kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

ভূমি অধিগ্রহণের পাঁচ কোটি টাকা আত্মসাতে সেতাফুল রিমান্ডে



 বিশেষ প্রতিনিধি | ২৯ জানুয়ারি ২০১৮, সোমবার, ৫:৪৪ | অপরাধ 


কিশোরগঞ্জে জনগণের ভূমি অধিগ্রহণ বাবদ ক্ষতিপূরণের ৫ কোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনায় অভিযুক্ত ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা মো. সেতাফুল ইসলামকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। সোমবার শুনানি শেষে কিশোরগঞ্জের চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আঃ ছালাম খান এই রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে রোববার পিরোজপুর থেকে সেতাফুল ইসলামকে কিশোরগঞ্জ জেলা কারাগারে নিয়ে আসা হয়। সোমবার সকালে তাকে আদালতে উপস্থাপন করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়।

গত ১৭ই জানুয়ারি সন্ধ্যায় পিরোজপুর সার্কিট হাউজের সামনে থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে দুদক বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের সমন্বিত দল। ওইদিন বিকালে দুদক ময়মনসিংহ সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক রাম প্রসাদ মণ্ডল বাদী হয়ে কিশোরগঞ্জের সাবেক ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা মো. সেতাফুল ইসলামের বিরুদ্ধে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা (নং-৩১) করেন।

সোমবার আদালত থেকে রিমান্ড মঞ্জুর হওয়ার পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুদক ময়মনসিংহ সমন্বিত জেলা কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. আবদুর রহমান।

মামলার অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড কিশোরগঞ্জ জেলায় ‘হাওর এলাকার বন্যা ব্যবস্থাপনা ও জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন প্রকল্প’ এর জন্য মোট ১৪০.৩৯৯ একর ভূমি অধিগ্রহণের মূল্য বাবদ অগ্রিম হিসেবে তিনটি এলএ কেসের বিপরীতে পৃথক তিনটি চেকের মাধ্যমে মোট পাঁচ কোটি ২৫ লাখ টাকা প্রদান করে। তিনটি চেকের টাকাই চালানের মাধ্যমে ট্রেজারিতে জমা করেন ভূমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা মো. সেতাফুল ইসলাম।

পরবর্তিতে ২০১৭ সালের ৫ই ডিসেম্বর একটি ভাউচারের মাধ্যমে পাঁচ কোটি টাকার চেকে প্রাপকের নামের কলামে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তির স্থলে অবৈধভাবে ভূমি হুকুম দখল কর্মকর্তা, কিশোরগঞ্জ লিখে জেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা বরাবরে দাখিল করেন। সেতাফুল ইসলাম কর্তৃক অবৈধভাবে দাখিলকৃত এই চেকের বিপরীতে অগ্রিম সমন্বয় সংক্রান্ত প্রত্যয়নপত্র হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা বরাবরে প্রদান করেন যাতে এলএ কেসের বিপরীতে দাবিকৃত পাঁচ কোটি টাকা নগদ/চেকে বিতরণের উদ্দেশ্যে জনস্বার্থে অগ্রিম উত্তোলন বিধায় উত্তোলিত অর্থ ক্ষতিগ্রস্ত ভূমির মালিককে নগদ বিতরণের পর প্রাপ্তি স্বীকার ও মাস্টাররোলসহ প্রতিবেদন দাখিল করা হবে এবং অবিতরণকৃত টাকা এককালীন সংশ্লিষ্ট খাতে জমা করা হবে মর্মে ক্ষমতা বহির্ভূতভাবে প্রত্যয়ন প্রদান করা হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে জেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা চেকটি পাশ করে সোনালী ব্যাংক কিশোরগঞ্জ শাখায় পাঠান।

৬ই ডিসেম্বর সেতাফুল ইসলাম চেকের মাধ্যমে ব্যাংক থেকে ২ কোটি টাকা উত্তোলন ছাড়াও ৬ লাখ টাকা সোনালী ব্যাংকের বাজিতপুর শাখার গ্রাহক তপন ইন্ডাস্ট্রিজের নামে ব্যালেন্স ট্রান্সফার করেন। পরে ৭ই ডিসেম্বর আরেকটি চেকের মাধ্যমে ২ কোটি ৯৪ লাখ টাকা মো. সেতাফুল ইসলাম উত্তোলন করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ