কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


চূড়ান্ত লাইসেন্স পেল কিশোরগঞ্জ ইকনোমিক জোন, গাড়ি নির্মাণ করবে টাটা


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, মঙ্গলবার, ১২:১৫ | অর্থ-বাণিজ্য 


নিটল-নিলয় গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল (কেইজেড) কে চূড়ান্ত লাইসেন্স দিয়েছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ-বেজা। সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল (কেইজেড) এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আব্দুল মুসাব্বির আহমাদ ও নিটল-নিলয় গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা আহমাদ এমপি’র হাতে সনদ তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের এসডিজি বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ।

পাকুন্দিয়া উপজেলায় পুলেরঘাটে ভৈরব-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কের দুই পাশে ৯১ দশমিক ৬৩ একর জমির উপর স্থাপিত এই অর্থনৈতিক অঞ্চলটি দেশের নবম বেসরকারি অর্থনৈতিক অঞ্চল, যা চূড়ান্ত অনুমোদন পেয়ে উৎপাদনের পথে আরও একধাপ এগিয়ে গেল। এর আগে ২০১৭ সালের ৩ জুলাই বেজা কিশোরগঞ্জ অর্থনৈতিক অঞ্চল (কেইজেড) কে প্রি-কোয়ালিফিকেশন লাইসেন্স দেয়। সব শর্ত পূরণ করায় সোমবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) চূড়ান্ত সনদপত্র (কোয়ালিফিকেশন লাইসেন্স) দেয়া হয়।

নতুন এই অর্থনৈতিক অঞ্চলটিতে ইতোমধ্যে ভারতের টাকা মটরসের সঙ্গে যৌথভাবে মোটরযান নির্মাণের কারখানা স্থাপনের কাজে হাত দিয়েছে বাংলাদেশি নিটল-নিলয় গ্রুপ। ভারতের আরেকটি স্টিল প্রস্তুতকারী কোম্পানি এখানে বিনিয়োগের জন্য আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। এছাড়া এখানে ইলেকট্রিক গাড়ি, এগ্রো বেইজড ফুড অ্যান্ড বেভারেজ, গার্মেন্টস, টেক্সটাইল, তথ্য প্রযুক্তি ও টেলিযোগাযোগসহ অন্যান্য খাতে বিনিয়োগের কার্যক্রম এগিয়ে চলছে বলে জানিয়েছেন কিশোরগঞ্জ ইকনোমিক জোন কর্তৃপক্ষ।

সম্পূর্ণরূপে বাস্তবায়িত হলে আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে এখানে পাঁচ হাজার মানুষের প্রত্যক্ষ কর্মসংস্থান ও ২০ হাজার মানুষের পরোক্ষ কর্মসংস্থান হবে বলে আশা করছেন তারা।

নিটল-নিলয় গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান ও সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ বলেন, সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ বলেন, এই অর্থনৈতিক অঞ্চল শুধু কর্মসংস্থান নয়, নতুন উদ্যোক্তাও তৈরি করবে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মেনে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার জন্য এক ফসলি জমি বেছে নিয়েছে নিটল–নিলয় গ্রুপ।

তিনি আরো বলেন, দেশের ক্ষতি হবে এমন ব্যবসা তারা করবেন না। দূষণমুক্ত গাড়ি তৈরি করতে নতুন কেইজেডে কারখানা স্থাপন করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

কিশোরগঞ্জ কেইজেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল মুসাব্বির আহমাদ বলেন, এ কেইজেডে যারা নতুন প্রযুক্তি নিয়ে আসবে তাদের ভাড়া দেওয়া হবে। ইতিমধ্যে এ জোনের অর্ধেক জমি ভাড়া দেওয়া হয়েছে। বাকি জমি ভাড়ার বিষয়ে আলোচনা চলছে। তাদের কোম্পানি মোটরসাইকেল উৎপাদন করছে। এখন গাড়ি তৈরি করা হবে।

অনুষ্ঠানে বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান পবন চৌধুরী তাঁর বক্তব্যে এখন থেকে বেজা নিজেই ব্যবসায়ীদের ট্রেড লাইসেন্স দিবে বলে জানান।

এ সময় বেজার নির্বাহী সদস্য মোহাম্মদ আইয়ুব ও টাটা মোটরসের কান্ট্রি ম্যানেজার জিতেন্দ্র বাহাদুরসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠান শেষে নিটল-নিলয় গ্রুপের চেয়ারম্যান আবদুল মাতলুব আহমাদ সাংবাদিকদের বলেন, দেশের বাজার আর গাড়ি আমদানিনির্ভর থাকবে না। এখন দেশে তৈরি গাড়ি স্থানীয় বাজারের চাহিদা মিটিয়ে রফতানি করা হবে।

তিনি বলেন, পিকআপ তৈরির পাশাপাশি পরিবেশবান্ধব ব্যাটারিচালিত ব্যক্তিগত গাড়ি তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আধুনিক প্রযুক্তির এ গাড়িতে জাপানে তৈরি ব্যাটারি ব্যবহার করা হবে। এতে একবার চার্জ দিলে ২০০ কিলোমিটার যাতায়াত করা যাবে। এ গাড়ির দাম পড়বে ১২ লাখ টাকা।

তিনি বলেন, কারখানায় গাড়ির যন্ত্রাংশ, বডিসহ সব কিছুই দেশে তৈরি করা হবে। বর্তমানে যৌথ মালিকানার কোম্পানি নিটার যশোরে একটি বাস ও ট্রাক সংযোজন কারখানা রয়েছে।

কেইজেড সূত্র জানায়, নিটল–নিলয় গ্রুপ ভারতের টাটা কোম্পানির সঙ্গে যৌথভাবে বিনিয়োগ করবে। প্রথমে টাটার ডাবল কেবিন পিকআপ উৎপাদন শুরু হবে। ধীরে ধীরে সব গাড়ি উৎপাদন করা হবে। এছাড়া টাটা স্টিল তাদের পণ্য তৈরি করবে। ইতোমধ্যে টাটার প্রতিনিধিরা অর্থনৈতিক অঞ্চল পরিদর্শন শেষে মতামত দিয়েছেন। টাটা ছাড়াও কয়েকটি বড় কোম্পানি এ অঞ্চলে বিনিয়োগে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর