কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


দ্বিতীয় ভোটযুদ্ধে মুখোমুখি কুলিয়ারচরের দুই মেয়র প্রার্থী


 মুহাম্মদ শাহ্ আলম, কুলিয়ারচর | ৯ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৫:১১ | নির্বাচনী হালফিল 


দ্বিতীয় ধাপে আগামী ১৬ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর পৌরসভার ভোটগ্রহণ। ইভিএম এর মাধ্যমে অনুষ্ঠেয় এ নির্বাচনকে ঘিরে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা প্রচার প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন।

প্রার্থী ও তাদের কর্মী সমর্থকরা সততা, নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে পৌরবাসীর সেবা করার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। পৌর এলাকার চা এর দোকানগুলোতে সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত চায়ের কাপে ঝড় তুলছেন ভোটার সমর্থকরা। কে হতে যাচ্ছেন কুলিয়ারচরের পৌর মেয়র ও কাউন্সিলর? এ নিয়ে চলছে নানা বিশ্লেষণ।

গত ৩০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ হওয়ার পর থেকে কুলিয়ারচর পৌর এলাকায় প্রতিটি পাড়া-মহল্লায়, হাট-বাজারে প্রার্থীদের প্রতীক সম্বলিত নির্ধারিত কালার এবং মাপে পোস্টার ও ব্যানারে ছেয়ে গেছে হাট-বাজার ও পাড়া-মহল্লা।

প্রচণ্ড শীত উপেক্ষা করে কাক ডাকা ভোর হতে গভীর রাত পর্যন্ত প্রার্থীরা নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণসংযোগ করে ভোটারদের নিকট গিয়ে কুশল বিনিময় করে ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছেন। এছাড়া দোয়া চেয়ে বেড়াচ্ছেন ছোট বড় সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের কাছে।

বসে নেই প্রার্থীদের আত্মীয়স্বজন ও কর্মী-সমর্থকরাও। সমান তালে পরিশ্রম করে যাচ্ছেন বিজয় নিজেদের পক্ষে আনার জন্যে।

নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ছাড়া অন্য কোন দল বা স্বতন্ত্র থেকে আর কোন প্রার্থী না থাকায় সেই সাথে দলীয় প্রতীকে মেয়র পদে নির্বাচন হওয়ায় এবার মেয়র পদে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে বলে জানিয়েছেন ভোটারগণ।

এছাড়া স্থানীয়ভাবে এ দুই মেয়র প্রার্থীরই রয়েছে দীর্ঘ রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা ও পরিচ্ছন্ন ইমেজ। তবে সাধারণ ভোটারগণ তাকিয়ে আছেন সর্বশেষ নির্বাচনের পরিস্থিতির দিকে। ভোটারগণ শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট প্রদানের অপেক্ষায় রয়েছেন।

গত ৩০ ডিসেম্বর বিকালে বৈধ মোট ৫৫ জন প্রার্থীর মধ্যে মেয়র পদে ২ জন, সংরক্ষিত আসনে মহিলা কাউন্সিলর পদে ১২ জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪১ জন প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়।

তাদের মধ্যে মেয়র পদে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী, সাবেক উছমানপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ হাসান সারওয়ার মহসিন নৌকা এবং  বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাবেক পৌর মেয়র নূরুল মিল্লাত ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এর আগে এই দুই প্রার্থী কুলিয়ারচর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। এই পৌর নির্বাচনের মধ্য দিয়ে দুই মেয়র প্রার্থীর এটি দ্বিতীয় মুখোমুখি ভোটযুদ্ধ। ফলে পৌরবাসী ছাড়াও উপজেলাবাসী অধীর আগ্রহে তাকিয়ে আছে ১৬ জানুয়ারির ভোটের দিকে।

এর আগে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন গত ২০ ডিসেম্বর বিকাল ৫ ঘটিকা পর্যন্ত সহকারী রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ শফিকুল আলমের নিকট মেয়র, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৫৬ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন।

পরে গত ২২ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জ জেলা নির্বাচন অফিসে যাচাই বাছাইয়ে ১ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যায়।

নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী গত ৩০ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জ জেলা নির্বাচন অফিসে প্রতিদ্বন্দ্বী মেয়র, সংরক্ষিত আসনে মহিলা কাউন্সিলর ও সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেন রিটার্নিং অফিসার ও কিশোরগঞ্জ জেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ আশ্রাফুল আলম।

ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ১৬ জানুয়ারি। ভোট গ্রহণের দিন সকাল ৮টা হইতে বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে একটানা ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

এবছর পৌর সভায় মোট ২৫ হাজার ১৪৩ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে পছন্দমতো প্রার্থীকে নির্বাচিত করবেন। এর মধ্যে ১২ হাজার ৬০০ জন পুরুষ ও ১২ হাজার ৫৪৩ জন মহিলা ভোটার ইভিএম-এর মাধ্যমে ভোট প্রদান করবেন।

নির্বাচন প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী সৈয়দ হাসান সারওয়ার মহসিন নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদ ব্যক্ত করে এ প্রতিনিধিকে বলেন, সুন্দর পরিবেশে নির্বাচনের প্রচার প্রচারণা চলছে। নির্বাচনকে কেন্দ্রে করে উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হবে। উন্নয়ন একটি চলমান প্রক্রিয়া, আমি নির্বাচিত হলে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত থাকবে এবং পৌরসভার অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করবো।

এদিকে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী নূরুল মিল্লাত বলেন, ভালভাবেই নির্বাচনে প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছি। এখন পর্যন্ত কোন ধরনের বিপত্তি ঘটে নাই। শান্তিপূর্ণভাবে ভোট দিতে পারলে আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত, ইনশাল্লাহ্। ইভিএম আমাদের জন্য নতুন। ভোটারদের কোন প্রশিক্ষণ নাই। আশা করি এই ব্যাপারে নির্বাচন কমিশন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। নির্বাচিত হলে সকলের সহযোগিতায় নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করবো।

পৌর এলাকার ৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মেহেদী হাসান রুপু বলেন, আমরা ভয়, পেশীশক্তি ও কারচুপিমুক্ত নির্বাচনে ভোট প্রদান করতে চাই। কারণ কারচুপি'র মাধ্যমে নির্বাচনে বিজয়ীদের জনগণের নিকট কোন জবাবদিহিতা বা দায়বদ্ধতা থাকে না। ফলে জনগণ প্রতারিত হয়।

নির্বাচন প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন করার জন্য প্রয়োজনীয় সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

ইভিএম বিষয়ে ভোটারদের সচেতন করার জন্য প্রতিদিন উপজেলা নির্বাচন অফিসের নিচে ইভিএম প্রদর্শন করা হচ্ছে। এছাড়া আগামী ১৪ তারিখ প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে মক ভোটিং অনুষ্ঠিত হবে ভোটারদের প্রশিক্ষণের জন্যে। ১২ ও ১৩ জানুয়ারি জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার সহ স্থানীয় সিভিল ও পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।’

নির্বাচনে সংরক্ষিত আসনে মহিলা কাউন্সিলর পদে ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ড থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ফারজানা আক্তার (আনারস), রহিমা (চশমা), কৃষ্ণা রানী দাস (জবা ফুল) ও সুমা আক্তার (টেলিফোন)।

৪, ৫ ও ৬ নং ওয়ার্ড থেকে ইয়াছমিন (আনারস), সুরাইয়া আক্তার (চশমা) ও মোছা. আছমা আক্তার (টেলিফোন)।

৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ড থেকে মোছা. ইভা বেগম (চশমা), রীনা রানী সুত্রধর (জবা ফুল), আয়শা (আনারস), মোসা. নাজমা বেগম (অটোরিকশা) ও মোছা. শামীমা আক্তার (টেলিফোন) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১নং ওয়ার্ড থেকে মো. হাবিবুর রহমান (গাজর), মো. মজনু মিয়া (উট পাখি), মো. সোহেল রানা (পানির বোতল) ও মো. অহিদ মিয়া (পাঞ্জাবি)। ২নং ওয়ার্ড থেকে মো. অলি উল্লাহ্ (পানির বোতল) ও মো. হুমায়ুন কবির (উট পাখি)।

৩ নং ওয়ার্ড থেকে দিলীপ দাস (ডালিম), নন্দলাল দাস (উট পাখি), মনোরঞ্জন দাস (পানির বোতল), নবকুমার দাস (পাঞ্জাবি) ও শ্রীকৃষ্ণ দাস (গাজর)। ৪নং ওয়ার্ড থেকে মো. আরমান মিয়া (উট পাখি), মো. সেলিম মিয়া (পানির বোতল) ও পারভেজ মিয়া (পাঞ্জাবি)।

৫নং ওয়ার্ড থেকে মো. আতিকুর রহমান 'পরশ' (পাঞ্জাবি), মো. দেলোয়ার হোসেন (ডালিম), মো. শাহজাহান (পানির বোতল), সাইফুল ইসলাম (উট পাখি), মো. ফরহাদ হোসেন (টেবিল ল্যাম্প) ও মো. শিশু মিয়া (ব্রিজ)।

৬নং ওয়ার্ড থেকে মো. মেরাজ খন্দকার (ডালিম), মো. মুখলেছুর রহমান ভূঁইয়া (টেবিল ল্যাম্প), মো. হেলাল উদ্দিন ভূঞা (উট পাখি), ইলিয়াছ মিয়া (পানির বোতল), নূর আলম মিয়া (পাঞ্জাবি) ও মো. মন্টু মিয়া (ব্রিজ)।

৭নং ওয়ার্ড থেকে কাজী রফিকুল ইসলাম (টেবিল ল্যাম্প), মো. জুয়েল মিয়া (উট পাখি), জামাল উদ্দিন (পাঞ্জাবি) ও মো. হারিছ উদ্দিন (পানির বোতল)। ৮নং থেকে মো. হাফিজুর রহমান (উট পাখি), লুৎফর রহমান (গাজর), মো. নুরুল ইসলাম ভূঞা (পাঞ্জাবি), অহিদ ভুইয়া (পানির বোতল), মো. শহিদুল ইসলাম (টেবিল ল্যাম্প) ও মো. জজ মিয়া (ব্রিজ)।

৯নং থেকে সৈয়দ কানন (পানির বোতল), সৈয়দ সাইফুর রহমান (পাঞ্জাবি), মো. সোয়েব মিয়া 'রোমান' (উট পাখি), সৈয়দ এরশাদ উজ্জামান (টেবিল ল্যাম্প) ও মো. উমেদ আলী (ডালিম) নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর