কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে ‘কয়লা’র ইফতারে ঐতিহ্য আর বিদেশি খাবারের স্বাদ


 মো. আল আমিন | ১৭ মে ২০১৯, শুক্রবার, ৮:৩৩ | অর্থ-বাণিজ্য 


কিশোরগঞ্জ শহরের ইশাখাঁ রোড ও স্টেশন সড়কটিকে এই রমজানে ইফতার সরণি বললে ভুল বলা হবে না।  এই দুই সড়কে রমজান উপলক্ষে শতাধিক হোটেল ও রেস্তোরাঁ তাদের প্রতিষ্ঠানের সামনে বিভিন্ন রকমের ইফতার সামগ্রী নিয়ে বসছে। এসব ইফতার কিনতে বিকেল থেকেই মানুষের জটলা হচ্ছে। শহরের মানুষের পাশাপাশি শহরের বাইরে থেকে আসা মানুষ বাড়ি ফেরার পথে এসব ইফতার কিনে নিয়ে যান।

বাইরে ইফতারি বিক্রির পাশাপাশি শহরের কয়েকটি রেস্তোরাঁ ঘরোয়া পরিবেশেও ইফতার করার সুযোগ রেখেছে। এসব রেস্তোরাঁয় দেশীয় খাবার ছাড়াও নানা দেশের, নানা প্রান্তের খাবার  নিয়ে প্যাকেজের ব্যবস্থা আছে। পরিবার পরিজন ও বন্ধু-বান্ধব নিয়ে অনেকেই ইফতার করতে রেস্তোরাঁতে আসছেন।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) ও শুক্রবার (১৭ মে) বিকেল থেকে ইফতারের সময় পর্যন্ত দুই সড়কে ঘুরে দেখা যায়, নানান রকম মুখরোচক খাদ্য সম্ভারে সাজানো ইফতারের আয়োজন নিয়ে বসেছে রেস্তোরাঁগুলো। রোজাদারেরা ভিড় করে কিনছেন সেসব ইফতারি ।

এর মধ্যে স্টেশন সড়কের গাঙচিল, ইষ্টিকুটুম, মাছরাঙা ও তাজ রেস্টুরেন্টে দেশি খাবারের প্রাধান্য বেশি। একই সড়কে ম্যাক ও টুইস্ট নামের খাবারের দোকানে মিষ্টান্নসহ ভিন্ন ধরণের সুস্বাদু খাবারের আয়োজন রয়েছে।

রোস্তোরাঁর ইফতার সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে ঘুগনি, ছোলা, পেঁয়াজি, বেগুনি, চপ, হালিম, জিলাপি, ফিরনি, দইবড়া, নানা ধরনের কাবাব ও তেহারি।

ইশাখাঁ রোডের উল্লেখযোগ্য রেস্তোরাঁগুলো হলো কয়লা, ধানসিঁড়ি ও দারুচিনি। এর মধ্যে কয়লার ইফতারে রয়েছে হরেক রকমের চায়নিজ, থাই, তুর্কিসহ পশ্চিমা একাধিক দেশের সুস্বাদু সব খাবারের সম্ভার।

রোজার প্রথম দিন থেকেই এ রেস্তোরাঁর সামনে রীতিমতো সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে মানুষজন ইফতার কিনছেন। জেলা শহরের এ রেস্তোরাঁটিতে উন্নত ডেকোরেশন, শান্ত ও মনোরম পরিবেশ থাকায় অনেক রোজাদার পরিবার পরিজন এবং বন্ধু-বান্ধব নিয়ে স্বাচ্ছন্দে ইফতার করতে আসছেন।

ঘরোয়াভাবে যাঁরা ইফতার করবেন তাঁদের জন্য রেস্তোরাঁটি ছোলা, বেগুনি, পিঁয়াজু, চপ, জিলাপি, খেজুর, আপেল, মুড়ি ও শরবতের সাথে বিদেশি খাবারের সমন্বয়ে ইফতার-১, ইফতার-২, ইফতার-৩ ও ইফতার-৪ নামে ৪টি প্যাকেজ রেখেছে। প্যাকেজগুলো ১২০ থেকে ২১০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। তাদের বিশেষ খাবারের মধ্যে রয়েছে চিকেন গ্রিল বডি কাবাব (৬ পিছ, দাম ১৪০ টাকা), চিকেন মালাই কাবাব (৬ পিছ, দাম ১১০ টাকা), মাটন বডি কাবাব (৫ পিছ,  দাম ২০০ টাকা), মাটন লেম কাবাব (৩ পিছ, ৩০০ টাকা), চিকেন কাবলি কাবাব, (৬পিছ, দাম ১৪০ টাকা) ইত্যাদি। এছাড়াও তাদের মাটন শিক কাবাব ( দাম ২০০ টাকা), চিকেন রেশমি কাবাব (দাম ১৮০ টাকা) ও চিকেন আদানা (দাম ২২০ টাকা) বেশ জনপ্রিয়।

ইফতারের পর কয়লা নামের এই রেস্তোরাঁতে রয়েছে নামাজের ব্যবস্থা, এরপর চা বা কফির চুমুকে জমে আড্ডা, গল্প। এ কারণেও  ইফতারের সময় মুখরিত হয়ে ওঠে রোস্তোরাঁটি।

কয়লার পরিচালক বিজয় খোকা বলেন, ‘ইফতার পরিবেশনের ক্ষেত্রে শুধু স্বাদের বিষয়টিই নয়, স্বাস্থ্যগত বিষয়টিও আমরা খুব গুরুত্ব ও দৃঢ়তার সঙ্গে খেয়াল রাখছি। লাইভ কিচেন থাকায় ক্রেতারা চাইলেই যেকোনো সময় আমাদের রান্নাঘর দেখতে পারছেন। তাদের সামনেই রান্না করে গরম গরম ইফতার পরিবেশন করছি আমরা। আমাদের লক্ষ্য ইফতারিটা ক্রেতারা যেন ঘরের তৈরি খাবারের মতোই উপভোগ করতে পারেন।’

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) ইফতারের আগে এ রেস্তোরাঁয় গিয়ে দেখা গেল কোনো টেবিল ফাঁকা নেই। ২০০ মানুষের সমাগম এখানে।

এখানে কথা হয় সরকারি ব্যাংকের কর্মকর্তা আবদুল মান্নানের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘পরিবার পরিজন নিয়ে ইফতার করতে এসেছি। পরিবেশটা ভালো লাগছে। খাবারও টাটকা। এই মফস্বল শহরে দীর্ঘদিন পর একটা ভালো মানের রেস্তোরাঁ হয়েছে।’

বন্ধুদের নিয়ে ইফতার করতে আসা গুরুদয়াল কলেজের অনার্স তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মাহফুজুর রহমান শাকিল জানান, প্রতিবছর রোজার সময় বন্ধু-বান্ধব মিলে ইফতার করেন তাঁরা। এবার কয়লার খুব নাম ডাক শুনে এখানে তাদের ইফতার করতে আসা।

শহরের খরমপট্টি এলাকার গৃহিনী আফরোজা খানম স্বামীসহ দুই সন্তানকে নিয়ে এসেছেন কয়লায় ইফতার করতে। তিনি বলেন, প্রতিদিন ঘরে বসে দেশি খাবার খেতে চান না বাচ্চারা। তাই মাঝে মধ্যে এদের নিয়ে চলে আসেন রেস্তোরাঁয় ইফতার করতে। ইফতারের জন্য  কয়লার আলাদা প্রস্তুতি পরিবেশ তাঁর ভালো লেগেছে।

ইফতারের ঠিক আগ মুহুর্তে কথা হয় কলেজপড়ুয়া দুই তরুণী রুবাবা ফারজান ও নাহদিয়া রোজ এর সঙ্গে। তাঁরা বলেন, একসঙ্গে ইফতার করার জন্য রেস্তোরাঁই ভরসা। রোজার সময় তাঁরা দল বেঁধে আড্ডায় আড্ডায় স্বাদ নেন একাধিক রেস্তোরাঁর খাবারের। কয়লায় ঐতিহ্যবাহী দেশি খাবারের পাশাপাশি বিদেশি খাবারের স্বাদ নিতে ইফতার করতে এসেছেন তাঁরা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর