কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ইটনায় পুলিশ-ডাকাত বন্দুকযুদ্ধ, চার ডাকাত আহত, অস্ত্র-গুলি উদ্ধার


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ এপ্রিল ২০১৯, বুধবার, ৪:৪৯ | ইটনা  


ইটনায় পুলিশের সাথে ডাকাতদলের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনায় আন্ত:জেলা ডাকাতদলের সক্রিয় চার সদস্য আহত হয়েছে। তাদের মধ্যে পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হওয়া মো. নাজিম উদ্দিন (৩৫) ও জামাল মিয়া (২৭) নামে দুই ডাকাতের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদেরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

আহত ডাকাতদলের অপর দুই সদস্য হলো, মোক্তার আলী (২১) ও মারুফ (২০)। তাদেরকে পুলিশ হেফাজতে ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

বন্দুকযুদ্ধের পর ডাকাতদলের কোষা নৌকা থেকে একটি পাইপগান ও ৫ রাউন্ড কার্তুজ ছাড়াও রামদা, চাপাতি ও বল্লমসহ বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) দিবাগত রাত পৌনে ২টার দিকে উপজেলার এলংজুড়ি ইউনিয়নের মরাগাঙ কলের কান্দা এলাকায় বন্দুকযুদ্ধের এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় ইটনা থানার দুই পুলিশ কর্মকর্তা এসআই ফারুক ও এসআই কাউসার আহত হলে তাদেরকেও ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

ডাকাতদলের আহত চার সদস্যের মধ্যে মো. নাজিম উদ্দিন মিঠামইন উপজেলার ঢাকী ইউনিয়নের বড়কান্দা গ্রামের মৃত পাছু মিয়ার ছেলে, জামাল মিয়া একই গ্রামের মৃত রহিছ মিয়ার ছেলে, মোক্তার আলী একই গ্রামের রুছমত আলীর ছেলে এবং মারুফ নিকলী উপজেলার সিংপুর গ্রামের নজরুল মিয়ার ছেলে।

পুলিশের ভাষ্য, ‘অবৈধ অস্ত্রধারী আন্ত:জেলা ডাকাতদলটি ইটনা উপজেলার এলংজুড়ি ইউনিয়নের মরাগাঙ কলেরকান্দা এলাকার ধনু নদীতে কোষা নৌকায় অবস্থান করে ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে’ এমন খবর পেয়ে পুলিশ সেখানে যায়। মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) দিবাগত রাত পৌনে ২টার দিকে সেখানে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ১২ জনের ডাকাতদলটি পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করলে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোঁড়ে।

পুলিশ ও ডাকাতদলের গুলি বিনিময়ের এক পর্যায়ে পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়ে ডাকাতদলের অধিকাংশ সদস্যরা পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ ডাকাতদলটির অবস্থান নেয়া কোষা নৌকাটি ঘিরে ফেলে সেখান থেকে আহত অবস্থায় ডাকাতদলের চার সদস্য মো. নাজিম উদ্দিন, জামাল মিয়া, মোক্তার আলী ও মারুফকে গ্রেপ্তার করে ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যায়। সেখানে পায়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হওয়া মো. নাজিম উদ্দিন ও জামাল মিয়ার অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাদেরকে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এ ব্যাপারে ইটনা থানার ওসি মোহাম্মদ মুর্শেদ জামান বিপিএম জানান, দীর্ঘদিন ধরে ইটনা থানাসহ আশপাশের হাওর অধ্যুষিত থানা এলাকায় আন্ত:জেলা এই ডাকাতদলটি নৌযান ব্যবহার করে তাদের অপতৎপরতা চালিয়ে আসছে। তাদের নামে বিভিন্ন থানায় একাধিক ডাকাতির মামলা রয়েছে।

এ বিষয়ে পরবর্তি আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলেও ওসি মুর্শেদ জামান জানিয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর