কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

সৈয়দ আশরাফের অসুস্থতা নিয়ে সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলামের বক্তৃতায় আলোচনার ঝড়


 আশরাফুল ইসলাম, প্রধান সম্পাদক, কিশোরগঞ্জনিউজ.কম | ৫ নভেম্বর ২০১৮, সোমবার, ২:১০ | বিশেষ সংবাদ 


আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এমপি দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ। অসুস্থতার জন্য তিনি জাতীয় সংসদ থেকে ছুটিও নিয়েছেন। এ রকম পরিস্থিতিতে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ভোটার হয়েছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের দুই সহোদর ড. সৈয়দ শরীফুল ইসলাম ও ড. সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম। তাঁদের এলাকায় ভোটার হওয়ার বিষয়টি যথেষ্ঠ কৌতূহলের সৃষ্টি করে।

এর মধ্যেই জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে রোববার (৪ নভেম্বর) বিকালে শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের ছোট ভাই মেজর জেনারেল (অবসরপ্রাপ্ত) সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলাম।

আলোচনা সভায় মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলামের বক্তৃতার অনেকটা অংশ জুড়ে ছিল সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের অসুস্থতা প্রসঙ্গ।

মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলাম তাঁর বক্তৃতায় বলেন, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম গুরুতর অসুস্থ। তিনি ফুসফুসের ক্যান্সারে ভুগছেন। পরিবারের সদস্যসহ কাউকে চিনতে পারছেন না, এমনকি নিজের মেয়েকেও না। এমন পরিস্থিতিতে তার রাজনীতিতে ফিরে আসার সম্ভাবনা খুবই কম। আমরা এখন রাজনীতি নয়, তার চিকিৎসার দিকেই বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি।

তিনি আরো বলেন, ‘আমার ভাইয়ের অসুস্থতা নিয়ে অনেকেই মিথ্যা কথা বলছে। দ্রুত সুস্থ হয়ে রাজনীতিতে ফিরে আসার কথা বলছে। এসব পুরোপুরি মিথ্যা কথা। তাকে নিয়ে নানা ধরনের অপপ্রচার ও স্বার্থসিদ্ধির চক্রান্ত হচ্ছে।’

সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলাম মিথ্যা অপপ্রচারের প্রতিবাদ করে তাঁর বড় ভাইকে নিয়ে অহেতুক গুজব না ছড়াতে সবার প্রতি অনুরোধ জানান। সেই সঙ্গে তিনি সৈয়দ আশরাফের জন্য দোয়া করতে সবার প্রতি অনুরোধ করেছেন।

তিনি বলেন, তিনদিন আগে আমি ব্যাংকক থেকে এসেছি। তিনি আমাকে চিনতে পারছেন না, নিজের মেয়েকে পর্যন্ত চিনতে পারছেন না। কাউকেই চিনতে পারছেন না। তিনি গুরুতর অসুস্থ।

সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলাম বলেন, সৈয়দ আশরাফ একজনই, তিনি অপ্রতিদ্বন্দ্বী। একদিন বাংলাদেশের ইতিহাস লেখা হবে তখন তিনি সৈয়দ নজরুল ইসলামকে (তাঁদের বাবা) ছাড়িয়ে যাবেন। তিনি হবেন ইতিহাসের মহানায়ক।

শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. রুহুল আমিন খানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট কামরুল আহসান শাহজাহান, কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শফিকুল ইসলাম, কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. সুলতানা রাজিয়া, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শরীফ সাদী, জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ সম্পাদক এনায়েত করিম অমি, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক বিলকিস বেগম, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মামুন আল মাসুদ খান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এদিকে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের অসুস্থতা নিয়ে সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলামের এই বক্তব্য গণমাধ্যমে প্রচারিত হওয়ার পর বিষয়টি কিশোরগঞ্জে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়। সৎ ও স্বচ্ছ রাজনীতির আদর্শ সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের এমন গুরুতর অসুস্থতার কথা শুনে কিশোরগঞ্জ-১ আসনের মানুষের মাঝে নেমে আসে চরম বিষাদ।

অন্যদিকে সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের অসুস্থতা নিয়ে মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলামের দেয়া বক্তব্যকে অসত্য বলে দাবি করেছেন সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের আরেক সহোদর ড. সৈয়দ শরীফুল ইসলাম এবং চাচাতো ভাই অ্যাডভোকেট সৈয়দ আশফাকুল ইসলাম টিটু।

রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তাঁরা বলেন, “কিশোরগঞ্জ শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রোববার (৪ নভেম্বর) মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলাম যে বক্তব্য দিয়েছেন, তা আমাদের ও কিশোরগঞ্জের জনগণের দৃষ্টি আর্কষণ করেছে। তিনি সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সম্পর্কে যা বলেছেন, তা সবৈব মিথ্যা।

তিনি সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম সম্পর্কে কোন খোঁজখবর রাখেন না। সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের চিকিৎসাতেও তেমন কোন সহযোগিতা করেন নি। তিনি গত তিন দিন আগে থাইল্যান্ড গিয়েছিলেন তার নাতনির চিকিৎসার জন্য, সেখানে সৈয়দ আশরাফের খোঁজখবর নেয়ার জন্য যাননি।

তিনি একটি বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়ে কিশোরগঞ্জে ঘুরাফেরা করছেন। অতীতে ও বর্তমানে যারা সৈয়দ পরিবারকে ধ্বংস করার চেষ্টা করেছেন, তিনি তাদেরকে সাথে নিয়ে সৈয়দ পরিবার ধ্বংস করার ফাঁদে পা দিয়েছেন; যা অত্যন্ত নিন্দনীয়।

সৈয়দ আশরাফ অসুস্থ কিন্তু এমন অসুস্থ নন যে তাঁকে বেঁধে রাখতে হয়। তিনি কাউকে চিনতে পারেন না, এটাও সবৈব মিথ্যা। যে যতই ষড়যন্ত্র করুক না কেন, কারো এজেন্ডা বাস্তবায়ন করার জন্য মাঠে নামুক না কেন, জননেত্রীর দক্ষিণহস্ত সৈয়দ আশরাফুল ইসলামই কিশোরগঞ্জ-১ আসনে নির্বাচন করবেন, ইনশাআল্লাহ। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু।”

বিবৃতিতে আরো উল্লেখ করা হয়, “অনুষ্ঠানটি ছিল ৩রা নভেম্বর শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের স্মরণে শোকসভা। মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ শাফায়েতুল ইসলাম শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামের পুত্র। এটাও কি তিনি ভুলে গেলেন যে, শোকসভায় ফুলেল শুভেচ্ছা নেওয়া যায় না। কিশোরগঞ্জের মানুষ পিতার মৃত্যুর দিনে শোক দিবসে সহাস্যে ফুল নেওয়াতে ব্যথিত হয়েছেন। সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সকল পরিবারবর্গ ও কিশোরগঞ্জ এর জনগণ সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের জন্য ঐক্যবদ্ধ।”

 



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ