কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মাত্র ৮ বছর বয়সেই কোরআনে হাফেজ মুয়াজ


 মাহমুদুল হাসান | ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৬:৪৮ | ইসলাম 


আবরারুল হক মুয়াজ। বয়স মাত্র আট বছর পেরিয়েছে। এ বয়সেই বাবার কাছে হিফজ পড়ে পুরো কোরআন মুখস্ত করে বিস্ময় জাগিয়েছে। পরিবারের সবাই তার এই সাফল্যে আনন্দিত ও গর্বিত।

মুয়াজ কিশোরগঞ্জ জেলার ইটনা উপজেলার এলংজুড়ি ইউনিয়নের ছিলনী গ্রামের হাফেজ মাওলা মাহবুবুর রহমানের ছেলে।

হাফেজ মুয়াজ বর্তমানে কিশোরগঞ্জ শহরের উকিলপাড়ায় অবস্থিত মাদরাসায়ে দ্বীনিয়্যাহ’র ছাত্র।

তার বাবা হাফেজ মাওলানা মাহবুবুর রহমান জানান, মুয়াজকে নিয়ে একদিন ঐতিহাসিক শহীদী মসজিদ প্রাঙ্গণে প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হিফজুল কোরআন প্রতিযোগিতায় যাই। মুয়াজ সেখানে ছোট ছোট বাচ্চাদের কোরআন তিলাওয়াত তন্ময় হয়ে শোনে।

বাসায় এসে বাবা-মা কে খুব দ্রুতই সে হাফেজ বলে আশ্বাস্ত করে।

পবিত্র কোরআন হিফজ শুরু করার কিছুদিন পরেই বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ বেড়ে যায়। কিন্তু থেমে থাকেনি মুয়াজ।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার সময়টাতে বাসায় তার মায়ের কাছে পড়তে থাকে। তার রত্নগর্ভা মা  একজন হাফেজা ও আলেমা। এভাবেই সে আজ হাফেজ হয়ে আমাদেরকে গর্বিত করেছে।

হাফেজ মাওলানা মাহবুবুর রহমান বলেন, মুয়াজের হাফেজ হওয়ার পিছনে তার মায়ের অসামান্য অবদান রয়েছে। তার মা একজন তাহাজ্জুদ গুজারি, তার মা মুয়াজকে কোলে নিয়ে নিয়মিত কোরআন পড়তেন। মুয়াজ তন্ময় হয়ে শুনত।

মুয়াজের অল্প বয়সে হাফেজ হওয়া নিয়ে আনন্দিত তার গ্রামবাসীও। হাওরের কাঁদা মাটিতে জন্ম নেয়া মুয়াজ গ্রামের গৌরব এনেছে বলেন মন্তব্য করেন তার গ্রামের বাসিন্দারা।

একজন আদর্শবান হাফেজ হিসেবে যেন মুয়াজ সর্বদা দ্বীনের খেদমত করতে পারে, এ জন্য মুয়াজের পরিবারের পক্ষ থেকে দেশবাসীর কাছে দোয়া চাওয়া হয়েছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর