কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জ সদরে করোনায় আরো একজনের মৃত্যু, মোট মৃত্যু ৫, মোট শনাক্ত ২৭৪


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ২৮ জুন ২০২০, রবিবার, ১:০০ | কিশোরগঞ্জ সদর 



কিশোরগঞ্জ জেলায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসে নতুন রোগী শনাক্তের সংখ্যা। এর মধ্যে ভৈরব উপজেলার অবস্থা জেলার মধ্যে সবচেয়ে নাজুক। এরপরেই রয়েছে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা।

সর্বশেষ শনিবার (২৭ জুন) দিবাগত রাতে পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা নতুন করে ৫ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এই পাঁচজনের মধ্যে মারা যাওয়া একজন নারী রয়েছেন।

ফলে এ পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ২৭৪ জনের শরীরে করোনা ধরা পড়েছে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৭৪ জন। মারা গেছেন ৫ জন।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে সর্বশেষ মারা যাওয়া নারীর নাম খাদিজা আক্তার (৩০)। তিনি গত ১৯ জুন বিকাল ৪টার দিকে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার যশোদল ইউনিয়নের ভাবুন্দিয়া গ্রামের পিত্রালয়ে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যান।

মারা যাওয়ার পর করোনাভাইরাস সন্দেহে ওইদিনই তার নমুনা সংগ্রহ করেছিল সদর উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। শনিবার (২৭ জুন) দিবাগত রাতে পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে তার কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

করোনায় মারা যাওয়া খাদিজা আক্তার কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার যশোদল ইউনিয়নের ভাবুন্দিয়া গ্রামের মুজিবুর রহমানের কন্যা। তার স্বামীর বাড়ি করিমগঞ্জে।

খাদিজা আক্তার স্বামী এবং দুই সন্তানকে সাথে নিয়ে ঢাকায় বসবাস করতেন। সম্প্রতি তার মধ্যে করোনা ভাইরাসের উপসর্গ দেখা দিলে দিন গত ১৪ জুন বাবার বাড়ি যশোদলের ভাবুন্দিয়া গ্রামে আসেন। সেখানেই করোনা উপসর্গ নিয়ে গত ১৯ জুন বিকাল ৪টার দিকে খাদিজা মারা যান।

শুক্রবার (২৬ জুন) পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা ছিল ২৬৯ জন। শনিবার (২৭ জুন) নতুন করে আরো ৫ জনের করোনা শনাক্ত হওয়ায় বর্তমানে শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৭৪ জনে।

মোট শনাক্ত এই ২৭৪ জনের মধ্যে পাঁচজন মৃত ব্যক্তি রয়েছে। তাদের মধ্যে একজন শনাক্ত হওয়ার পর আইসোলেশনে থাকা অবস্থায় এবং বাকি চারজনেরই মারা যাওয়ার পর করোনা শনাক্ত হয়েছে।

করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হওয়ার পর মারা যাওয়া ব্যক্তি হলেন, জেলা তাবলীগ জামাতের শূরা সদস্য শহরের বড়বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাজী আলী আকবর মলাই (৭৫)। গত ৭ জুন দিবাগত রাতে তাঁর কোভিড-১৯ পজেটিভ আসার পর ৮ জুন ভোর ৪টার দিকে কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসোলেশনে থাকা অবস্থায় তিনি মারা যান।

এছাড়া মৃত বাকি চারজনের মধ্যে গত ১৭ এপ্রিল কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের বড়বাজার টেনু সাহার গলি এলাকার নিতাই (৬০), গত ২৮ মে সদর উপজেলার লতিবাবাদ ইউনিয়নের অষ্টবর্গ গ্রামের তারা মিয়া (৪৫), গত ২ জুন সদর উপজেলার কাটাবাড়িয়া গ্রামের রাবিয়া আক্তার  এবং সর্বশেষ যশোদল ইউনিয়নের ভাবুন্দিয়া গ্রামের খাদিজা আক্তার মারা যাওয়ার পর তাদের নমুনায় কোভিড-১৯ পজেটিভ আসে।

বাকি ২৬৯ জনের মধ্যে ইতোমধ্যে ৭৪ জন করোনাভাইরাস মুক্ত হয়ে সুস্থ হয়েছেন। এছাড়া অন্যরা হাসপাতাল ও বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর