কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


৪৯ বছর পর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা চাচার কবর খুঁজে পেলেন ভাতিজি


 রাজীব সরকার পলাশ | ২৬ মার্চ ২০২১, শুক্রবার, ৬:১৪ | এক্সক্লুসিভ 



আনোয়ার হোসেন। কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার মসূয়া ইউনিয়নের প্রেমারচর গ্রামের মোঃ আব্দুল মজিদের পুত্র। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে গিয়ে শহীদ হন তিনি। ৪৯ বছর পর শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেনের কবর খুঁজে পেয়েছেন তাঁর ভাতিজি রেহানা আক্তার।

স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা, এলাকাবাসী এবং ছোট ভাই মসূয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান  বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম শামছুদ্দিন (বাচ্চু) জানান, আনোয়ার হোসেন সাত ভাই-বোনের মধ্যে সবার বড় ছিলেন।

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি ও তাঁর ছোট ভাই মুক্তিযুদ্ধের প্রশিক্ষণ নেন। ভারতের লোহারবন্দ থেকে প্রশিক্ষণ শেষে ছোট ভাই একেএম শামছুদ্দিন এলাকার যুদ্ধে অংশ নেন।

বড় ভাই আনোয়ার হোসেন কুকিরথল ক্যাম্পে সাব-সেক্টর কমান্ডার ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট আব্দুল কাদিরের অধীনে বিভিন্ন জায়গায় যুদ্ধ করেন।

১৯৭১ সালের ৩ অক্টোবর প্লাটুন কমান্ডার তজমুল আলীর নেতৃত্বে আনোয়ার হোসেনসহ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা দেশে এসে সিলেটের বড়লেখা থানার হরিপুর-বড়খলা গ্রামের বড়বন্দ হয়ে ফেঞ্চুগঞ্জ থানায় পাকিস্তানি বাহিনীর একটি ক্যাম্প দখল করার উদ্দেশ্যে রওনা দেন।

বড়লেখা থানার বাজনি ছড়া রেললাইনের কাছে আসা মাত্রই তাঁদের উপস্থিতি টের পেয়ে সশস্ত্র রাজাকার বাহিনী তাদের লক্ষ্য করে গুলি শুরু করে। এতে ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়ে দলটি।

পেছনে পড়ে পথ হারিয়ে ফেলেন আনোয়ার হোসেন। তিনি তখন একাই ফেঞ্চুগঞ্জ থানার উদ্দেশ্যে  রওনা দিয়ে গাংকুল হয়ে চানপুর এলাকায় পৌঁছান।

৪ অক্টোবর ভোরে রাজাকাররা চানপুর এলাকায় তাকে একা পেয়ে গুলি করে হত্যা করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে দরিয়া পীরের মোকামে দাফন করেন।

১৯৭১ সালে ১৬ ডিসেম্বর দেশ স্বাধীন হলে ছোট ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম শামছুদ্দিন বাড়ি ফিরে আসেন। কিছুদিন পর একজন পুলিশ কর্মকর্তার মাধ্যমে পরিবারের সদস্যরা জানতে পারেন, বড়লেখায় যুদ্ধে আনোয়ার হোসেন শহীদ হয়েছেন। তবে কোন জায়গায় শহীদ হয়েছেন তা জানতে পারেননি।

সম্প্রতি বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম শামছুদ্দিনের মেয়ে এনজিও কর্মী রেহানা আক্তার অফিসের প্রয়োজনে মৌলভীবাজার যান।

পরে তিনি তার চাচা শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেনের কবরের খোঁজে বড়লেখায় যান। বড়লেখা  উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মুহাম্মদ সিরাজ উদ্দিনসহ স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ করে  চাচার কবরের খোঁজ পান রেহানা আক্তার। পরে বিষয়টি তিনি তাঁর বাবাকে অবহিত করেন।

স্থানীয় প্রশাসন ও লোকজনের সাথে কথা বলে বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম শামছুদ্দিন (বাচ্চু) তাঁর ভাই শহীদ আনোয়ার হোসেনের কবরের পাশে যান এবং নিজ উদ্যোগে সেখানে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেন নামে একটি নামফলক স্থাপন করেন।

ছোট ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম  শামছুদ্দিন বলেন, যাঁরা আমার ভাইয়ের সাথে যুদ্ধ করেছেন এবং মৃত্যুর পর লাশটি দাফন করেছেন তাদের কয়েকজনের সাথে আমার কথা হয়েছে। নিশ্চিত হয়ে আমার ভাইয়ের স্মৃতি রক্ষার্থে ব্যক্তিগত উদ্যোগে একটি নামফলক স্থাপন করি।

আমার শেষ ইচ্ছে ছিল ভাইয়ের কবরটির সন্ধান যেন পাই। সে আশা আমার পূরণ হয়েছে। আমরা এতে ভীষণ খুশি।

বড়লেখা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মুহাম্মদ সিরাজ উদ্দিন বলেন, ৪৯ বছর পর হলেও স্বজনেরা শহীদ মুক্তিযোদ্ধার কবরের খোঁজ পেয়ে অনেক আনন্দিত হয়েছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর