kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

টানা ৬ষ্ঠ বারের মতো শতভাগ পাশে উজ্জ্বল পাকুন্দিয়ার আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয়


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৭ মে ২০১৮, সোমবার, ৪:২৪ | শিক্ষা  


টানা ষষ্ঠবারের মতো এসএসসি পরীক্ষায় শতভাগ পাশের অনন্য কৃতিত্ব দেখালো পাকুন্দিয়া উপজেলার মঠখোলা আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয়। বিদ্যালয়টি থেকে এবার ৪৬ জন পরীক্ষা দিয়ে পাশ করেছে। এর মধ্যে ১৯জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছে। শতভাগ পাশের দিক থেকে প্রতিষ্ঠানটি উপজেলায় একমাত্র এবং জেলার মাত্র চারটি প্রতিষ্ঠানের একটি।

এর আগে ২০১৩ সালে এসএসসি পরীক্ষায় প্রথমবারের মতো প্রতিষ্ঠানটি অংশ নিয়েই শতভাগ পাশ প্রতিষ্ঠানের কাতারে নাম লেখায়। ওই বছর ১৭ জন পরীক্ষা দিয়ে জিপিএ-৫সহ ১৭ জনই পাশ করে। এরপর থেকেই এসএসসি পরীক্ষায় ধারাবাহিক সাফল্য দেখিয়ে আসছে প্রতিষ্ঠানটি।

২০১৪ সালে বিদ্যালয়ের ২৮জন পরীক্ষার্থীর সবাই পাশ ছাড়াও মধ্যে ১১ জন জিপিএ-৫ পায়। ২০১৫ সালে ৩২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে সবাই পাশ করে। এর মধ্যে ১৫জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পায়। ২০১৬ সালে প্রতিষ্ঠানটি থেকে শতভাগ পরীক্ষার্থী কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয়। ২৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৪জন জিপিএ-৫ পায়। এর ধারাবাহিকতায় ২০১৭ সালেও বিদ্যালয়টি থেকে ৩৯ জন শিক্ষার্থী এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সবাই পাশ করে। এর মধ্যে ২৪ জন পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পায়।

বিদ্যালয়টির এই অনন্য অর্জন শুধু পাকুন্দিয়া উপজেলাতেই নয়, পুরো কিশোরগঞ্জ জেলায় আলোড়ন সৃষ্টি করেছে। ২০০১ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকেই বিদ্যালয়টি ঈর্ষণীয় ফলাফল দেখিয়ে আসছে। ফলে প্রত্যন্ত গ্রামের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর শিক্ষার্থীদের মাঝে মানসম্মত শিক্ষা প্রদানের মাধ্যমে তাদের অদম্য মেধাবী হয়ে ওঠতে প্রতিষ্ঠানটি সহায়তা করছে। এতে করে গ্রাম ও শহরের শিক্ষার বৈষম্য দূরীকরণে বিদ্যালয়টি ভূমিকা রাখছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মঠখোলা আছিয়া বারি আদর্শ বিদ্যালয়টি ইউনাইটেড ট্রাস্ট্রের পরিচালক আহম্মেদ ইসমাঈল হোসেনের পৃষ্টপোষকতায় পরিচালিত হয়ে আসছে। মঠখোলা হাজী জাফরআলী কলেজেরও প্রতিষ্ঠাতা তিনি। এই ট্রাষ্টের অধীনে একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ও রয়েছে। সমন্বয়কারীর দায়িত্বে আছেন প্রভাষক আতাউর রহমান সোহেল।

বিদ্যালয়টি অজপাড়া গাঁয়ে প্রতিষ্ঠিত হলেও শহরের পরিবেশের সাথে তাল মিলিয়ে অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে। ট্রাস্ট্রের অর্থায়নে নির্মিত হয়েছে ৪ তলা ভবন। ২০১৫ সালে এই ভবনটিতে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু করা হয়। এছাড়া রয়েছে পুরাতন একটি হাফ বিল্ডিং ভবন। প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষকসহ মেধাবী শিক্ষকগণ বিদ্যালয়ের মানোন্নয়নের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। সরকারি সুযোগ-সুবিধার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে বিদ্যালয়ের শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা দেয়া হচ্ছে। যদিও শিক্ষার্থীদের বেতন ফি’তে প্রতিষ্ঠানের ২-১ দিনের খরচ চালানোও সম্ভব নয় বলে জানা গেছে।

প্রধান শিক্ষক এম হুমায়ুন কবীর জানান, বিদ্যালয়ের প্রত্যেক শিক্ষকই নিরলসভাবে শিক্ষার্থীদের পরিচর্যা করেন। সাপ্তাহিক পাঠ পরিকল্পনায় নিয়মিত ক্লাশ নেওয়া ছাড়াও এখানে নেয়া হয় পাক্ষিক পরীক্ষা। শিক্ষার্থীদের বাইরে প্রাইভেট পড়ায় কড়াকড়ি নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। নেয়া হয় বিশেষ ক্লাশ। এছাড়া যে বিষয়ে শিক্ষার্থীরা পিছিয়ে পড়ে, সেই বিষয়টিকে পরবর্তী পাঠ পরিকল্পনার সূচীতে প্রাধান্য দেয়া হয়। এসব কারণে ফলাফলের ধারাবাহিকতা বজায় রাখা সম্ভব হচ্ছে বলেও তিনি জানান।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ