কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


রাষ্ট্রপতির ভাতিজা বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল আলম রতনের ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ


 স্টাফ রিপোর্টার | ৬ নভেম্বর ২০২০, শুক্রবার, ৩:৫৪ | মিঠামইন 


রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের বড় ভাই মরহুম আবদুল গণির ছেলে বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট রফিকুল আলম রতনের ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ (৬ নভেম্বর)। ২০১৩ সালের আজকের দিনে (৬ নভেম্বর) তিনি ঢাকার ল্যাবএইড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন।

৫৮ বছর বয়সে মারা যাওয়া বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল আলম রতন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭৯ সালে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। পরবর্তীতে তিনি এলএলবি ডিগ্রী অর্জন করেন।

মৃত্যুর আগে তিনি কিশোরগঞ্জ জেলা উদীচীর সহ-সভাপতি ছিলেন। তিনি দৈনিক আজকের কাগজের সহকারী সম্পাদক, পাক্ষিক মুক্তিবার্তার সম্পাদক হিসেবে সাংবাদিকতা পেশায় যুক্ত ছিলেন।

দীর্ঘদিন তিনি মিঠামইন প্রেসক্লাবের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া তিনি বাংলাদেশ কৃষকলীগের জাতীয় কমিটির সদস্য ছিলেন।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ১ ছেলে ও ২ মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে যান।

বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল আলম রতনের ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে কিশোরগঞ্জের মিঠামইনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (৬ নভেম্বর) সকালে মিঠামইন প্রেসক্লাব কার্যালয়ে এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মিঠামইন প্রেসক্লাব সভাপতি বিজয় কর রতনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ আছিয়া আলম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সমীর কুমার বৈষ্ণব,  বীর মুক্তিযোদ্ধা শফিকুল আলম মানিক, উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান মো. ইব্রাহিম মিয়া, সদর ইউপি চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শরীফ কামাল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুখলেছুর রহমান ভুইয়া, প্রচার সম্পাদক মাঈন উদ্দিন, হাজী তায়েব উদ্দিন উচ্চ বালক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুভাস বৈষ্ণব, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হক কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল ফারুক আহমেদ সিদ্দিকী, মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো.  শাহজাহান মিয়া, তমিজা খাতুন সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা আবেদা আক্তার জাহান সাংবাদিক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন হারুন, সাংবাদিক এমএ মহসিন, সাংবাদিক সুজিত দাস, যুবলীগ নেতা সিদ্দিকুর রহমান, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হাসান উল্লাহ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. বাচ্চু মিয়া, যুবলীগ নেতা লিয়াকত আলী মীর প্রমুখসহ সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনা সভায় অংশগ্রহণ করতে না পারায় মোবাইলে শোকবার্তা ও সমবেদনা জানিয়ে একাত্মতা প্রকাশ করেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক কার্যনির্বাহী সদস্য ও মিঠামইন প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি রাজেন্দ্র দেব মন্টু, জেলা কৃষকলীগের সভাপতি দৈনিক শতাব্দীর কন্ঠের সম্পাদক আহমেদ উল্লাহ, জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আনোয়ার হোসেন বাচ্চু এবং ঢাকাস্থ ইটনা সমিতির সভাপতি মো. শফিকুল ইসলাম মান্নান।

কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের সংসদ রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক বড় ভাই বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট রফিকুল আলম রতন সম্পর্কে স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে বলেন, ‘আমার বড় ভাইয়ের আজ ৭ম মৃত্যু বার্ষিকী। তিনি অত্যন্ত মেধাবী ও বুদ্ধিমান মানুষ ছিলেন। তিনি একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। ওনার সম্পর্কে বলতে গেলে অনেক কিছুই বলতে হয়। সর্বদা স্পষ্টভাষী  ছিলেন। কোন হিংসা বিদ্বেষ ছিল না। আমার খুব সম্মানীয় ব্যক্তি ছিলেন। আমি আমার পরিবারের পক্ষ থেকে ওনার প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা ও আত্মার মাগফেরাত কামনাসহ দোয়া করছি।’




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর