কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


এসভি’র আঙিনায় ফাগুনের ‘বসন্ত উচ্ছ্বাসে’ প্রাণে প্রাণে আনন্দ


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার, ৬:৪৪ | বিশেষ সংবাদ 


আজ দোসরা ফাল্গুন। পাখির ডাক আর ফুল ফোটার আকুলতা নিয়ে আমাদের দ্বারে আরো একদিন আগেই ঋতুরাজ বসন্তের আগমন ঘটেছে। বিশেষ করে শিমুল ও পলাশের ফুটন্ত পাঁপড়িতে কবি লিখে দিয়েছেন কবিতার ছন্দ। মর্মে মর্মে জেগে উঠছে আনন্দ বার্তা।

যৌবনের আত্মিক এক অনাবিল প্রেরণার উদ্ভাসিত বসন্ত সময়কে বরণ করে নিতে কিশোরগঞ্জ শহরের ঐতিহ্যবাহী এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে আয়োজন করা হয় বসন্ত উৎসবের।

দুপুর ২টার দিকে শুরু হওয়া বসন্ত উৎসবকে উপলক্ষ করে বিদ্যালয়জুড়ে ফাগুনের ‘বসন্ত উচ্ছ্বাসে’ প্রাণের আনন্দে মাতোয়ারা হন ছাত্রী-শিক্ষক-শিক্ষিকা।

এ যেন অপুর্ব এক জীবনের কলতানের প্রাণময় উচ্ছ্বাস। অন্তরের সকল দুঃখকে ছেড়ে পবিত্রতার এক মেলবন্ধন। যা শুধুই জীবনকে ছুঁয়ে দেখার নির্ভেজাল আত্মিক স্পন্দন।

বিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সাংস্কৃতিক পর্বে ছাত্রীদের গান আর নৃত্যে মাতোয়ারা হন শিক্ষক-শিক্ষার্থী সবাই। বাদ যাননি শিক্ষক-শিক্ষিকারাও। তারাও স্টেজে ওঠে দলবেঁধে কোরাস গেয়েছেন প্রাণের উচ্ছ্বাসে।

সাংস্কৃতিক পর্বে সবচেয়ে আকর্ষণীয় ছিল বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রীদের অংশগ্রহণে র‌্যাম্প শো। তারা পেশাদার মডেলের মতো মাতিয়েছে বসন্ত উৎসবের মঞ্চ। হেঁটেছে দুরন্ত ছন্দে, দৃপ্ত পায়ে।

বসন্ত উৎসবে সমবেত হওয়া শিক্ষক-শিক্ষিকা ও শিক্ষার্থী সবার পরনেই ছিল বাসন্তী রংয়ের ছোঁয়ায় রাঙানো পোশাক। সাংস্কৃতিক পরিবেশনা শেষে সবাই মেতে ওঠেন ছবি তোলার উৎসবে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা শাহনাজ কবীরকে ঘিরে সেলফি শিকারী ছাত্রীদের ভিড় লেগেই ছিল। ছাত্রীরা নিজেরাও মুঠোফোনের ক্যামেরায় দুরন্ত আর উচ্ছ্বাসময় দিনটির স্মৃতি ধরে রাখতে ছিল ভীষণ তৎপর।

ফাগুনের দ্বিতীয় দিনটিতে দুপুর থেকে বিকাল পর্যন্ত যেন আনন্দের ফল্গুধারা বইছিল কিশোরগঞ্জ শহরের ঐতিহ্যবাহী এসভি সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের অমর গান ‘তোরা সব জয়ধ্বনি কর’ আর বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘আহা কী আনন্দ আকাশে বাতাসে’ গানের কলিও যেন তাই সেখানে সার্থকতা পেয়েছিল সমভাবে।

ভিডিও:




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর