কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বিশ্বকাপ মিশনে পাকিস্তানকে হারিয়ে শুভ সূচনা বাংলাদেশের, নাহিদার মিতব্যয়ী বোলিং



 স্টাফ রিপোর্টার | ২১ নভেম্বর ২০২১, রবিবার, ৮:৫০ | সম্পাদকের বাছাই  



নারী ওয়ানডে বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানকে হারিয়ে শুভ সূচনা করেছে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ক্রিকেট দল। রোমানা, ফারজানা, রিতু মনি, শারমীন, সালমাদের কুশলী ব্যাটিংয়ে ৩ উইকেটে জয় পায় বাংলাদেশ।

রোববার (২১ নভেম্বর) জিম্বাবুয়ের হারারেতে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হয়। টসে জিতে বাংলাদেশ নারী দল প্রথমে ফিল্ডিং বেছে নেয়।

বাংলাদেশ নারী দলের বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে নির্ধারিত ৫০ ওভারে পাকিস্তান নারী দল ৭ উইকেট হারিয়ে ২০১ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হয়।

বাংলাদেশ নারী দলের পক্ষে নাহিদা আক্তার ও রিতু মনি দুটি করে এবং সালমা খাতুন ও রোমানা নেন একটি করে উইকেট দখল করেন।

ম্যাচে বোলিং জাদু দেখিয়ে সবচেয়ে মিতব্যয়ী ছিলেন বোলার নাহিদা আক্তার। ১০ ওভার বল করে ২৫ রানের খরচায় নাহিদা পাকিস্তানের দুটি গুরুত্বপূর্ণ উইকেট নেন। এর মধ্যে একটি ছিল মেডেন ওভার। ম্যাচে নাহিদার বোলিং ফিগার ১০-১-২৫-২।

পাকিস্তানের দেয়া ২০২ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে ২ বল হাতে রেখে লক্ষ্য স্পর্শ করে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ দলের হয়ে রোমানা আহমেদ দলীয় সর্বোচ্চ ৫০ রানের হার না মানা ইনিংস উপহার দিয়ে দলকে জয় এনে দিয়ে মাঠ ছাড়েন।

নারী ওয়ানডে বিশ্বকাপের বাছাইপর্ব শুরুর আগে প্রস্তুতি হিসেবে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে অংশ নেয় বাংলাদেশ নারী দল। এতে জিম্বাবুয়েকে হোয়াইট ওয়াশ করে তিন ম্যাচের সিরিজ ৩-০ ব্যবধানে জিতে নেয় বাংলাদেশ নারী দল।

সিরিজের তিন ম্যাচেই বোলিংয়ে দারুণ কৃতিত্ব দেখান টাইগ্রেস বোলার নাহিদা আক্তার। প্রথম ম্যাচে ৫.২ ওভারে মাত্র ২ রানে ৩ উইকেট নেন নাহিদা আক্তার। তার মধ্যে আবার ৩টিই ছিল মেডেন ওভার। যা ওয়ানডেতে বাংলাদেশ নারী দলের হয়ে সবচেয়ে কিপটে বোলিংয়ের রেকর্ড। গত ১১ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে বাংলাদেশ ৮ উইকেটে জিম্বাবুয়েকে হারায়।

প্রথম ম্যাচের মতো দ্বিতীয় ম্যাচেও ৩ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন কিশোরগঞ্জের মেয়ে টাইগ্রেস বোলার নাহিদা আক্তার। গত ১৩ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে বাংলাদেশ ৯ উইকেটে হারিয়েছে জিম্বাবুয়েকে।

এদিন ৯.৪ ওভার বল করে ৩০ রানের খরচায় দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট লাভ করেন নাহিদা। এর মধ্যে ছিল দুটি মেডেন ওভার। ইকোনমি গড় ৩.১০।

গত ১৫ নভেম্বর ৫ উইকেট নেয়ার মাধ্যমে নিজের ওয়ানডে ক্যারিয়ারকে আরো সমৃদ্ধ করেছেন নাহিদা আক্তার। এই সিরিজের তিন ম্যাচ থেকেই নাহিদা মোট ১১টি উইকেট শিকার করেছেন।

ফলে নাহিদা আক্তারের ১৯ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে তার শিকার এখন ২৬ উইকেট। সেরা বোলিং ৫/২১।

পাকিস্তানের বিপক্ষে ২০১৫ সালের ৪ অক্টোবর একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় নাহিদা আক্তারের। এরপর থেকে নাহিদা আক্তার বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের হয়ে নিয়মিত বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে আসছেন।

নাহিদা আক্তারের বোলিং জাদুতে ২০১৯ সালের ৮ ডিসেম্বর এস এ গেমস ক্রিকেটে ইতিহাস গড়ে স্বর্ণ জয় করে বাংলাদেশ নারী দল।

এর আগে ২০১৮ সালের জুনে নাহিদার মিতব্যয়ী বোলিং এ এশিয়া কাপের ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে ঐতিহাসিক জয় পায় বাংলাদেশ। যা ছিল আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের প্রথম কোন টুর্নামেন্ট শিরোপা।

বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের অন্যতম বোলার হিসেবে আস্থা আর নির্ভরতার এক অনন্য নাম এখন নাহিদা আক্তার।

অন্যদিকে নাহিদা আক্তারের ৪১ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে ১৩.৪২ গড়ে তার শিকার ৫০ উইকেট। ইকোনমি গড় ৪.৯৮। সেরা বোলিং ৪/১১।

২০২০ সালের ২ মার্চ নিজের ২১তম জন্মদিনে সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ৫০ উইকেট নিয়ে বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন নাহিদা আক্তার।

এছাড়া টি-টুয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাই পর্বেও নাহিদার পারফর্মেন্স ছিল নজরকাড়া।

বামহাতি অর্থোডক্স বোলার নাহিদা আক্তারের জন্ম ২০০০ সালের ২ মার্চ কিশোরগঞ্জ জেলার কুলিয়ারচর উপজেলার দ্বাড়িয়াকান্দি গ্রামে। তার বাবার নাম মো. হামজু ভূঁইয়া। বেড়ে ওঠা রাজধানী ঢাকায়।

২০১৫ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানের বিপক্ষে করাচীতে অনুষ্ঠিত খেলায় আন্তর্জাতিক টি-টুয়েন্টি ক্রিকেটে অভিষেক হয় নাহিদা আক্তারের। ওই সময় মহিলাদের আন্তর্জাতিক টি-টুয়েন্টি ক্রিকেট দলে বাংলাদেশের সর্বকনিষ্ঠ খেলোয়াড় ছিলেন নাহিদা আক্তার। তার বয়স ছিল মাত্র ১৫ বছর ২১২ দিন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর