- স্যার নাকি তখন হন্যে হয়ে আমাকে খোঁজছিলেন, আর বার বার বলছিলেন, ‘কই কই আমার মোশারফ কই?’

আজও অনেকের সাথে স্যারের এই পরম মমতা-মাখা কথাগুলো সুযোগ পেলেই শেয়ার করি। কিন্তু যতবার যতজনের কাছে এই কথাগুলো বলি, আমার গায়ে কাঁটা দিয়ে ওঠে, চোখ দুটি ছলছল করে ওঠে—  শ্রদ্ধায়, কৃতজ্ঞতায়, ভালোবাসায়!

স্যার আমাকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখতেন। নিজের সন্তানের মত আদর দিয়ে, শাসন দিয়ে পড়াতেন, যাতে আমাকে নিয়ে দেখা তার স্বপ্নগুলো পূরণ করতে পারি। আর এই স্বপ্নের প্রথম ধাপ ছিল আমাকে প্রাথমিক (পঞ্চম শ্রেণির) বৃত্তি পাইয়ে দেওয়া। কিন্তু আমি পারিনি, আমি আমার সেই মহান স্যারের প্রথম স্বপ্ন পূরণ করতে পারিনি- অবহেলা আর ফাঁকিবাজিতে দিন কাটানোয় আমি প্রাথমিক বৃত্তি পাইনি।

এভাবেই উঠে গেলাম ক্লাস সিক্সয়ে। কিন্তু আমার স্যার হতাশ হননি, হালও ছাড়েননি। স্যার বলেছিলেন, ‘মোশারফ প্রাথমিক বৃত্তি পাইনি তো কী হয়েছে, জুনিয়র (অষ্টম শ্রেণির) বৃত্তি সে ঠিকই পাবে!’

এভাবেই দূরে থেকেও স্যার আমাকে সাহস যুগিয়েছেন, বাড়িয়েছেন মনোবল। আমি স্যারের কিছুটা মান রাখতে পেরেছিলাম— আমি অষ্টম শ্রেণিতে বৃত্তি পেয়েছিলাম। এসএসসিতে স্টার মার্ক্সসহ প্রথম বিভাগে পাশ করেছি। এইচএসসিতেও পেয়েছি  প্রথম বিভাগ। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের বিবিএ এবং এমবিএ ডিগ্রিতেও মেধাতালিকার প্রথম দিকেই ছিল আমার অবস্থান।

বিসিএস ক্যাডার, ডাক্তার কিংবা ইঞ্জিনিয়ার হতে পারিনি। অত বড় কিছু হওয়ার যোগ্যতা, স্বপ্ন-সাহসও ছিল না আমার। তবে গ্রামের দরিদ্র পরিবারের সাধারণ সন্তান হিসেবে ভালো কিছু হওয়ার ক্ষুধা কাজ করেছে সব সময়। আর ক্ষুধাতুর বীজটি বুনে দিয়েছিলেন প্রিয় নিয়াজ স্যারই।

শেষমেশ প্রথম প্রজন্মের বেসরকারি ব্যাংক 'ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড' সুযোগ দিলেন কর্মজীবনের। বর্তমানে ন্যাশনাল ব্যাংকেই চাকরি করছি শাখা ব্যবস্থাপক হিসেবে। দেড় বছর আগে আরেক বেসরকারি ব্যাংক মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেডের ‘এমবিএল ইয়াং ব্যাংকার্স এ্যাপ্রিসিয়েশন এওয়ার্ড-২০১৮’ প্রতিযোগিতায় দেশের সেরা দশ ইয়াং ব্যাংকারদের একজন হিসেবে মনোনীত হয়েছি। ইতিমধ্যে একাধিক বাংলা-ইংরেজি জাতীয় দৈনিকে আমার অর্ধশতের মত নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। স্বপ্ন দেখছি- ব্যাংকিং নিয়ে উচ্চতর গবেষণার ও বই প্রকাশনার।

আমার জীবনের এসব ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র অর্জনের প্রতিটি মহান স্রষ্টার অসীম দয়া ও মহানুভবতা। কিন্তু যখনই পিছনের দিনগুলোতে ফিরে তাকাই, তখনই দেখতে পাই- আমি তো পরিত্যক্ত মাটির আধলা ছিলাম, কারো প্রয়োজনে ছিলাম অপ্রয়োজনীয়।

আমাকে ভেঙ্গেচুরে পাকা ইটের রুপ দিয়েছেন 'মানুষ গড়ার নিঃস্বার্থ কারিগর- প্রিয় নিয়াজ মোহাম্মদ খান স্যার'। কী হতে চেয়েছি, কী হতে পেরেছি- সেটা বড় কথা নয়। আমি অনেক বড় কিছু হয়ে যাইনি, সেটাও মানি। যতটুকু হতে পেরেছি সেটার যোগ্যও আমি নই। তবে যতটুকু হতে পেরেছি তার সবটারই আর্কিট্যাক্ট আমার প্রিয় ‘নিয়াজ মোহাম্মদ খান স্যার’।

আজকের অনেক শিক্ষকের মাঝেই খুঁজে পাই  না প্রিয় সেই নিয়াজ স্যারকে। বর্তমানের অনেক শিক্ষকের বিরুদ্ধেই শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণের অভিযোগ উঠছে। ছাত্র-ছাত্রীদের শাসনের নামে প্রাণঘাতী হয়ে উঠছেন কোনো কোনো শিক্ষক। শিক্ষার্থীদের মেধা, মনুষ্যত্ব ও মানসিক বিকাশে সহায়ক না হয়ে প্রতিবন্ধক হচ্ছেন কেউ কেউ। ধর্ষণের মত অতি নিকৃষ্ট ও পাপাচারী কর্মেও কোনো কোনো শিক্ষক নিজেদের নাম জড়িয়ে নিচ্ছেন।

কিন্তু নিয়াজ মোহাম্মদ খান স্যার শিক্ষকতা এবং ছাত্র-শিক্ষক সম্পর্ককে নিয়ে গেছেন অনন্য এক উচ্চতায়। স্যার প্রমাণ করে গেছেন- ছাত্র আর সন্তানে কোনো তফাৎ নেই। শিক্ষার বাণিজ্য নয়; সততা, উদারতা ও ত্যাগের আদর্শ প্রতিষ্ঠিত করে গেছেন। ছাত্র-ছাত্রীর মাঝেই নিজেকে বাঁচিয়ে রাখার নিঃস্বার্থ ও নির্লোভ প্রয়াস দেখিয়েছেন সবসময়। এই নিয়াজ স্যারেরা তাই কেবল ছাত্রদেরই আদর্শ নয়, বর্তমান ও আগামীর শিক্ষকদেরও আদর্শ। কামনা করি, আজকের সব শিক্ষকরাই সবার প্রিয় 'নিয়াজ স্যার' হয়ে উঠুক।

শুনেছি- বছর খানেক আগে স্যার অবসরে চলে গেছেন। স্যার অবসরে গেলেও স্যারের যত্ন ও পিতৃস্নেহে তাড়িত সুশিক্ষার সুদক্ষ কারিগরিতে গড়া হাজারো ছাত্র-ছাত্রীরা রয়ে গেছেন, রয়ে যাবেন- স্যারের কর্ম, সৃষ্টি, স্বপ্ন ও আদর্শকে যুগ থেকে যুগান্তরে পৌঁছে দিতে। স্যারের অবসর জীবন শান্তিময় হোক। পরম করুণাময় আল্লাহর কাছে স্যারের সুস্থতা ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি।

শিক্ষকের ঠিকানাঃ নিয়াজ মোহাম্মদ খান, গ্রাম- তুলাই শিমুল, ডাকঘর- কর্ণেল বাজার, উপজেলা- আখাউড়া, জেলা- ব্রাহ্মণবাড়িয়া।

(লেখকঃ মোশারফ হোসেন, ব্যবস্থাপক, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, পাকুন্দিয়া শাখা, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ, মোবাইল: ০১৭১৯-৬০৫২৭০, ইমেইল: mosharafmau.200117@gmail.com

পড়াশোনাঃ এমবিএ (মার্কেটিং) এবং বিবিএ (মার্কেটিং), চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

পেশাগত ডিগ্রিঃ ডিএআইবিবি

পেশাগত স্বীকৃতিঃ বেসরকারি ব্যাংক মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেডের ‘এমবিএল ইয়াং ব্যাংকার্স এ্যাপ্রিসিয়েশন এওয়ার্ড-২০১৮’ প্রতিযোগিতায় দেশের সেরা দশ ইয়াং ব্যাংকারদের একজন হিসেবে মনোনীত হয়েছেন।

লেখালেখিঃ এ পর্যন্ত (১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২০)  বণিক বার্তা, যুগান্তর, সমকাল, নয়া দিগন্ত, শেয়ার বিজ, Daily Sun, New Age, New Nation, Daily Observer,   বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম এ লেখকের ৪৪ টি নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। স্বপ্ন দেখছেন, ব্যাংকিং নিয়ে উচ্চতর গবেষণার ও বই প্রকাশনার।)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর