কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফের জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ জুন ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১২:০৩ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফের জন্ম শতবার্ষিকীর প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (১২ জুন) সন্ধ্যায় জেলা পাবলিক লাইব্রেরিতে কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ সাহিত্য ও গবেষণা পরিষদের উদ্যোগে এই প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সংগঠনটির সভাপতি প্রবীণ সাংবাদিক ও লেখক মু আ লতিফের সভাপতিত্বে ও সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ছড়াকার জাহাঙ্গীর আলম জাহানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত এ সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষাবিদ প্রানেশ কুমার চৌধুরী, জেলা পাবলিক লাইব্রেরির সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক খান রতন অ্যাডভোকেট, কবির বড় ছেলে সাঈদ আহমদ আনীস, লেখক গবেষক ড. হালিম দাদ খান, সাংবাদিক আহমদ ফরিদ, ছড়াকার বিজনকান্তি বণিক, কবি আমিনুল ইসলাম সেলিম, মো. ফিরোজ উদ্দীন ভূঁইয়া, স্বপন কুমার বর্মণ, সাংবাদিক মুশফিকুর রহমান প্রমুখ।

প্রস্তুতি সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ি আগামী ২০ জুলাই জেলা পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফের জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন করা হবে। বর্ণাঢ্য এ আয়োজনে কবির সাহিত্য কর্মের ওপর নির্ধারিত আলোচকদের আলোচনা, জীবনী পাঠ, নিবেদিত কবিতা আবৃত্তিসহ  বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালা থাকবে।

কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ ১৯১৯ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে জাওয়ার গ্রামে নানার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পৈত্রিক বাড়ি  কিশোরগঞ্জের বৌলাই গ্রামে।

কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ একাধারে ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, সম্পাদক ও অনুবাদক। তিনি কবিতা, উপন্যাস, নাটক, প্রবন্ধ, জীবনী, কিশোরসাহিত্য, অনুবাদ ও আত্মজীবনী মিলিয়ে ২৮টি গ্রন্থ রচনা করেন। পারস্যের মহাকবি ফেরদৌসীর শাহনামা বাংলায় অনুবাদ করার জন্য তাকে 'বাংলার ফেরদৌসী' নামে অভিহিত করা হয়।

বাংলা সাহিত্যে অবদানের জন্য ১৯৭৮ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার এবং ১৯৯৩ সালে মরণোত্তর বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রদত্ত সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদক-এ ভূষিত হন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর