কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কাটখাল ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে ছাত্রলীগ সভাপতির সংবাদ সম্মেলন


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৪ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ৬:৪০ | মিঠামইন 


মিঠামইন উপজেলার কাটখাল ইউপি চেয়ারম্যান মো. তাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রকল্পের প্রায় অর্ধ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মো. কামরুল হাসান। তিনি বলেছেন, ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম বিভিন্ন প্রকল্পের কাজ না করে প্রকল্পের টাকা আত্মসাত করেছেন। এমনকি মসজিদের কাজ এবং রিলিফ এর চাউল/গমের টাকা পর্যন্ত আত্মসাত করেছেন।

এসব দুর্নীতির বিষয়ে সুনির্দিষ্টভাবে গত ১১ সেপ্টেম্বর জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। এ ব্যাপারে অবিলম্বে তদন্তের মাধ্যমে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (২৪ অক্টোবর) দুপুরে কিশোরগঞ্জ জেলা পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে কাটখাল ইউনিয়নবাসীর ব্যানারে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মো. কামরুল হাসান এই সংবাদ সম্মেলন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে কাটখাল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মো. কামরুল হাসান বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর তাজুল ইসলাম ইউনিয়ন পরিষদের বিভিন্ন প্রকল্পের অর্থ আত্মসাত, মাদক ও আদম ব্যবসাসহ নানা অপকর্মে জড়িয়ে পড়েন।

উল্লেখযোগ্য আত্মসাতের মধ্যে রয়েছে, কাটখাল ইউনিয়নের শান্তিপুর কুরবান মিয়ার বাড়ির সামনে পাকা ঘাটলা নির্মাণ প্রকল্পের কাজ না করেই বরাদ্দকৃত দুই লাখ টাকা সম্পূর্ণ আত্মসাত করেছেন।

একই রকম ভাবে কাজ না করে শান্তিপুর আব্দুল হামিদ মিয়ার বাড়ির সামনে পাকা ঘাটলা নির্মাণ প্রকল্পের দুই লাখ টাকা, কাটখাল ইউপি ভবনের দরজা জানালা মেরামত প্রকল্পের এক লাখ টাকা, কাটখাল ইউপি ভবন মেরামত ও চুনকাম প্রকল্পের ১ লাখ ১২ হাজার ১১৪ টাকা, কাটখাল বাজার পুরাতন জামে মসজিদ সংস্কার ও পুনঃনির্মাণের ২ লাখ টাকা, কাটখাল বাজার মাছের শেডের সামনের অংশের রাস্তা সংস্কারের ১ লাখ ৯০ হাজার টাকা এবং কাটখাল বাজারের ইসলাম উদ্দিনের দোকানের সামনের রাস্তা মেরামতের ১ লাখ ৮৭ হাজার ৫শ’ টাকা সম্পূর্ণ আত্মসাত করেছেন।

ক্ষতিগ্রস্থ প্রান্তিক চাষী ও জেলেদের মাঝে বিতরণের জন্য বরাদ্দকৃত ৫১ টন চাউল ও নগদ ৮ লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং ২০১৮ সালের জুন মাসে ২৩৮ জনের জন্য বরাদ্দকৃত ভিজিডি কর্মসূচির ৭ মে. টন ১৪০ কেজি চাউল উত্তোলন করে আতœসাত করেছেন।

২০১৬-১৭ অর্থবছরে এলজিএসপি-৩ খাতের আওতায় বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প দেখিয়ে ১৭ লাখ টাকা উত্তোলন করে সম্পূর্ণ অর্থ আত্মসাত করেছেন। এছাড়া ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক আদায়কৃত ট্যাক্স প্রায় দেড় লাখ টাকা পরিষদ তহবিলে জমা না করে আত্মসাত করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে স্থানীয় ব্যবসায়ী জালাল উদ্দিন এবং কলেজ শিক্ষার্থী দেলোয়ার হোসাইন বক্তব্য রাখেন।

অভিযোগের ব্যাপারে কাটখাল ইউপি চেয়ারম্যান মো. তাজুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনা এসব অভিযোগ নাকচ করে দিয়ে বলেন, একজন ইউপি চেয়ারম্যান চাইলেই এরকম অনিয়ম কিংবা দুর্নীতি করতে পারে না। মূলত আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রতিপক্ষের ইন্ধনে আমার বিরুদ্ধে পরিকল্পিতভাবে এসব অপপ্রচার চালাানো হচ্ছে। আমার জনপ্রিয়তাই তাদের এই অপপ্রচারের মূল কারণ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর