কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

কিশোরগঞ্জে চামড়ার দাম কম, লোকসানে ব্যবসায়ীরা


 বিশেষ প্রতিনিধি | ২২ আগস্ট ২০১৮, বুধবার, ১১:৪৪ | অর্থ-বাণিজ্য 


কিশোরগঞ্জের স্থানীয় চামড়া ব্যবসায়ীরা এবার প্রত্যাশা অনুযায়ী চামড়ার দাম পাচ্ছেন না বলে জানা গেছে। বুধবার (২২ আগস্ট) কোরবানি শেষে সন্ধ্যায় শহরের পুরানথানা এলাকার চামড়ার হাট বসলেও সেখানে চামড়ার দামে মন্দাভাব দেখা গেছে। ফলে মাঠ পর্যায় থেকে সংগ্রহ করা চামড়া নিয়ে বিপাকে পড়েছেন খুচরা ও মৌসুমী ব্যবসায়ীরা।

তারা জানান, এবার তারা গতবছরের তুলনায় বেশি দামে চামড়া কিনেছেন। গত বছরের ৮শ’ টাকার চামড়া এবার তারা কিনেছেন হাজার টাকায়। অথচ ব্যবসায়ীরা প্রত্যাশা অনুযায়ী দাম বলছেন না।

বুধবার (২২ আগস্ট) সন্ধ্যার পর পুরানথানা এলাকার চামড়ার হাটে গিয়ে দেখা গেছে, জেলার অন্যতম এই চামড়ার হাট ক্রেতা-বিক্রেতার পদচারণায় সরগরম হয়ে ওঠেছে। খুচরা ব্যবসায়ীরা জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে গরু ও ছাগলের চামড়া হাটে নিয়ে এসেছেন। স্থানীয় চামড়া ব্যবসায়ীরা হাটে দরদাম করার পাশাপাশি তাদের পছন্দমাফিক দামে চামড়া কিনছেন। তবে চামড়ার বর্তমান বাজারদর নিয়ে খুচরা ব্যবসায়ীরা অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, ঢাকার বাইরে এ এলাকার চামড়া গুণে ও মানে ভালো হওয়ায় ট্যানারি ব্যবসায়ীরা বরাবরই ভালো চামড়ার খোঁজে এখানে চলে আসেন। প্রতিবছর কেবল কোরবানীর মৌসুমে এ বাজার থেকে ট্যানারি ব্যবসায়ীরা ৬০-৭০ হাজার চামড়া সংগ্রহ করেন। বিরাট এ বাজারকে কেন্দ্র করে শহরের চামড়া ব্যবসায়ী ছাড়াও বিপুল সংখ্যক মৌসুমী ব্যবসায়ী এর সঙ্গে যুক্ত হন। এবছর কেবল কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বৌলাই ইউনিয়নের চরপাড়া, কান্দা, মইশাখালী ও নয়াপাড়া গ্রামের পাঁচশতাধিক মানুষ কোরবানী মৌসুমে চামড়া ব্যবসা করছেন।

কিশোরগঞ্জের চামড়া ক্রয়বিক্রয়ের প্রাথমিক হাট পুরানথানার চামড়া হাট। এই হাট থেকে মূলত স্থানীয় অপেক্ষাকৃত বড় ব্যবসায়ীরা চামড়া কিনেন। তারা এখান থেকে চামড়া কিনে লবণ লাগিয়ে সংরক্ষণের পর সেগুলো পরবর্তিতে কিশোরগঞ্জ শহরের পৌর মার্কেট সংলগ্ন চামড়ার হাটে তুলবেন। সেখান থেকে ট্যানারি ব্যবসায়ীরা চামড়া কিনে নিয়ে যাবেন।

চামড়া বিক্রেতা করিমগঞ্জের গুজাদিয়া এলাকার জহিরুল ইসলাম জানান, তিনি ৫৪টি গরুর চামড়া কিনেছেন। এই চামড়াগুলো কিনতে তিনিসহ পাঁচজন এলাকা চষে বেড়িয়েছেন। প্রতিটি ৮শ’ থেকে ১৫শ’ টাকা করে কিনেছেন। কিন্তু ব্যবসায়ীরা যা দাম হাঁকছেন তাতে তিনি লাভ দূরে থাক, মূলধনই তুলতে পারবেন না।

একই রকম কথা বলেছেন চামড়া বিক্রেতা মো. গেন্দু মিয়াসহ অনেকেই। চামড়ার হাট জুড়েই বিক্রেতাদের মাঝে এমন আশঙ্কার চিত্র দেখা গেছে।

চামড়া কিনতে আসা বৌলাই এলাকার ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন ও মো. আনোয়ার মিয়া জানালেন, প্রতিটি চামড়া সংরক্ষণ করতে ৫/৭ কেজি লবন লাগে। অর্থাৎ, চামড়া কেনার পর আরো বিনিয়োগ করতে হয়। চামড়ার সংরক্ষণ বাবদ কমপক্ষে দেড়শ’ টাকা তাদের খরচ হয়। যে কারণে ট্যনারি ব্যবসায়ীদের দামের সাথে মিলিয়ে তাদের হিসাব-নিকাশ করে চামড়া কিনতে হচ্ছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ