কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জের সন্তান ভারতীয় ফুটবল নক্ষত্র চুনি গোস্বামী আর নেই


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ১ মে ২০২০, শুক্রবার, ১:৫৫ | রকমারি 


জীবনযুদ্ধের লড়াইয়ে ইতি টেনে তারাদের দেশে চলে গেলেন প্রবাদপ্রতিম ফুটবলার চুনি গোস্বামী। ৮২ বছর বয়সে বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) বিকাল পাঁচটায় কোলকাতার একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন এই ফুটবল কিংবদন্তী।

দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন চুনি গোস্বামী। বৃহস্পতিবার (৩০ এপ্রিল) যোধপুর পার্কের নিজের ফ্ল্যাটে পরিবারের সঙ্গেই ছিলেন তিনি। দুপুরের দিকে হঠাৎই বুকে ব্যাথা অনুভব করেন।

তড়িঘড়ি তাঁকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। চলছিল চিকিৎসা। কিন্তু বিকেলের দিকে সব যুদ্ধ শেষ হয়ে যায়। সেই সময় উপস্থিত ছিলেন স্ত্রী এবং ছেলে।

ক্রীড়াক্ষেত্রে বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী ছিলেন চুনি গোস্বামী৷ শুধু ফুটবল নয়, ক্রিকেট এবং টেনিসেও সমান পারদর্শী ছিলেন তিনি৷ বাংলার হয়ে প্রথমশ্রেণির ক্রিকেটের পাশাপাশি টেনিসেও ব়্যাকেট হাতে তাঁর প্রতিভা প্রশংসা কুড়িয়েছে৷ ১৯৬২ সালে এশিয়ান গেমসে সোনাজয়ী ভারতীয় ফুটবল দলকে নেতৃত্বে দিয়েছিলেন তিনি৷

তাঁর অধিনায়কত্বে ভারতীয় ফুটবল দল ১৯৬২ এশিয়ান গেমসে সোনা জেতা ছাড়াও ১৯৬৪ সালে এশিয়ান কাপে রানার্স হয়েছিল৷ জাতীয় দলকে নেতৃত্বে দেওয়ার পাশাপাশি ক্লাব ফুটবলে তাঁর প্রিয় মোহনবাগানের হয়ে খেলেছেন চুনি গোস্বামী।

চুনি গোস্বামী বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার যশোদল ইউনিয়নের গোস্বামী পাড়ায় (গোসাইপাড়া) ১৯৩৮ সালের ১৫ জানুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর আসল নাম সুবিমল গোস্বামী এবং পিতার নাম প্রমাথনাথ গোস্বামী।

পারিবারিক ঐতিহ্য অনুযায়ী, সাড়ে তিন বছর বয়সে চৌলকর্ম সম্পাদনের পর পারিবারিক পরিবেশে তাঁর পড়ালেখার হাতেখড়ি হয়। কিছুদিন গৃহে গুরুর কাছে অধ্যয়নের পর ও পাঠশালার পাঠ শেষ করে আজিম উদ্দিন হাই ইংলিশ স্কুলে তিনি তৃতীয় শ্রেণিতে ভর্তি হন।

ছোটবেলা থেকেই চুনি গোস্বামীর ফুটবলের প্রতি প্রচণ্ড ঝোঁক ছিল। আজিম উদ্দিন স্কুলের মাঠে খেলার মধ্য দিয়ে তাঁর খেলোয়াড় জীবনে প্রবেশ ঘটে। ১৯৪৬ সালে তাঁরা সপরিবারে দেশত্যাগ করেন।

মাত্র সাড়ে ৮ বছর বয়সে মোহনবাগান জুনিয়র দলের হয়ে পথ চলা শুরু করেন চুনি গোস্বামী। ১৯৪৬-১৯৫৪ জুনিয়র দলের হয়ে খেলার পর ১৯৫৪ সালে মোহনবাগানের হয়েই সিনিয়র ফুটবলে ক্যারিয়ার শুরু হয় তাঁর। বর্ণময় ফুটবল ক্যারিয়ারে ক্লাব ফুটবলের পাশাপাশি স্মরণীয় হয়ে থাকবে কিংবদন্তীর জাতীয় দলের হয়ে অমর ফুটবল কীর্তিগুলোও।

জাতীয় দলে মাত্র ৮ বছরের সংক্ষিপ্ত ক্যারিয়ারে ৫০ ম্যাচ খেলেছিলেন সুবিমল ওরফে চুনি গোস্বামী। ভারতীয় দলের জার্সিতে ৯টি গোল করা প্রবাদপ্রতিম এই স্ট্রাইকার ক্লাব ক্যারিয়ারে আজীবন খেলেছেন মোহনবাগানের হয়ে।

১৯৫৪-৬৮ সময়কালে মোহনবাগানের হয়ে খেলার সময় একাধিক ক্লাবের লোভনীয় প্রস্তাব থাকা সত্ত্বেও মোহনবাগান থেকে কখনও চুনি গোস্বামীকে টলাতে পারেনি কেউ। বিশ্বমানের স্ট্রাইকার চুনির ফুটবল প্রতিভার ব্যপ্তি ছড়িয়ে পড়েছিল বিদেশেও।

একবার মোহনবাগানের ঘরের ছেলের কাছে ইংলিশ ফুটবল ক্লাব টটেনহ্যাম হটস্পারেরও অফার এসেছিল বলেও খবর। তাতেও সাড়া দেননি তিনি।

১৯৫৬ সালে চীনের অলিম্পিক দলের বিরুদ্ধে জাতীয় দলের হয়ে অভিষেক হয়েছিল চুনি গোস্বামীর। জোড়া এশিয়ান গেমস (১৯৫৮, ১৯৬২), রোম অলিম্পিক (১৯৬০), এশিয়া কাপ, মারডেকা কাপের মত আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টেও জাতীয় ফুটবল দলের হয়ে ফুটবল খেলেছেন স্ট্রাইকার চুনি।

১৯৬২ জাতীয় দলের জার্সিতে তাঁর সবচেয়ে উজ্জ্বলতম বছর। ওই বছরই তাঁর অধিনায়কত্বে জাকার্তা এশিয়াডে সোনা জেতে ভারত। একই বছর চুনি’র মুকুটে যোগ হয় এক অনন্য পালক। ১৯৬২ এশিয়ার সেরা স্ট্রাইকারের তকমা ছিনিয়ে নিয়েছিলেন তিনি।

মাত্র ২৮ বছর বয়সে ১৯৬৪ সালে জাতীয় দল থেকে অবসর গ্রহণের পর মোহনবাগানের জার্সিতে আরও ৪ বছর চুটিয়ে ফুটবল খেলেছিলেন তিনি। ১৯৬৮ মোহনবাগানের জার্সি গায়েই ক্লাব ফুটবলকে বিদায় জানান ভারতীয় ফুটবলের সর্বকালের অন্যতম সেরা স্ট্রাইকার।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর