কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে নতুন করে ২৯ জনের করোনা শনাক্ত, সদরে ১০, ভৈরবে ১৪


 স্টাফ রিপোর্টার | ২ জুন ২০২০, মঙ্গলবার, ১১:৩৭ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জ জেলায় করোনা সংক্রমণ লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এরই মধ্যে রুদ্রমূর্তি ধারণ করেছে চীনের প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি। সর্বশেষ মঙ্গলবার (২ জুন) রাতে পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্টে নতুন করে আরো ২৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

এই রিপোর্টে প্রথমবারের মতো শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট সংযোজিত হয়েছে। গত শনিবার (৩০ মে) কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা থেকে সংগৃহীত ৪৪ জনের নমুনা প্রথমবারের মতো শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষা হয়েছে। এতে ৬ জনের পজেটিভ এবং ৩৮ জনের নেগেটিভ এসেছে।

এছাড়া গত বৃহস্পতিবার (২৮ মে) জেলায় সংগৃহীত মোট ১৭৭ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য মহাখালীর ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথ (আইপিএইচ) এ পাঠানো হয়েছিল। এই ১৭৭ জনের নমুনার মধ্যে নতুন করে ২৩ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

সোমবার (১ জুন) পর্যন্ত কিশোরগঞ্জ জেলায় করোনা শনাক্তের সংখ্যা ছিল ৩৭৫ জন। মঙ্গলবার (২ জুন) নতুন করে আরো ২৯ জনের করোনা শনাক্ত হওয়ায় বর্তমানে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪০৪ জনে।

এদিকে নতুন করে জেলায় ৭ জন করোনাভাইরাস থেকে সুস্থ হয়েছেন। এর আগে জেলায় সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ছিল ২০১ জন। ফলে সুস্থ হওয়ার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২০৮ জন।

বর্তমানে জেলায় মোট ১৮৯ জন করোনা রোগী এবং ৪ জন সাসপেক্টটেড বিভিন্ন হাসপাতাল ও নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে রয়েছেন। এর মধ্যে অন্য জেলায় শনাক্তকৃত ৪ জন করোনা পজেটিভ রয়েছেন।

মঙ্গলবার (২ জুন) রাত সোয়া ১১টার দিকে কিশোরগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, কিশোরগঞ্জ জেলা থেকে বৃহস্পতিবার (২৮ মে) জেলায় সংগৃহীত ও শনিবার (৩০ মে) কেবল সদর উপজেলায় সংগৃহীত মোট ২২১ জনের নমুনার মধ্যে ১৯০ জনের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে।

এছাড়া ৩১ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে। তাদের মধ্যে দুইজন পুরাতন কোভিড-১৯ পজেটিভ রয়েছেন। অর্থাৎ নতুন করে ২৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

মোট ২২১ জনের নমুনার মধ্যে শনিবার (৩০ মে) কেবল কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা থেকে সংগৃহীত ৪৪ জনের নমুনা প্রথমবারের মতো শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে পরীক্ষা হয়েছে। এতে ৬ জনের পজেটিভ এবং ৩৮ জনের নেগেটিভ এসেছে।

অন্যদিকে গত বৃহস্পতিবার (২৮ মে) জেলায় সংগৃহীত মোট ১৭৭ জনের নমুনা পরীক্ষার জন্য মহাখালীর ইনস্টিটিউট অব পাবলিক হেলথ (আইপিএইচ) এ পাঠানো হয়েছিল। এই ১৭৭ জনের নমুনার মধ্যে নতুন করে ২৩ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া এই ২৯ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ১০ জন, করিমগঞ্জ উপজেলার ৪ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলার ১ জন এবং ভৈরব উপজেলার ১৪ জন রয়েছেন।

ফলে মঙ্গলবার (২ জুন) পর্যন্ত পাওয়া নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট অনুযায়ী কিশোরগঞ্জ জেলায় মোট ৪০৪ জনের করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

উপজেলাওয়ারী হিসাবে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৫২ জন, হোসেনপুর উপজেলার ১৩ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৩২ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৪১ জন, পাকুন্দিয়ায় উপজেলায় ১৭ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১৯ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ১৪ জন, ভৈরব উপজেলায় ১৪২ জন, নিকলী উপজেলায় ৫ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ২৯ জন, ইটনা উপজেলায় ১২ জন, মিঠামইন উপজেলায় ২৫ জন ও অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৩ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

তাদের মধ্যে করিমগঞ্জ উপজেলার জঙ্গলবাড়ি মুসলিমপাড়া গ্রামের সেলিম মিয়া (৪৬), কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের বড়বাজার টেনু সাহার গলি এলাকার নিতাই (৬০), হোসেনপুর উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ পানান গ্রামের ১০ বছর বয়সী শিশু মিজান, কুলিয়ারচর উপজেলার গোবরিয়া আব্দুল্লাহপুর ইউনিয়নের মাতুয়ারকান্দা গ্রামের মোস্তফা মিয়া (৬০), কটিয়াদী উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের বাট্টা গ্রামের তরুণ ভূইয়া (৪০), বাজিতপুর পৌরসভার চারবাড়িয়া এলাকার মো. আল আমিন মিয়া (৬০), ভৈরব পৌরশহরের চণ্ডিবের দক্ষিণপাড়ার বাসিন্দা মৎস্য ব্যবসায়ী অমিয় দাস (৬০), মিঠামইন উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের ঘাগড়া মীরহাটির রফিকুল ইসলাম (২৭), করিমগঞ্জ উপজেলার গুজাদিয়া ইউনিয়নের টামনী ইসলামপুর গ্রামের সামছুদ্দিন (৬৫),কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার লতিবাবাদ ইউনিয়নের অষ্টবর্গ গ্রামের তারা মিয়া  (৪৫) এবং ভৈরবের বাসায় নরসিংদী জেলার রায়পুরার হাজী শিশু মিয়া (৭৫) এই ১১ জন মৃত ব্যক্তি রয়েছেন।

এছাড়া গত ২৪ মে ভোরে ঢাকা শিশু হাসপাতালে শনাক্তকৃত ২২ মাস বয়সী কোভিড-১৯ পজেটিভ শিশু কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। মারা যাওয়ার আগে গত ১৯ মে সংগৃহীত তার দ্বিতীয় নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। সে অন্যান্য জন্মগত ত্রুটিতে ভুগছিল।

এর আগে গত ২১ মে বিকালে কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসোলেশনে থাকা হুমায়ুন সিদ্দিকী (৫৫) নামে এক করোনা রোগীর মৃত্যু হয়। মারা যাওয়ার পর ওইদিনই (২১ মে) পাওয়া তার দ্বিতীয় নমুনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছিল।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর