কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নারায়ণগঞ্জকে বদলে দিচ্ছেন কিশোরগঞ্জের কৃতী সন্তান এসপি হারুন


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ১২ এপ্রিল ২০১৯, শুক্রবার, ১:৩০ | বিশেষ সংবাদ 


প্রাচ্যের ডান্ডি হিসেবে খ্যাত নারায়ণগঞ্জ গুম-খুন ও সন্ত্রাসের জন্য নেতিবাচকভাবে সারাদেশে উপস্থাপিত হচ্ছিল। জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিও ছিলো অবনতির দিকে। তবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বিপিএম (বার), পিপিএম (বার) নারায়ণগঞ্জে যোগ দেয়ার পর থেকেই বদলে যেতে শুরু করে পুরো জেলার চিত্র।

এসপি হারুন মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ ও ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণার পর তা বাস্তবায়ন শুরু করলে পুরো জেলার মানুষের আস্থা আদায় করতে সক্ষম হয় প্রথমবারের মতো পুলিশ। পাশাপাশি পুলিশ সুপার হারুনও খ্যাতি পেয়ে যান জেলার সর্বোচ্চ জনপ্রিয় সরকারী কর্মকর্তার।

একই সাথে তিনি প্রিয় ব্যক্তি হিসেবে নাগরিক সমাজ, সাংবাদিক সমাজ, জনপ্রতিনিধিসহ সবার কাছে গ্রহণযোগ্য হয়ে ওঠেন। সবাই মনে করছেন, নারায়ণগঞ্জে এসপি হারুন অর রশীদের জনপ্রিয়তা এখন তুঙ্গে।

নাগরিক সমাজের বিশিষ্টজনেরা মনে করেন, মাত্র ৫ মাসে তৃণমূল মানুষের আস্থা অর্জন করতে পেরেছন পুলিশ সুপার। নগরের ফুটপাত দিয়ে স্বাচ্ছন্দে হাঁটতে পারা এবং যানজটমুক্ত নগরী দেখতে পাওয়ার দাবি ছিলো নারায়ণগঞ্জবাসীর দীর্ঘদিন। নতুন এসপি যোগ দেয়ার কয়েকদিনের মধ্যেই এ কাজটি বিনা রক্তপাতে করতে পেরেছিলেন। তিনি নিজে উপস্থিত থেকে চাষাঢ়া শহীদ মিনার এলাকাসহ নগরীর ফুটপাতগুলো উন্মুক্ত করেছেন।

পুলিশ সুপার জনপ্রিয় হওয়ার বিশেষ যে কারণটি মনে করছে নাগরিক সমাজ। সেটি হচ্ছে সড়কে শৃঙ্খলা ফেরানো। নারায়ণগঞ্জ শহরসহ জেলার প্রতিটি উপজেলাতেই সড়কে শৃঙ্খলা ফিরেছে।বিশেষ করে নগরীর চাষাঢ়ায়, লিংক রোড, ঢাকা-পাগলা-নারায়ণগঞ্জ সড়ক এবং চাষাঢ়া- চিটাগাংরোড পর্যন্ত সড়কে শৃঙ্খলা ফিরেছে। এগুলো পুলিশ সুপার নিজ উদ্যেগেই করেছেন। লিংকরোডে ডিভাইডার ভেঙে গাড়ি ঘোরানোর জন্য যেসব অবৈধ ফাক তৈরি করা হয়েছে সেগুলো বন্ধ করার ব্যাপারে উদ্যেগ নিয়েছেন পুলিশ সুপার।

এছাড়া নগরীতে নির্দিষ্ট জায়গা ব্যতিরেকে গাড়ির স্ট্যান্ড এবং পার্কিং এর ব্যাপারে কঠোরতার কারণে সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে পেরেছেন পুলিশ সুপার। জনভোগান্তি কমায় পুলিশ সুপারের উপর আস্থা বেড়েছে সাধারণ মানুষের।

নাগরিক সমাজের মতে, নারায়ণগঞ্জ শহরে একটি বড় জুয়ার আসরের কথা সারাদেশের মানুষ জানতো। পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ সেই জুয়ার আসরে অভিযান চালিয়ে ৪১জন জুয়াড়িকে গ্রেপ্তার করেন। বন্ধ হয়ে যায় সেই জুয়ার আসর।

জেলার সর্বোচ্চ কর্মকর্তা জানেন সে জেলায় কি ঘটছে। সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে পারলেই তিনি সে জেলার মানুষ হয়ে যান। পুলিশ সুপার সাধারণ মানুষের মনের অবস্থাটি বুঝতে সক্ষম হয়েছেন।

পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ যোগদান করার পরপরই মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অভিযান পরিচালনা করছেন। এতে অনেক প্রভাবশালীকেও তিনি ছাড় দেননি। সন্ত্রাস কিংবা অপরাধীদের বিরুদ্ধে তিনি যেমন কঠোর তেমনি নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার সুশীল সমাজের সাথেও অত্যন্ত মিশুক। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর তিনি জেলায় প্রথমবারের মতো সাংবাদিকদের নিয়ে একটি ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন করেন।

যেখানে তিনি নিজেও খেলোয়াড় ছিলেন। সাংবাদিকদের সাথে একই মাঠে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এসপির এ ফুটবল খেলার আয়োজন সর্বমহলে অত্যন্ত প্রশংসিত হয়। এছাড়া পুলিশ সুপারেরর উপর সাধারণ মানুষের আস্থা তৈরি হয়েছে এর আরেকটি বড়দিক হচ্ছে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সাধারণ মানুষের সেবা বৃদ্ধি পাওয়া।

নাগরিক সমাজের বিশিষ্টজনেরা বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নারায়ণগঞ্জবাসীকে সুসংবাদ দেন। তিনি আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে প্রথমবারের মতো একজন পূর্ণাঙ্গ মন্ত্রী উপর দেন নারায়ণগঞ্জবাসীকে। অত্যন্ত সজ্জন ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের এমপি গোলাম দস্তগীর গাজীকে (বীর প্রতিক) তিনি পাট ও বস্ত্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দেন। আনন্দের জোয়ারে ভাসে পুরো নারায়ণগঞ্জ। মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর নারায়ণগঞ্জে প্রথমবারের মতো আসলে পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে গোলাম দস্তগীর গাজীকে গার্ড অব অনার প্রদান করেন। যা পুরো নারায়ণগঞ্জবাসীর অন্তরকে স্পর্শ করে। সবার মন জয় করে নেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বিপিএম (বার), পিপিএম (বার) গত বছরের ৪ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করেন। সেখানে যোগদানের পর একাদশ জাতীয় নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পাদনে তিনি অসামান্য ভূমিকা রাখেন।

এছাড়া তিনি নারায়ণগঞ্জ জেলা থেকে মাদক, ভূমিদস্যু, হকার, ঝুট সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান ঘোষণা করেন। শহরের যানজট নিরসনে অবৈধ সিএনজি, অটোরিকশার স্ট্যান্ড উচ্ছেদসহ হকার উচ্ছেদ করেছেন। এতে নারায়ণগঞ্জবাসীর ব্যাপক সমর্থন ও প্রশংসা পেয়েছেন তিনি। তাঁর কর্মদক্ষতার কারণে তিনি পর পর দুই বার ঢাকা রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার হিসেবে পুরস্কৃত হয়েছেন। এবারও অর্জন করেছেন সম্মানসূচক পুলিশ পদক বিপিএম। যার মাধ্যমে সম্মানসূচক পুলিশ পদক পাওয়ার তালিকায় পাঁচবার তিনি তাঁর নাম লেখান।

মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বিপিএম (বার), পিপিএম (বার) কিশোরগঞ্জ জেলার হাওর অধ্যুষিত মিঠামইন উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের গর্বিত সন্তান।

সূত্র: যুগের চিন্তা, লিংক: নারায়ণগঞ্জকে বদলে দিচ্ছেন এসপি হারুন




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর