কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


টানা বৃষ্টিতেও অবিচল ছিলেন শোলাকিয়ার মুসল্লিরা


 বিশেষ প্রতিনিধি | ৫ জুন ২০১৯, বুধবার, ১২:৪২ | বিশেষ সংবাদ 


বিরূপ আবহাওয়া আর গত কয়েকদিনের থেমে থেমে বৃষ্টির কারণে ঈদের দিনও বৃষ্টির চোখ রাঙানির আশঙ্কা ছিল। চাঁদ রাতে বৃষ্টির ঝনঝনানি সেই আশঙ্কাকেই আরো ঘনীভূত করে। রাত পৌনে ৪টার দিকে শুরু হয় অঝর ধারার বৃষ্টি। থেমে থেমে তা সকালেও অব্যাহত থাকে।

এই বৃষ্টি মাথায় নিয়েই বুধবার (৫ জুন) সকাল থেকে শোলাকিয়া অভিমুখে ঢল নামে মুসল্লিদের। জামাত শুরু হওয়ার অন্তত দেড় ঘন্টা আগে শুরু হয় টানা বৃষ্টি। এতে ঈদগাহ ময়দান, রাস্তা ও আশেপাশের এলাকা কর্দমাক্ত হয়ে পড়ে।

কিন্তু টানা এই বৃষ্টিতেও অবিচল ছিলেন শোলাকিয়া ময়দানে সমবেত লাখো মুসল্লি। অনেকেই জায়নামাজ আর ছাতা মাথার উপর মেলে ধরে কোন রকমে নিজেকে বৃষ্টি থেকে রক্ষা করেছেন। আবার অনেকেই ভিজেছেন অঝর ধারার বৃষ্টিতে। এরপরও তাঁদের মাঝে ছিল না কোন অস্বস্তি।

সকাল ১০টা ২৪ মিনিটে যখন শোলাকিয়ায় এবারের ১৯২তম জামাত শুরু হয়, তখনও চলছিল বৃষ্টি। টানা বৃষ্টিতে মুসল্লিরা স্নাত হলেও আল্লাহর সান্নিধ্য ও অনুকম্পা পেতে ব্যাকুল ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের জন্য তা বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি। বৃষ্টিতে ভিজেই তাঁরা বৃহত্তম এ ঈদ জামাতের নামাজ আদায় করেছেন।

মাঠের সুনাম ও জনশ্রুতির কারণে ঈদের বেশ কয়েক দিন আগে থেকেই কিশোরগঞ্জের প্রত্যন্ত অঞ্চল ও সারাদেশের বিভিন্ন জেলা তথা ময়মনসিংহ, নেত্রকোনা, রাজশাহী, কুষ্টিয়া, গাজীপুর, নরসিংদী, ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, সিলেট, জামালপুর, খাগড়াছড়ি, শেরপুর, যশোর, খুলনা ও চট্রগ্রামসহ অধিকাংশ জেলা থেকে শোলাকিয়ায় মুসল্লিদের সমাগম ঘটে। এদের অনেকে ওঠেন হোটেলে, কেউবা আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে ও মাঠ পরিচালনা কমিটির ব্যবস্থাপনায় শোলাকিয়া ঈদগাহ সংলগ্ন কুমুদিনী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। আবার অনেকেই কোথাও জায়গা না পেয়ে রাত কাটান জেলা সদরের বিভিন্ন মসজিদে।

শত ব্যস্ততা, নানা সমস্যা আর প্রাকৃতিক বৈরিতাকে উপেক্ষা করে এক কাতারে দাঁড়িয়ে ধনী-গরীব সকলে নামাজ আদায় করেন শোলাকিয়া ঈদ জামাতে। তাঁদের সবার উদ্দেশ্য একটাই যেন কোন অবস্থাতেই হাত ছাড়া হয়ে না যায় জামাতে অংশগ্রহণ, পাপ থেকে মুক্তি আর আল্লাহর সান্নিধ্য লাভের সুযোগ।

ধনী-গরীবের ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে সাম্য ও  সুন্দরের ভিত্তিতে এক নতুন সমাজ গড়ার এই শিক্ষা নিয়েই জামাত শেষে বাড়ির পথে শোলকিয়া ছাড়েন তাঁরা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর