কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


সন্তান নেই, মা ডাক শুনতে ২৬ বছর ধরে পুষছেন পাখি


 আগুন আমিন | ২০ আগস্ট ২০২১, শুক্রবার, ৩:১০ | ফিচার 



২৬ বছর ধরে সন্তানের মতোই পোষা পাখির কন্ঠে 'মা' ডাক শুনে আসছেন ৫০ বছর বয়সের এক নিঃসন্তান নারী। তাঁর নাম মদিনা ওরফে দিনা (৫০)। তিনি কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলার এগারসিন্দুর ইউনিয়নের দক্ষিণ খামা গ্রামের মৃত শামসুদ্দিনের মেয়ে।

গত ২৬ বছর যাবৎ তিনি সন্তানের অভাব পূরণ করতে এ পর্যন্ত ৮টি পাখি পুষেছেন তিনি। বর্তমানে দুটি পাখি পুষছেন। পাখি দুটিকে সন্তানের মতোই তাঁকে মা বলে ডাকতে শোনা যায়।

জানা যায়, ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন দিনা। বিয়ের দুই মাস পরই নতুন স্ত্রী কে বাড়িতে রেখে প্রবাসে পাড়ি জমান স্বামী।

দিনা তখন খুব একা দিন কাটাচ্ছিলেন। আর সেই একাকীত্ব ঘুচতে একটি পাখি কিনে আনলেন এবং পোষ মানাতে লাগলেন।

ধীরে ধীরে পাখিটি কথা বলতে শিখলে পাখির প্রতি দিনারও ভালোবাসা বাড়তে থাকে। একসময় দিনাকে মা বলে ডাকতে শুরু করে। পরে আরো একটি পাখি কিনে আনে দিনা। কিছুদিন পর সেই পাখিও দিনাকে চুটিয়ে মা ডাকতে শুরু করে।

দিনার স্বামী দীর্ঘ ২৫ বছর পর দেশে ফিরে এলেও দিনা কে ধরা-ছোঁয়া দেয়নি। এরপর স্বামীর সাথে দিনার সংসারের সমাপ্তি ঘটে।

দিনা তখন মধ্যবয়সী নারী। নতুন করে সংসার করার স্বপ্ন না দেখে পোষা পাখি নিয়েই সময় কাটাচ্ছেন।

দিনা বলেন, আমি নারী জাতি। সন্তানের মুখে মা ডাক শোনার ভাগ্য হল না আমার। এখন ওরাই (পাখি) আমার সন্তান। ওরা আমাকে মা বলে ডাকে।

আমি খাইলাম কি-না তা জানতে চায়, 'মা খাইছ? কী খাইছ, কও কও।'

তিনি বলেন, ওদের (পাখি) মুখে মা ডাক শুনে আমি কান্দি।

বাকি জীবন পাখির সাথে হেসে খেলে পার করতে চান দিনা।

পাখির অসুখ হলে দিনা নিজেই সেবাযত্নের মাধ্যমে সুস্থ করে তোলেন। এছাড়া সব ধরনের খাবারই খাওয়ানো শিখিয়েছেন তার পোষা পাখিগুলোকে।

দিনা ঘর থেকে বের হতেই পাখিগুলো ছোট বাচ্চাদের মতো চেঁচামেচি শুরু করে। তাই কোথাও গেলেও বেশিক্ষণ দূরে থাকতে পারেন না। পাখিদের জন্য তার মন ছটফট করে।

তিনি বলেন, আমার জরায়ুতে টিউমার হয়েছে। বেশ কিছুদিন যাবৎ এ অসুখে ভুগছি। চিকিৎসার জন্য কিশোরগঞ্জ গিয়েছিলাম। কিন্তু পাখিদের জন্য খারাপ লাগছিল তাই আর ভর্তি হইনি। কারো সহযোগিতা পেলে আরও পাখি সংগ্রহ করতে চাই। এখন দুইটা পাখি আছে।

মদিনার মা হেলেনা খাতুন বলেন, আমার মেয়ে সারাদিন এই পাখি নিয়ে খেলামেলা করে, আমার কাছে খুব ভালো লাগে। এর আগে একটি টিয়া ছিল, সেটা মারা গেছে। তখন আমার মেয়ে (দিনা) মাটিতে গড়াইয়া কানছিল। তখন আমার খুব কষ্ট লাগে।

স্থানীয় যুবলীগ নেতা আবুল কাশেম বলেন, ছোটবেলা থেকেই দেখছি দিনা আপা পাখি পোষেন। তবে এতোকিছু জানা ছিল না। শুনে অবাক লাগছে। এই বাস্তবতা যে কোনো গল্পকে হার মানাবে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর